বৃহস্পতিবার | ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

গ্রিসে রেমিটেন্সযোদ্ধা নবীগঞ্জের এক যুবকের মৃত্যু লাশের অপেক্ষায় পরিবারের লোকজন

প্রকাশিত : আগস্ট ১০, ২০২২




মোঃ আলাল মিয়া, নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ ইউরোপের দেশ গ্রিসে ঝরে গেলেন নবীগঞ্জের আজির উদ্দিন নামে একজন রেমিট্যান্স যোদ্ধা। এই প্রবাসী দীর্ঘদিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে গত সোমবার গ্রিসের স্থানীয় সময় বিকেল ৪ ঘটিকার দিকে এথেন্সের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। আজির উদ্দিন (২৮),নবীগঞ্জ উপজেলার বাউসা ইউনিয়নের সুজাপুর গ্রামের মোতাহির আলীর পুত্র এলাকাবাসী জানান, জীবিকার তাগিদে প্রায় ৫ বছর পূর্বে প্রবাসে পাড়ি জমান আজির
উদ্দিন।

তুরস্ক হয়ে গ্রিসে প্রবেশ করে প্রথমে এথেন্সের ওমোনীয় এলাকায় একটি বাংলাদেশি মালিকানাধীন সেলুনে চাকুরী করতেন আজির। চলতি বছরের প্রথম দিকে অসুস্থজনিত কারণে বেশ কয়েকদিন হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নেন। এরপর বাসায় ফিরে মানসিক সমস্যায় আক্রান্ত হন। এ অবস্থায় ২০২২ সালের ১৪ মার্চ বাসা থেকে বের হয়ে আর ফিরেনি। এসময় তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও কোথাও পাওয়া যায়নি। এ নিয়ে বিভিন্ন মাধ্যমে সংবাদ প্রচার হয়। এরপর গত ১৭ এপ্রিল খোঁজ মিলে একটি হাসপাতালে। এরপর থেকে সেই হাসপাতালেই চিকিৎসা চলছিল।

সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল সোমবার বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৭ ঘটিকার দিকে তার মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়। এদিকে তার মৃতদেহ দেশে আনার দাবী জানিয়েছেন স্বজনরা। এ প্রসঙ্গে গ্রিসের বাংলাদেশি সাংবাদিক ইউরো বাংলা প্রেসক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক মতিউর রহমান মুন্না বলেন- হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করায় এখানে অনেক আইনি জটিলতা রয়েছে। বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রিসের সার্বিক সহযোগীতায় ও গ্রিসের

বাংলাদেশ দূতাবাসের তত্তাবধানে যথাযত প্রক্রিয়ায় লাশ দেশে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। সব কিছু সম্পন্ন করে লাশ দেশে নিতে আরো ৭-৮ দিন সময় লাগবে। বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রিসের সভাপতি লাশটি দেশে পাঠানোর জন্য ইতিমধ্যে আইনি প্রক্রিয়ায় কার্যক্রম শুরু করেছেন। আইনি প্রক্রিয়া শেষে লাশটি বাংলাদেশ কমিউনিটির নিকট হস্তান্তর করলে এথেন্সে জানাযার নামাজ অনুষ্ঠিত হবে।

পরে লাশটি কার্গো বিমানের মাধ্যমে দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করবে দূতাবাস। এদিকে আজির উদ্দিনের মৃত্যুতে শোকে কাতর তার পরিবারের লোকজন। নানা স্বপ্ন আর আশা নিয়ে মোতাহির আলী তার পুত্র কে বিগত ৫ বছর পূর্বে ইউরোপের দেশে পাঠানোর জন্য বাড়ি থেকে রওনা করে দিয়েিেছলেন। আজ ছেলের মৃত্যুতে তার স্বপ্ন আশা ভরসা সবই মাটির সাথে মিশে যাবে। এমনটা মানতে পারছেন না মোতাহির আলী।

আজকের সর্বশেষ সব খবর