মঙ্গলবার | ২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

একসঙ্গে বাবা-ছেলে-মেয়ে-নাতির এইচএসসি পাস!

প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২২




জার্নাল সারাদেশ বার্তা ॥ প্রকাশিত হয়েছে উচ্চ মাধ্যমিক ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল। সারাদেশে উত্তীর্ণদের বাঁধভাঙা আনন্দ। তার ঢেউ লেগেছে পাহাড়ি জেলা খাগড়াছড়ি। তবে এবার প্রকাশিত এইচএসসি ফলাফলে নজর কেড়েছে খাগড়াছড়ি জেলার মাটিরাঙ্গা উপজেলার তাইন্দং ইউনিয়নের একটি পরিবার। ৫০ বছর বয়সে উচ্চ মাধ্যমিক (আলিম) পাস করেছে মো. সিরাজুল ইসলাম। শুধু তাই নয়, তাইন্দং ইউনিয়নের সাবেক এ চেয়ারম্যানের ছোট মেয়ে, একমাত্র ছেলে এবং বড় মেয়ের ঘরের নাতিও পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের শুভেচ্ছায় সিক্ত করছেন স্থানীয়রা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিরাজুল ইসলামের ছয় মেয়ে এক ছেলে। এবার পরীক্ষায় ছোট মেয়ে মাহমুদা সিরাজ খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজ থেকে মানবিক বিভাগ থেকে জিপিএ ৪.১৭ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। একমাত্র ছেলে হাফেজ নেসার উদ্দিন আহম্মেদ চট্টগ্রাম বাইতুশ শরফ কামিল মাদ্রাসা থেকে জিপিএ ৪.০০ পেয়েছে। সিরাজুল ইসলামের বড় মেয়ের ঘরের নাতি নাজমুল হাসান খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজ থেকে মানবিক বিভাগে জিপিএ ৪.৬৭ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে৷

তবে বড় চমকটুকু সিরাজুল ইসলাম নিজেই। তিনি খাগড়াছড়ি ইসলামিয়া সিনিয়র আলিম মাদ্রাসা থেকে জিপিএ ২.১৪ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন।

এ বয়সে কেন পরীক্ষা দিলেন এমন প্রশ্নের সহজ উত্তর দিলেন সিরাজুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘দোলনা থেকে কবর পর্যন্ত শিক্ষার কিন্তু শেষ নেই। আসার আমার আগ্রহ ছিল বটেই, আমাকে দেখে অন্যরাও উৎসাহ পাবে এ ভাবনা থেকে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছি।

সিরাজুল ইসলাম ১৯৯২ থেকে ৯৭ পর্যন্ত মাটিরাঙ্গার তাইন্দং ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ছিলেন। পরবর্তীতে ২০০৩ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

পেশায় ব্যবসায়ী সিরাজুল আরো বলেন, শিক্ষার বিকল্প নেই। যত বয়স হোক জ্ঞান অর্জন করে নিজেও দেশকে সমৃদ্ধ করা সম্ভব।

আজকের সর্বশেষ সব খবর