বুধবার | ১০ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

গৃহকর্মীকে নির্যাতন, সিলেটে পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালকের স্ত্রী আটক

প্রকাশিত : জুন ২৩, ২০২১




জার্নাল ডেস্ক ॥ বাসায় গৃহকর্মীকে নির্যাতনের অভিযোগে পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক মোহাম্মদ এমরান হোসেনের স্ত্রী ফারহানা চৌধুরীকে আটক করেছে পুলিশ। ফারহানা চৌধুরী পূবালী ব্যাংকের সিনিয়র কর্মকর্তা।

বুধবার (২৩ জুন) বিকেলে আটক করে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের শাহপরান থানায় নিয়ে যাওয়া হয় বলে সাংবাদিকদের জানান শাহপরান (র.) থানার এসি রূপক কুমার শাহা। তিনি বলেন, ‘আমরা তাকে আটক করে আমাদের হেফাজতে নিয়ে যাচ্ছি। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।’

স্থানীয়রা জানান, সিলেট নগরীর শাহজালাল উপশহরের ই-ব্লকে পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক এমরান হোসেনের বাসার বাথরুমে কিশোরী গৃহকর্মী রুনা আক্তারকে তালাবদ্ধ করে নির্যাতন করার অভিযোগ পাওয়া যায়। নির্যাতনের সময় তার শরীরে মরিচের গুড়োও ছিটিয়ে দেয়া হয়।

বুধবার বিকালে বাথরুমে তালাবদ্ধ রুনা আক্তারের চিৎকার ও কান্না শুনে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেন। খবর পেয়ে শাহপরান থানার একদল পুলিশ এমরান হোসেনের বাসায় গিয়ে তালাবদ্ধ বাথরুম থেকে রুনা আক্তারকে উদ্ধার করে। পরে অধিদপ্তরের পরিচালক এমরান হোসেনের স্ত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে শাহপরান থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক মোহাম্মদ এমরান হোসেন বলেন, সকালে জৈন্তাপুরে একটি অভিযানে যাই। গতকাল থেকে মেয়েটি বলছিলো বাড়িতে যাবে। যার মাধ্যমে মেয়েটিকে আনা হয়েছিল তার সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। সে আজকে রাতে বা কাল সকালের মধ্যে আসার কথা। তবে এর ভেতরেই এমন ঘটনার কথা শুনে আমি বাসায় এসেছি।

তবে পরিবেশ কর্মকর্তার স্ত্রী ফারহানা আহমদ চৌধুরী বলেন, গতকাল রাত থেকে সে ভয় পাচ্ছে আর বলছে কেউ নাকি তাকে স্পর্শ করছে। সকালেও একই কথা বলে বাথরুমে ঢুকে কান্না শুরু করে। ওই সময় আমি গিয়ে জিজ্ঞেস করলে মরিচ দেওয়ার কথা বলে। মরিচ দিলে নাকি ওই অদৃশ্য বিষয়টি চলে যাবে। আমি দেইনি। পরে সে নিজেই নিজের শরীরে মরিচ দেয়।

এদিকে সিলেট সিটি করপোরেশনের ২২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সালে আহমদ বলেন, খবর পেয়ে এসে পুলিশের সহযোগিতায় ওই মেয়েকে উদ্ধার করি। স্থানীয়রা আমাকে জানিয়েছেন এর আগেও এ মেয়েকে নির্যাতন করা হয়েছে।

সিলেট এসএমপির শাহপরান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ আনিসুর রহমান বলেন, মেয়েটি এক কথা বলছে আর ওই নারী আরেক কথা বলছে। সেজন্য জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে থানায় আনা হয়েছে। বিস্তারিত পরে জানাতে পারবো। কারণ ঘটনা এখনও আমাদের কাছে পরিষ্কার নয়।

 

আজকের সর্বশেষ সব খবর