শনিবার | ১০ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

আজ শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন, কে হচ্ছেন নগরপিতা?

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ২৭, ২০২০




মোঃ জমির আলী, শায়েস্তাগঞ্জ: শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে আজ (সোমবার) ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোটগ্রহণ চলবে। ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট নেওয়া হবে। আগের দিনই (রোববার) ভোটকেন্দ্রগুলোতে নির্বাচনি সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে।

করোনাকালে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নির্বাচনে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়ানোর জন্য রাত থেকে পৌর এলাকার বিভিন্ন পয়েন্টে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো।

নিরাপত্তার বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান জানান, প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে ১০ জন পুলিশ সদস্য এবং ৯ জন আনসার সদস্যের সমন্বিত টিম সার্বক্ষণিক অবস্থান করবে। এছাড়াও পুলিশের পক্ষ থেকে ৫ টি মোবাইল টিম এবং স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে ২ টিম সহ ১ টি বিজিবির টহল টিম, এবং ১ টি র‌্যাবের টহল টিম থাকবে।
প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে ১ জন করে মোট ৯ জন মাজিস্ট্রেট উপস্থিত থাকবেন।

তবে রাতে বিভিন্ন কেন্দ্রে সরেজমিন ঘুরে দেখা যায় কেন্দ্রগুলোতে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। ২ নং ওয়ার্ডের শায়েস্তাগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিজাইডিং অফিসার মাহমুদুল হাসান বলেন, এই কেন্দ্রে ৬ টি ইভিএম দিয়ে ভোট গ্রহন করা হবে। কোন মেশিনে যান্ত্রিক সমস্যা দেখা দিলে তাৎক্ষণিক সমাধানের জন্য অতিরিক্ত আরও ২ টি মেশিন আছে।

সবকিছু ছাপিয়ে সকলের মনে একটাই প্রশ্ন কে হাসবেন শেষ হাসি? শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ৬ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও মূলত ত্রিমূখি লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যাচ্ছে। স্থানীয়রা বলছেন মুল লড়াই হবে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মাসুদুজ্জামান মাসুক, বিএনপি প্রার্থী ফরিদ আহমেদ অলি এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান মেয়র মো. ছলেক মিয়ার মধ্যে। অবশ্য এর একাধিক কারণও রয়েছে। তিনজনই এর আগে শায়েস্তাগঞ্জে মেয়র ও কাউন্সিলর হিসেবে জনগণের প্রতিনিধিত্ব করছেন।

এছাড়া মাসুদুজ্জামান মাসুক আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন আর অলি পেয়েছেন বিএনপির দলিয় মনোনয়ন। সেক্ষেত্রে এই দুই প্রার্থীর ভোট ব্যাংক হিসেবে কাজ করবে দলীয় ভোটার। অন্যদিকে বর্তমান মেয়র হওয়ায় ছালেক মিয়াও ভোটের মাঠে এগিয়ে আছেন অনেকাংশে।

উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত প্রথম শ্রেণির এ পৌরসভার আয়তন ১০ দশমিক ৪০ বর্গকিলোমিটার। মোট ভোটার ১৮হাজার ৩৫ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৮ হাজার ৮শ ৬০ জন এবং নারী ভোটার ৯ হাজার ১শ ৭৫ জন। ৯টি কেন্দ্রের ৪৬টি কক্ষে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোট হবে। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন মেয়র পদে ৬ জন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মাসুদউজ্জামান মাসুক (নৌকা), বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ফরিদ আহমেদ অলি (ধানের শীষ), আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান মেয়র মো. ছালেক মিয়া (নারকেল গাছ), ফজল উদ্দিন তালুকদার (চামচ) ও আবুল কাশেম শিবলু (জগ) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী ইমদাদুল ইসলাম শীতল (মোবাইল ফোন)। এছাড়া প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩৬ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১৪ জন।