মঙ্গলবার | ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

‘কলঙ্কিত মুখ নিয়ে আর বেঁচে থাকতে চাই না’ চিরকুট লিখে প্রেমিকার আত্মহত্যা

প্রকাশিত : নভেম্বর ৭, ২০২১




জার্নাল সারাদেশ বার্তা ॥ ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে হাদিসা আক্তার পপি (১৭) নামে এক কলেজছাত্রী আত্মহত্যা করেছেন। তবে মৃত্যুর আগে তিনি একটি চিরকুট লিখে গেছেন। সেখানে উঠে এসেছে, এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর প্রতারণার শিকার হয়ে আত্মহত্যা করতে বাধ্য হন ওই তরুণী।

তরুণী ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর সম্পর্কের বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়ভাবে সালিস বসে টাকার পরিমাপে মীমাংসার চেষ্টা করে। এতে ক্ষোভে রোববার (৭ নভেম্বর) সকাল ১০টার দিকে নিজ বাড়ির টয়লেটে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন ওই তরুণী।

পপি ময়মনসিংহ নগরীর মুমিনুন্নেসা সরকারি কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। তিনি ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার উচাখিলা ইউনিয়নের মরিচারচর নামাপাড়া গ্রামের তহুর উদ্দিনের মেয়ে। তার সঙ্গে প্রতিবেশী মোনায়েম মিয়া নামে এক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। মোনায়েম একই গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আমীর আলীর ছেলে।

মৃত্যুর আগে লিখে যাওয়া একটি চিরকুট পেয়েছে পুলিশ। তাতে লেখা রয়েছে, মোনায়েম তুমিই ভালো থেক। সরল মনে তোমাকে ভালোবেসেছিলাম। কিন্তু তুমি আমার ভালোবাসাটা বুঝলে না। আমি আমার এই কলঙ্কিত মুখ নিয়ে আর বেঁচে থাকতে চাই না। তোমাকে সরল মনে ভালোবেসে কী অপরাধ করেছিলাম জানি না। তুমি ভালো থেক। আমি তো তোমার কাছে আগে যাইনি, তুমিই তো আমাকে আগেই ভালোবেসেছো। আমি বুঝতে পারিনি তোমার অভিনয়। সুখে থেক। সারাটা জীবন অনেক ভালো থেক, এটাই চাই।

চিঠিতে আরও লেখা হয়, আমি বুঝতে পারিনি, তুমি আমার সঙ্গে কেন এমন করলে। কি ক্ষতি করেছিলাম তোমার এমন, জানি না। আমি জীবন দিয়ে তোমাকে ভালোবেসেছিলাম। দেহ দিয়ে নয়। তুমি শুধু আমার দেহটাই বেছে নিয়েছিলে। আমি তো তোমায় সরল মনে ভালোবেসেছিলাম।

তরুণীর স্বজনরা জানান, গত কয়েকদিন আগে তাদের সম্পর্কের বিষয়টি জানাজানি হয়। মেয়েটি বিয়ের দাবি জানায়। পরে বিষয়টি মীমাংসার জন্য স্থানীয়ভাবে সালিসও বসে। এতে ৫ লাখ টাকায় বিষয়টি মীমাংসার জন্য প্রস্তাব দেওয়া হয় মেয়েটির পরিবারকে। কিন্তু মেয়েটি তাতে রাজি হয়নি। ওই অবস্থায় রোববার আত্মহত্যা করেন পপি।

ঘটনার পর থেকে মোনায়েমের পরিবারের লোকজন পলাতক থাকায় তাদের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

তরুণীর বাবা তহুর উদ্দিন বলেন, আমি আমার মেয়েকে হারিয়েছি। আমার মেয়ের সঙ্গে যে এমন কাজ করল তার কঠিন শাস্তি চাই।

ঈশ্বরগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুল কাদের মিয়া বলেন, প্রেমের সম্পর্কের পর বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় ওই তরুণী আত্মহত্যা করেছে। খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে মমেক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় আত্মহত্যার প্ররোচণার অভিযোগে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এই বিভাগের আরো নিউজ

‘কলঙ্কিত মুখ নিয়ে আর বেঁচে থাকতে চাই না’ চিরকুট লিখে প্রেমিকার আত্মহত্যা
‘কলঙ্কিত মুখ নিয়ে আর বেঁচে থাকতে চাই না’ চিরকুট লিখে প্রেমিকার আত্মহত্যা
‘কলঙ্কিত মুখ নিয়ে আর বেঁচে থাকতে চাই না’ চিরকুট লিখে প্রেমিকার আত্মহত্যা
‘কলঙ্কিত মুখ নিয়ে আর বেঁচে থাকতে চাই না’ চিরকুট লিখে প্রেমিকার আত্মহত্যা
‘কলঙ্কিত মুখ নিয়ে আর বেঁচে থাকতে চাই না’ চিরকুট লিখে প্রেমিকার আত্মহত্যা
আজকের সর্বশেষ সব খবর