রবিবার | ১৪ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১লা বৈশাখ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

কাঠালিয়ায় প্রাথমিক স্কুল মিল্ক কর্মসূচির উদ্বোধন

প্রকাশিত : জুন ১১, ২০২৩




বুলবুল আহমেদ, ঝালকাঠি প্রতিনিধি ॥ শিশুদের পুষ্টি চাহিদা নিশ্চিত করে প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নের মাধ্যমে একটি শিক্ষিত মেধাবী জাতি গঠন এবং এসডিজির লক্ষ্য পূরণের অংশ হিসেবে রবিবার থেকে ঝালকাঠি জেলার কাঠালিয়া উপজেলায় ১টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে স্কুল মিল্ক কর্মসূচি চালু হয়েছে।

প্রাণিসম্পদ দপ্তরের প্রাণিসম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্পের অর্থায়নে সারা দেশে ৫০টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্কুল মিল্ক কর্মসূচি বাস্তবায়িত হচ্ছে। তিন বছর মেয়াদি এই প্রকল্পে কাঠালিয়া উপজেলা সদরের ৪৯ নং মধ্য কৈখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,কচুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও শৌলজালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাচঁ শতাধিক শিক্ষার্থীকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে সপ্তাহে পাঁচ দিন ডেইরি খামারে গাভীর পাস্তুরিত ২০০ মিলিগ্রাম করে তরল দুধ পান করানো হবে। আজ রবিবার কাঠালিয়া উপজেলার মধ্য কৈখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্কুল মিল্ক কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি কাঠালিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এমদাদুল হক মনির ও প্রধান বক্তা প্রাথমিক ও গনশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর একান্ত সচিব আতিকুর রহমান রুবেল শিক্ষার্থীদেরকে তরল দুধ পান করিয়ে এ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন এবং বক্তব্য রাখেন।

শৌলজালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মঞ্জিল মোর্শেদ এর সভাপতিত্বে স্কুল মিল্ক কর্মসূচির উদ্বোধনী আলোচনাসভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা.দেবেন্দ্রনাথ সরকার উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃআমিনুল ইসলাম,শৌলজালিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান বশির,ইউপি সদস্য নাসিরউদ্দিন আকাশ প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, শিক্ষক, অভিভাবক ও আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রাথমিক ও গনশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর একান্ত সচিব আতিকুর রহমান রুবেল বলেন, দুধের পুষ্টিগুণ নিয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টি, শিশুদের দুধ পান করানোর অভ্যাস করানো, শিশুদের পুষ্টিচাহিদা মিটিয়ে একটি শিক্ষিত মেধাবী জাতি গঠন ও প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নের মাধ্যমে এসডিজির লক্ষ্য পূরণ এবং ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্পভুক্ত খামারিদের সাথে সেতুবন্ধন তৈরি করাই এই প্রকল্পের প্রধান উদ্দেশ্য।

আজকের সর্বশেষ সব খবর