বুধবার | ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

আজো জেলায় জেলায় মুরাদের নামে মামলার আবেদন

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ১৩, ২০২১




জার্নাল ডেস্ক ॥ সাবেক তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রীর পদ হারানো ডা. মুরাদ হাসানের বিরুদ্ধে সোমবারও (১৩ ডিসেম্বর) ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলার আবেদন করা হয়েছে ময়মনসিংহ, বরিশাল ও রাজশাহীতে। আসামি করা হয়েছে ইউটিউবার মহিউদ্দিন হেলাল নাহিদকেও।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও যুক্তরাজ্যে পলাতক সাজাপ্রাপ্ত আসামি তারেক রহমানের মেয়ে জাইমা রহমান সম্পর্কে ফেসবুক লাইভে কুরুচিপূর্ণ, অশ্লীল বক্তব্যের অভিযোগ তোলা হয়েছে এসব আবেদনে।

বেলা ১১টার দিকে ময়মনসিংহ সাইবার ট্রাইব্যুনালে ডা. মুরাদ হাসানের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলার আবেদন করা হয়েছে। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের মেয়ে জাইমা রহমান সম্পর্কে ফেসবুক লাইভে কুরুচিপূর্ণ, অশ্লীল বক্তব্যের অভিযোগ তুলে এই মামলার আবেদন করা হয়। মামলায় ডা. মুরাদ হাসান ছাড়াও আসামি করা হয়েছে মহিউদ্দিন হেলাল নাহিদকে।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম চৌধুরী বাদী হয়ে এই মামলার আবেদন করেন।

সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহা. বজলুর রহমান মামলার আবেদন গ্রহণ করে আদেশের জন্য পরবর্তী তারিখ নির্ধারণের জন্য রেখে দেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট নুরুল হক বলেন, ডা. মুরাদ হাসান বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের মেয়ে জাইমা রহমানসহ বিভিন্ন নারীদেরকে নিয়ে অশালীন কুরুচিপূর্ণ ও আপত্তিকর মন্তব্য করেছেন। এছাড়াও তিনি দেশের সকল নারী জাতিকে অসম্মান করেছেন। সরকার তাকে মন্ত্রীসভা থেকে সরিয়ে ফেললেই তার বিচার হয়ে যায়নি। দেশের প্রচলিত আইনে তার এই ঘৃণ্যতম অপরাধের শাস্তির দাবিতে এই মামলার আবেদন করা হয়েছে। আমরা বিশ্বাস করি আদালত এই মামলা আমলে নিয়ে অপরাধীকে বিচারের আওতায় নিয়ে আসবেন।

তিনি জানান, নাহিদ রেইনস নামে একটি ফেসবুক আইডি থেকে ডা. মুরাদ হাসানের অশালীন বক্তব্য প্রচার করায় তাকেও এই মামলার আসামি করা হয়েছে।

বরিশালের আদালতে ডা. মুরাদ হাসানের নামে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলার আবেদন করা হয়েছে। বেলা সাড়ে ১১টায় বরিশাল জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মো. আবুল কালাম আজাদ বাদী হয়ে বরিশালের সাইবার ট্রাইব্যুনালে মামলাটি দায়ের করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে সাইবার ট্রাইব্যুনালের স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট ইশতাক আহমেদ রুবেল জানান, মামলার আবেদনটি আমলে নিয়েছেন আদালত। তবে, এখনো কোনো আদেশ দেননি।

মামলায় ভার্চ্যুয়াল টকশোর উপস্থাপক নাহিদকেও আসামি করা হয়েছে।

বাদী আবুল কালাম আজাদ বলেন, মুহাম্মদ মহিউদ্দিন হেলালের ভার্চ্যুয়াল টকশোতে অংশ নিয়ে ডা. মুরাদ হাসান ব্যারিস্টার জাইমা রহমান সম্পর্কে অশ্লীল বক্তব্য দিয়েছেন। তাই তিনি মামলাটি দায়ের করলেন। আদালত মামলাটি গ্রহণ করলেও কোনো আদেশ দেননি। পরে আদালত এ ব্যাপারে আদেশ দেবেন।

এদিকে ডা. মুরাদ হাসানের নামে তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলার আবেদন খারিজ করে দেওয়া হয়েছে। মামলায় ইউটিবার মহিউদ্দিন হেলাল নাহিদ ওরফে নাহিদ হেলালকে ২ নম্বর আসামি করা হয়েছিলো। দুপুরের দিকে রাজশাহীর সাইবার ট্রাইব্যুনাল আদালত এ মামলার আবেদন খারিজ করেছে।

এর আগে, ট্রাইব্যুনালের বিচার (জেলা ও দায়রা জজ) মো. জিয়াউর রহমান এ মামলার আবেদনটি গ্রহণ করেছিলেন। তারেক রহমান ও ব্যারিস্টার জাইমা রহমান সর্ম্পকে কুরুচিপূর্ণ, নারী বিদ্বেষী, কুৎসিত ও মর্যাদাহানীকর মন্তব্য করায় সাবেক তথ্য ও প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান ও নাহিদের নামে মামলার আবেদনটি করা হয়েছিলো।

আজকের সর্বশেষ সব খবর