শনিবার | ১০ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

করোনাকালে ত্রাণ কেলেঙ্কারিতে সমালোচিত আ. লীগ নেতা পেলেন সমাজসেবা পুরস্কার!

প্রকাশিত : জানুয়ারি ৫, ২০২১




সারাদেশ ডেস্ক : করোনা মহামারীর মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার বিশেষ ওএমএসের তালিকায় স্ত্রী-সন্তানসহ ১৩ স্বজনকে ‘গরিব’ ও ‘কর্মহীন’ পরিচয় দিয়ে সরকারি চাল আত্মসাতে অভিযুক্ত ও তুমুল সমালোচিত আওয়ামী লীগ নেতা মো. শাহ আলম সমাজসেবায় ‘বিশেষ অবদানের’ জন্য পেয়েছেন সম্মাননা।

গত শনিবার জাতীয় সমাজসেবা দিবস-২০২১ উপলক্ষে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সমাজসেবা কার্যালয় থেকে তাকে ওই সম্মাননা দেওয়া হয়। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও স্থানীয় গণমাধ্যমসহ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সর্বত্র চলছে তোলপাড়।

এদিকে শাহ আলমকে সম্মাননা দেওয়ার ব্যাপারে ব্যাখ্যা চেয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক। কোন প্রক্রিয়ায় সমাজসেবা সম্মাননার জন্য তাকে মনোনীত করা হয়েছে জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খান তা ২৪ ঘণ্টার মধ্যে লিখিতভাবে জানাতে বলেছেন জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপপরিচালক মাসুদুল হাসান তাপসকে। গত রোববার রাতে এ চিঠি দেওয়া হয়।

জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খান স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে বলা হয়, ইতিপূর্বে মো. শাহ আলম ওএমএস ডিলারশিপ সংক্রান্ত বিষয়ে বিতর্কিত হওয়ায় তাকে সম্মাননা প্রদান করায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। কোন প্রক্রিয়ায় এবং কীভাবে তাকে সমাজসেবায় বিশেষ অবদানের জন্য মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে, এ বিষয়টি নিম্নস্বাক্ষরকারী জ্ঞাত নন। এ অবস্থায় মো. শাহ আলমকে সম্মাননা প্রদানের বিষয়টি কোন প্রক্রিয়ায় নির্ধারিত হয়েছে তা আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে লিখিতভাবে ব্যাখ্যা করার জন্য অনুরোধ করা হলো।

এর আগে সমাজসেবা দিবস উপলক্ষে গত শনিবার জেলা আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক মো. শাহ আলমকে সম্মাননা দেয় সমাজসেবা কার্যালয়। ওই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে থাকা জেলা প্রশাসক নিজেই তার হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন।

জানা গেছে, করোনার কারণে লকডাউন চলাকালে পৌরসভার ১০ নম্বর ওয়ার্ডের জন্য বরাদ্দকৃত ওএমএস কার্ডের তালিকায় জেলা আ. লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক শাহ আলমের স্ত্রী মোছাম্মৎ মমতাজ আলম, মেয়ে আফরোজা, ডিলারের কাতার প্রবাসী শ্যালকের স্ত্রী মোছাম্মৎ জান্নাতুল ইসলাম, আরেক শ্যালকের স্ত্রী আছমা ইসলাম, বোন শামসুন্নাহার, মালয়েশিয়া প্রবাসী ভাতিজা নাছির, ভাই ব্রাহ্মণবাড়িয়া পরিবহন শ্রমিক সমিতির সভাপতি মো. সেলিম, আরেক ভাই মো. আলমগীর, শ্যালক মো. তাজুল ইসলাম ও শফিকুল ইসলাম, বোনের দেবর আতাউর মিয়া, লুৎফুর মিয়া ও মাহবুব মিয়াসহ ১৩ জনের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এরপরই জেলা ওএমএস কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খান ১১ মে ডিলার মো. শাহ আলমের কাছে তার ডিলারশিপ কেন বাতিল করা হবে না মর্মে ব্যাখ্যা তলব করেন।

এতে বলা হয়, কভিড-১৯ সংক্রমণের উদ্ভূত পরিস্থিতিতে পৌর এলাকার দরিদ্র ও নিম্ন আয়ের মানুষের মধ্যে কাউতলীর শহীদ লুৎফুর রহমান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ওএমএস ডিলার হিসেবে আপনি (শাহ আলম) ১০ টাকা কেজির চাল বিক্রি করছেন। ১০ নম্বর ওয়ার্ডের ওএমএসের ভোক্তা তালিকায় আপনার স্ত্রী, মেয়ে, ভাই-বোনসহ নিকট আত্মীয়স্বজনের নাম তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করেছেন মর্মে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। যা ন্যায়সংগত নয়। এই কর্মকাণ্ডের কারণে ওএমএস নীতিমালা, ২০১৫ মোতাবেক তার ডিলারশিপ কেন বাতিল হবে না দুই কর্মদিবসের মধ্যে এর সন্তোষজনক জবাব চাওয়া হয়। জবাব সন্তোষজনক না হওয়ায় ১৩ মে শাহ আলমের ওএমএস ডিলারশিপ বাতিল করা হয়।

অবশ্য আওয়ামী লীগ নেতা শাহ আলম দাবি করছেন, তিনি সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত একজন সমাজকর্মী। বিভিন্নভাবে তিনি সমাজসেবায় যুক্ত বলে সম্মাননার জন্য বাছাই করা হয়। একটি দুষ্টচক্র রাজনৈতিকভাবে হেয় করার জন্য অপপ্রচার করছে।

শাহ আলমকে সম্মাননার জন্য মনোনীত করার কারণ জানতে চাইলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সমাজসেবা কার্যালয়ের উপপরিচালক মাসুদুল হাসান তাপস বলেন, ‘সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রশিক্ষিত একজন সমাজকর্মীর পাশাপাশি তিনি আমাদের শিশু পরিবার ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য। ওএমএস ডিলারশিপ বাতিলের তথ্যটি আমাদের জানা ছিল না।’