বৃহস্পতিবার | ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

জেলা প্রশাসক ও পৌর মেয়রকে পদত্যাগকারী মেয়র জি কে গউছের অভিনন্দন

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ২৩, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহরের আধুনিক স্টেডিয়ামের পাশ থেকে ময়লা-আবর্জনা অপসারণের কাজ শুরু করায় হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান ও হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আতাউর রহমান সেলিমকে অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানিয়েছেন পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ।

শুক্রবার সংবাদপত্রে প্রেরিত এক বিবৃতিতে টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার এই পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেন- আমি ২০০৪ সালে হবিগঞ্জ পৌরসভার দায়িত্ব গ্রহনের পর লক্ষ করলাম পূর্বের তুলনায় হবিগঞ্জ টু লাখাই, হবিগঞ্জ টু বানিয়াচং, হবিগঞ্জ টু আজমিরীগঞ্জ, হবিগঞ্জ টু নবীগঞ্জ ও হবিগঞ্জ টু বাহুবল উপজেলার সাথে সড়ক যোগাযোগ স্থাপন উন্নত হওয়ায় হবিগঞ্জ শহরে বসবাসকারী নাগরিককের সংখ্যা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পেতে থাকে। ফলে শহরে গৃহস্থালি কাজে ময়লা-আবর্জনাও বাড়তে থাকে। এই বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে হবিগঞ্জ শহরকে একটি পরিচ্ছন্ন নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে তৎকালিন অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রী এম সাইফুর রহমান সাহেবের সহযোগীতায় ইউজিআইআইপি-১ প্রকল্পের মাধ্যমে ডাম্পিং স্টেশন নির্মাণ ও রিসাইক্লিনিং স্থাপন করার উদ্যোগ গ্রহন করেছিলাম। কিন্তু সম্পূর্ণ মিথ্যা ও কাল্পনিক অভিযোগে সাড়ে ১৯ মাস কারাগারে থাকার কারণে আমার পক্ষে এই কাজ করা সম্ভব হয় নাই।

পরবর্তিতে ২০১৪ সালে তৎকালিন জেলা প্রশাসক মনীন্দ্র কিশোর মজুমদার মহোদয়ের সহায়তায় হবিগঞ্জ শহর সংলগ্ন আতুকুড়া নামক স্থানে সরকারী ১নং খতিয়ানের ২২০ শতক জায়গা হবিগঞ্জ পৌরসভার নিজস্ব আয় থেকে প্রায় ২০ লাখ টাকা (রেজিষ্ট্রি সহ) দিয়ে ক্রয় করেছিলাম ডাম্পিং স্টেশন নির্মাণের জন। এরই মধ্যে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়ে আবারও একটি মিথ্যা ও কাল্পনিক অভিযোগে আমার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলায় দীর্ঘ ২ বছরেরও বেশি সময় আমি কারাগারে থাকার কারণে ডাম্পিং স্টেশন নির্মাণ কাজ থেমে যায়।
আমি কারামুক্ত হয়ে আবারও পৌরসভাকে ঢেলে সাজানোর জন্য নতুন উদ্যমে নিরলস প্রচেষ্টা শুরু করি। বাংলাদেশের ৩২০টি পৌরসভার মধ্যে হবিগঞ্জ পৌরসভাসহ ৩১টি পৌরসভা যোগ্যতার ভিত্তিতে সরকারী দলের কোনো নেতার মৌখিক বা লিখিত সহযোগীতা ছাড়াই ৭৫ কোটি টাকা বরাদ্ধ পাওয়ার সক্ষমতা অর্জন করি। এই বরাদ্ধকৃত ইউজিআইআইপি-৩ প্রকল্পের মাধ্যমে ডাম্পিং স্টেশন ও রিসাইক্লিনিং স্থাপন করতে ফান্ডের ব্যবস্থা করেছিলাম।

আমি হবিগঞ্জ পৌরসভায় দৃশ্যমান অনেক কাজ পৌরবাসী, পৌর পরিষদ ও কর্মকর্তা কর্মচারীদের সহায়তায় সম্পন্ন করেছি। কিন্তু আমার দল রাষ্ট্র ক্ষমতায় না থাকার কারণে ডাম্পিং স্টেশন ও রিসাইক্লিনিং স্থাপন করতে না পারার অতৃপ্তি নিয়েই আমার দলের সিদ্ধান্তে আমাকে হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়রের পদ থেকে পদত্যাগ করে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ গ্রহন করতে হয়েছিল।

তিনি বলেন- বর্তমান জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান একজন দক্ষ, সৎ ও কর্মবীর হওয়ায় এবং মেয়র আতাউর রহমান সেলিম সাহেব আন্তরিক হওয়ার কারনে সম্মিলিত প্রচেষ্টায় জালালাবাদ গ্রামের জনৈক নুর মিয়া সাহেবের ব্যক্তিগত জমি প্রতি বছর ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা সাব্যস্ত করে ৫ বছরের জন্য ৭ লাখ টাকা পৌরসভার নিজস্ব তহবিল থেকে পরিশোধ সাপেক্ষে অস্থায়ীভাবে ডাম্পিং স্টেশন নির্মাণ করা হয়েছে। যা শহরবাসীর জন্য আনন্দের সংবাদ। এই আনন্দে আমরাও অংশিদার। আশা করবো বর্তমান কর্মবীর জেলা প্রশাসক মহোদয়ের সহায়তায় বর্তমান মেয়র সাহেব ইউজিআইআইপি-৩ প্রকল্পের বরাদ্ধ থেকেই জায়গা ক্রয়পূর্বক হবিগঞ্জ পৌরসভার ডাম্পিং স্টেশন ও রিসাইক্লিনিং স্থাপনের মধ্য দিয়ে হবিগঞ্জ শহরবাসীর হৃদয়ে স্থান করে নিবেন। পৌরসভার যে কোনো ভালো উদ্যোগকে আমি ব্যক্তিগতভাবে স্বাগত জানাই। পৌর কর্তৃপক্ষ আমার কোনো সহায়তা প্রত্যাশা করলে আমি সর্ব অবস্থায় পাশে থাকবো, ইনশাআল্লাহ।

আজকের সর্বশেষ সব খবর