সোমবার | ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

জনগণের পকেট কাটতেই জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি: জি কে গউছ

প্রকাশিত : আগস্ট ৬, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন- আওয়ামীলীগের দুঃশাসনে দেশ আজ দেউলিয়াত্বের দ্বারপ্রান্থে। তাদের লুটপাটের কারনে দেশের রিজার্ভ শূন্য হয়ে গেছে। এই অবস্থায় তারা দেশ পরিচালনায় ব্যর্থ হয়ে লোডশেডিংয়ের মাধ্যমে দেশের মানুষকে অন্ধকারে রেখেছে। এখন জনগণের পকেট কাটতে রাতের আধারে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি করেছে। তাই দেশকে বাচাঁতে, দেশের মানুষকে বাচাঁতে হলে আওয়ামীলীগের পতনের বিকল্প নেই।

তিনি শনিবার বিকালে লাখাই উপজেলার ২নং মুড়াকরি ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের জিরুন্ডা গ্রামে এক উঠান বৈঠকে এসব কথা বলেন। সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বিনাভোটের আওয়ামী সরকারের কবল থেকে মুক্তি ও জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার দাবিতে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জি কে গউছ আরও বলেন- বিশ্ববাজারে এখন তেলের দাম নিম্নমুখী। কিন্তু বিনাভোটের আওয়ামীলীগ সরকার জনগণের পকেট কাটতে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি করেছে। এতে শিল্প, কৃষি, পরিবহন থেকে শুরু করে সর্বক্ষেত্রেই জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব পড়বে। জনজীবনে চরম দুর্দশা নেমে আসবে।

তিনি বলেন- বিএনপি একটি গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল। এই দলটি সবসময় জনগণের পাশে থাকে। জনগণের মৌলিক অধিকার আদায়ের আন্দোলন করতে গিয়ে পুলিশের গুলিতে ভোলায় স্বেচ্ছাসেবকদল নেতা আব্দুর রহিম ও জেলা ছাত্রদলের সভাপতি নুরে আলম নিহম হয়েছে। পুলিশ আমাদের প্রতিপক্ষ না। কিন্তু আওয়ামী লীগ কৌশলে পুলিশকে আমাদের প্রতিপক্ষ বানাতে চায়। আওয়ামীলীগ তাদের অপকর্মের কারণে জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। তাই প্রশাসনকে কাজে লাগিয়ে আওয়ামীলীগ দেশের ক্ষমতা আকড়ে ধরে আছে।
জি কে গউছ বলেন- মামলা-হামলার ভয় দেখিয়ে বিএনপিকে কেউ দমিয়ে রাখতে পারেনি, পারবেও না। বিএনপির নেতাকর্মীরা তাদের জীবনকে উৎসর্গ করেই রাজপথে আছে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত না করে এবং দেশের মানুষের ভোটাধিকার পুনরুদ্ধার না করে আমরা ঘরে ফিরে যাবো না।

মুড়াকরি ইউনিয়ন বিএনপির সহ সভাপতি মোঃ শাহাজাহানের সভাপতিত্বে ও উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম গোলাপের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সদস্য তাজুল ইসলাম চৌধুরী ফরিদ, লাখাই উপজেলা বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি শেখ ফরিদ মিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক শামছুদ্দিন আহমেদ, তাজুল ইসলাম মোল্লাহ, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ, মাহফুজুর রহমান চৌধুরী, মোস্তফা কামাল খসরু, এমদাদুল হক, গোলাম মোস্তফা, মোহাম্মদ আলী, ওহাব মিয়া, অলিউর রহমান, মহিবুর মেম্বার, সোহরাব মিয়া, খেলু মিয়া, নোয়াব আলী, বিল্লাল মিয়া, সুরে রহমান, ফারুক আহমেদ, সুলেমান মিয়া, আবু তাহির, সেলিম মিয়া, উজ্জল মিয়া, সারাজ মিয়া, জুলহাস মিয়া, শামীম মিয়া, মজনু মিয়া, জেলা যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম কাওছার, দপ্তর সম্পাদক মিজানুর রহমান সুমন, উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক মাহমুদুল হাসান, উপজেলা সেচ্ছাসেবকদলের মশিউর রহমান সাচ্চু, মাহবুবুল আলম মালু, সোহাগ চৌধুরী মানিক, মোস্তাক আহমেদ, হাবিবুর রহমান, আরজানুর রহমান, শফিকুর রহমান বাদশা, সোহেল রানা, আহমেদ আজম, ফজলে রাব্বী, সজিব চৌধুরী দুর্জয়, সাকিব আহমেদ, কাজল মিয়া, পারভেজ আহমেদ, সোহেল রানা হারিছ, মিশন মান্না, শাহ আহমেদ, কাদির মিয়া, মোতালিব হোসেন প্রমুখ।

আজকের সর্বশেষ সব খবর