শনিবার | ১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩১শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

অপরিকল্পিত উন্নয়ন ও নাগরিক দুর্ভোগ

প্রকাশিত : জুলাই ১৩, ২০২১





শাহ ফখরুজ্জামান ॥ উন্নয়ন শব্দটি শুনলে কার না ভালো লাগে। যেকোনো পর্যায়েই এ উন্নয়ন মানুষের গভীর আকাঙ্ক্ষা। তবে উন্নয়ন হলে ক্ষতিও হতে পারে। উন্নয়নের বিপরীতে ক্ষতি শব্দটিও জড়িত। এক্ষেত্রে ক্ষতি যদি তুলনামূলক কম হয়, সেটা আমরা স্বাভাবিকভাবেই মেনে নিই; সুফল ভোগ করতে হলে কিছু ছাড় দিতেই হয়। তাই যেকোনো উন্নয়নের আগে সার্বিক গবেষণা করা হয়, কীভাবে ক্ষতির পরিমাণ কমিয়ে কল্যাণের পরিমাণ বেশি করা যায়। পরিকল্পিত উন্নয়ন একটি জনপদকে উন্নতির চরম শিখরে পৌঁছাতে পারে এবং সেটি টিকে থাকে হাজার বছর ধরে। আবার অপরিকল্পিত উন্নয়নে হরপ্পা ও মহেঞ্জোদারোর মতো সভ্যতাকে বিলীন করে দেওয়ারও ইতিহাস রয়েছে। কিন্তু আমরা ইতিহাস থেকে আদৌ কি কিছু শিক্ষা নিয়েছি? এ প্রশ্ন দেখা দিয়েছে আমাদের উন্নয়ন কর্মকান্ডে কিছু প্রতিষ্ঠানের অদূরদর্শীতা ও মানুষের অসচেতনতায়।

ভূমিকাটা অনেক বড় পরিসর দিয়ে শুরু। কারণ কিছু উন্নয়ন কাজ ও এর প্রভাব নিয়ে আমার খুব উদ্বেগ। হবিগঞ্জ শহরের কিছু উন্নয়ন কাজ থেকেই এ উদ্বেগ। তবে এ লেখার মূল উদ্দেশ্য শুধু হবিগঞ্জ শহরের উন্নয়ন কাজই নয়, আমাদের জনগণের ভূমিকাও আমার পর্যবেক্ষণে এসেছে।

সম্প্রতি হবিগঞ্জ শহরের ২নং পুল এলাকায় পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের জেলা কার্যালয়ের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে গিয়েছিলাম। সুরম্য ভবন ও বিশাল চত্বর দেখে যে কারও চোখ জুড়িয়ে যাবে। কিন্তু এ অফিসটি নির্মাণ করতে গিয়ে ভূমি ও ভিটার যে উচ্চতা করা হয়েছে, তাতে করে ভবন সংলগ্ন পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের মাতৃমঙ্গল ভবন ও কমপ্লেক্স অনেক নিচে পড়ে গেছে। ফলে সামান্য বৃষ্টি হলেই দেখা দিচ্ছে জলাবদ্ধতা। আবার পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের জেলা কার্যালয়ের পানি নিষ্কাশনের জন্য করা হয়নি ড্রেনেজ ব্যবস্থাও। ফলে প্রকল্পটির কারণে সংলগ্ন অফিসের যেমন দুর্ভোগ তৈরি হয়েছে, তেমনি সেই কমপ্লেক্সও দুর্ভোগের শিকার হওয়ার আশঙ্কা আছে।

ভবনটির উদ্বোধন করতে গিয়ে প্রধান অতিথি হবিগঞ্জ-৩ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহিরও বিষয়টি লক্ষ্য করেন। সঙ্গে সঙ্গে তিনি প্রকৌশলীকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করেন এবং সমাধান বের করার পরামর্শ দেন।

হবিগঞ্জ শহরের প্রধান সড়কের দুর্ভোগ নিয়ে আমার অনেক লেখালেখি হয়েছে। কিছুদিন পর পর রাস্তাটি সংস্কার করা হলেও সেটি আবারও নাজুক হয়ে পড়ে। তবে এবার সড়ক ও জনপথ বিভাগ পুরাতন হাসপাতাল থেকে চৌধুরীবাজার পর্যন্ত আরসিসি পেভমেন্টের মাধ্যমে রাস্তাটির কাজ শুরু করায় আমরা আশাবাদী। কিন্তু রাস্তার চলমান কাজ পর্যবেক্ষণ করে দেখা যাচ্ছে, এটির উচ্চতা অনেক বেশি। এর আগে পৌরসভা থেকে যে ড্রেন নির্মাণ করা হয়েছে, তারও উচ্চতা বাড়ানো হয়েছে। হঠাৎ করে এভাবে উচ্চতা বাড়ানোর ফলে সংলগ্ন এলাকাগুলো নিচে পড়ে যায়। ফলে বৃষ্টি এলে সহজে পানি নিষ্কাশন হবে না বলে দেখা দেবে জলাবদ্ধতা। অর্থাৎ উন্নয়নের কারণে সুফল মিললেও সামগ্রিকভাবে অন্যদিকে দুর্ভোগ বেড়ে যাবে।

এ ধরনের কাজে দুর্ভোগ লাগবে সমগ্র বিশ্বে জনপ্রিয় উন্নয়ন পদ্ধতি হল কোল্ড রি-সাইক্লিং প্ল্যান্টের মাধ্যমে রাস্তায় ব্যবহৃত পুরনো উপাদানগুলোর ৪০ থেকে ৬০ শতাংশ উপাদান পুনরায় ব্যবহার করার মাধ্যমে সংস্কার করা। এ পদ্ধতিতে সড়ক নষ্ট হয়ে গেলে পুনরায় রাস্তা কেটে উপাদানগুলোকে একত্রিত করা হয়। এরপর সেগুলো আবার ব্যবহারের উপযোগী করা হয়। যে পরিমাণ রাস্তা কেটে নিয়ে যাওয়া হয়, সে পরিমাণে বিটুমিন, খোয়াসহ অন্যান্য উপাদান ব্যবহার করা হয়। আবার এ পদ্ধতি ব্যবহারে রাস্তা উঁচু হয় না; রক্ষণাবেক্ষণ ব্যয় কমে। হবিগঞ্জ শহরের প্রধান সড়ক বার বার ক্ষতিগ্রস্থ হয় বলে হয়ত এ পদ্ধতির ব্যবহার করা হয় না। কিন্তু হঠাৎ করে উচ্চতা বাড়িয়ে দেওয়াটা কেন? এ কারণে বড় ধরনের সমস্যায় পড়েন রাস্তা সংলগ্ন ব্যবসায়ী ও নাগরিকরা।

হবিগঞ্জ শহরে যখনই কোনো উন্নয়ন হয়, তখন যে প্রতিষ্ঠানের স্থাপনা নির্মাণ করা হয়, শুধু তার দিকটাই বিবেচনা করা হচ্ছে। আশপাশের অবস্থা বিবেচনা করা হচ্ছে না। প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়নের পাশাপাশি ব্যক্তিপর্যায়েও হযবরল অবস্থা। সরকারি ও পৌর আইন না মেনেই বাউন্ডারি ও স্থাপনা নির্মাণের কারণে শহরের অনেক এলাকাই এখন সমস্যা সংকুল অবস্থায় রয়েছে। এর বাইরে শতবছরের পুরনো এ পৌরসভার ছোট আয়তন, খোয়াই নদী ও পুরাতন রেললাইনের মধ্যেই আবাসিক এলাকা গড়ে ওঠা এবং বসতভিটা ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অংশে ভাগ হওয়ায় অনেক এলাকায় গিঞ্জি পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে।

সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা না থাকা এবং যে পরিকল্পনা আছে, তা অগ্রাহ্য করে যে যার মতো করে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করার কারণেই এ ধরনের সমস্যা বাড়ছে। হবিগঞ্জ শহরে সরকারি প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের পাশাপাশি ব্যক্তিপর্যায়ে উন্নয়নের কাজে যাতে একটি সমন্বয় ও পরিকল্পনা থাকে, সেটি নিশ্চিত করতে হবে। না হলে দিনকে দিন সমস্যা আরও বাড়বে। শহর সংলগ্ন খোয়াই নদীতে প্রতিবারই শুধু বাঁধের উচ্চতা বাড়িয়ে পানি শাসন করতে গিয়ে উল্টো পানির উচ্চতা শহরের ভূমি থেকে আরও বেড়ে গেছে। সেখানে রয়েছে পরিকল্পনার অভাব।

হবিগঞ্জ শহরের সবচেয়ে পুরনো ও নান্দনিক স্থাপনার মধ্যে রয়েছে হবিগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভবনগুলো। ১০০ বছর আগে ভবনগুলো নির্মাণের সময় তখনকার প্রকৌশলীরা নিশ্চয় বিবেচনা করেছিলেন এখানকার বন্যামুক্ত লেভেল কত হতে পারে বা ভবিষ্যতে উচ্চতা বৃদ্ধি পেলেও যাতে এখানে কোনো ঝুঁকি না থাকে। শতবছর আগে প্রকৌশলীরা যে চিন্তা করতে পেরেছেন, বর্তমান সময়ে প্রকৌশলীরা কেন সেটি করতে পারছেন না। একটি নিদিষ্ট মানদন্ড ও উচ্চতা নির্ধারণ করে স্থাপনা নির্মাণ ও বার বার রাস্তা ও ড্রেনের উচ্চতা না বাড়িয়ে একটি স্থায়ী কাঠামো নিশ্চিত করা এখন সময়ের দাবি। তা না হলে সব উন্নয়নই অগ্রগতির সূচক না হয়ে দুর্ভোগের কারণ হিসেবে বিবেচনায় আসবে। লেখক: আইনজীবী ও সাংবাদিক

এই বিভাগের আরো নিউজ

শনিবার চট্টগ্রামের যেসব স্থানে বিদ্যুৎ থাকবে না
হবিগঞ্জ পৌরএলাকায় সুন্দর ও শান্তিপূর্নভাবে শারদীয় দুর্গাপূজা উৎসব পালিত
কিডনি ও লিভারে সমস্যা: হাসপাতালে থাকতে হবে খালেদা জিয়াকে
চৌমুহনীতে পূজামণ্ডপে হামলায় একজন নিহত, ১৪৪ ধারা জারি
আড়াই কোটি টাকা নিয়ে যশোর শিক্ষা বোর্ডের হিসাব সহকারী পলাতক
আজকের সর্বশেষ সব খবর