শনিবার | ১০ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

আওয়ামীলীগ ক্ষমতা হারানোর ভয়ে জনগণের কন্ঠরোধ করতে চায়

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন- বিনাভোটের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পতন নিশ্চিত করেই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে। আর খালেদা জিয়ার মুক্তি মানেই দেশের গণতন্ত্রের মুক্তি, একদলীয় শাসন থেকে মুক্তি, আওয়ামীলীগের দুঃশাসন থেকে মুক্তি। খালেদা জিয়ার মুক্তি ছাড়া মানুষের ভোটাধিকার ফিরে আসবে না। এ জন্যই দেশের মানুষ পরিবর্তন চায়, বিএনপিকে রাষ্ট্রক্ষমতায় দেখতে চায়।

তিনি গতকাল শনিবার বিকালে লাখাই উপজেলা বিএনপির মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

জি কে গউছ আরও বলেন- আওয়ামীলীগ সরকার দেশে একদলীয় শাসন কায়েম করেছে। দেশের বিচার ব্যবস্থাকে কুক্ষিগত করেছে। আদালতকে কাজে লাগিয়ে ফরমায়েশী রায়ের মাধ্যমে মাত্র ২ কোটি টাকার মিথ্যা মামলায় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সাজা দিয়ে গৃহবন্দি করে রেখেছে। অথচ এই ২ কোটি টাকা বেড়ে ব্যাংকে ৮ কোটি টাকা হয়েছে।

তিনি বলেন- ফরিদপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ২ হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে। দেশের সারির মিডিয়ায় এই সংবাদ প্রকাশ হয়েছে। জেলা পর্যায়ের একজন ছাত্রলীগ নেতা যদি ২ হাজার কোটি টাকা পাচার করে থাকেন, তাহলে আওয়ামীলীগের এমপি-মন্ত্রীরা কি পরিমান টাকা লুটপাট করেছে, দেশের জনগণের সম্পদ চুরি করে বিদেশে পাচার করেছে তা মানুষ বুঝে ফেলেছে। এ জন্যই জনগণের মুখোমুখি হতে আওয়ামীলীগের এত ভয়। আওয়ামীলীগ জানে, জনগণের হাতে ব্যালট পেপার দিলে তাদের জামানত থাকবে না। তাই ডিজিটাল ভোট ডাকাতি করে আওয়ামীলীগ আবারও ক্ষমতা দখল করতে চায়। কিন্তু আওয়ামীলীগ যত কৌশলই করুক শেখ হাসিনার অধীনে বাংলাদেশে কোনো নির্বাচন হবে না, কোনো নির্বাচন করতেও দেয়া হবে না।

জি কে গউছ বলেন- বিএনপি এখন ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য আন্দোলন করছে না। জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি, নজিরবিহীন বিদ্যুতের লোডশেডিং, পরিবহন ভাড়া বৃদ্ধি ও সারের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে বিএনপি রাজপথে আন্দোলন করছে। দেশের মানুষ বিএনপির এই আন্দোলনে সম্পৃক্ত হয়ে রাজপথে নেমে আসছে। দেশের মানুষ আওয়ামীলীগের দুঃশাসনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদমুখর হয়ে উঠছে। তাই ফ্যাসিষ্ট আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতা হারানোর ভয়ে জনগণের কন্ঠরোধ করতে চায়। খুন ঘুম আর মামলা-হামলা করে বিএনপিকে ধমিয়ে রাখতে চায়। কিন্তু খুন, ঘুম আর জেল-জুলুমের ভয় উপেক্ষা করেই বিগত ১৪ বছর যাবত বিএনপি নেতাকর্মীরা রাজপথে আছে, আগামীতেও থাকবে। মানুষের ভোটাধিকার ও দেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার না করে বিএনপি ঘরে ফিরে যাবে না।

শীঘ্রই বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দেশনায়ক তারেক রহমান সরকার পতনের একদফা আন্দোলনের কর্মসূচি দিবেন। সেই আন্দোলনে শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে হলেও বিনাভোটের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পতন নিশ্চিত করা হবে। দখলদার আওয়ামীলীগ সরকারের কবল থেকে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে।

লাখাই উপজেলা বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি শেখ ফরিদ মিয়ার সভাপতিত্বে ও সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম গোলাপের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন লাখাই উপজেলা বিএনপির সাবেক সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল ওয়াদুদ তালুকদার আব্দাল, জেলা বিএনপির সাবেক সদস্য এস আর তালুকদার শাহিনুর, জেলা বিএনপির সদস্য তাজুল ইসলাম চৌধুরী ফরিদ, সেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য তাজুল ইসলাম মোল্লা তাজ, উপজেলা বিএনপির সাবেক সহ সভাপতি আব্দুল মোতালিব খান, সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুদ্দীন আহম্মেদ, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহম্মেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম কাওছার, বিএনপি নেতা মাহফুজুর রহমান চৌধুরী, এডভোকেট মোক্তাদির তালুকদার, বাবুল মিয়া, মস্তোফা কামাল খসরু, মহিবুর রহমান, আব্দুল ওয়াহাব, শামছুল ইসলাম, মোহাম্মদ আলী, ফরাস উদ্দিন, আব্দুর রহিম, গোলাম কিবরিয়া, এনামুল হক চৌধুরী, উপজেলা সেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি মশিউর রহমান সাচ্চু, উপজেলা যুবদলের আহবায়ক মাহমুদুল হাসান, সদস্য সচিব মাহবুবুল আলম মালু, সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক তাউছ আহমেদ, সেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মিয়া মো লায়েছ, যুগ্ম সাধারণ সোহেল আহমেদ রানা, উপজেলা ছাত্রদলের সদস্য সচিব আহম্মেদ আজম, যুগ্ম আহ্বায়ক ফজলে রাব্বী, শেখ শরীফ আহমেদ, কাজল আহমেদ, শরীফ আহমেদ প্রমুখ।