শনিবার | ১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩১শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

জয়পুরহাটে ট্রেন-বাস দুর্ঘটনা, খোঁজ নেই তিন গেটম্যানের

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ২১, ২০২০




সারাদেশ ডেস্ক : জয়পুরহাট সদরে ট্রেনের ধাক্কায় বাসের ১২ যাত্রী নিহত হওয়ার ঘটনার পর থেকেই খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না ওই রেলগেটে পর্যায়ক্রমে দায়িত্ব পালনকারী তিন গেটম্যান নয়ন, মঞ্জু ও আব্দুর রহমান।

ইতোমধ্যে রেলক্রসিংয়ে দায়িত্বরত গেটম্যান নয়নকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ের প্রকৌশল বিভাগ। এছাড়াও এ ঘটনায় সান্তাহার জিআরপি থানায় দু’টি মামলা দায়ের হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, এর আগে ২০০৬ সালে জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে আমট্র রেলক্রসিংয়ে ট্রেন-বাস দুর্ঘটনায় ৩৫ জন নিহত হয়। ২০০৯ সালে জয়পুরহাট সদর উপজেলার কাশিয়াবাড়ী এলাকার রেলক্রসিংয়ে ট্রেনের ধাক্কায় বালুবাহী ট্রাকের ১৩ জন নিহত হয়। বছরের পর বছর বিভিন্ন রেলক্রসিংয়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটলেও এখন পর্যন্ত রেলওয়ে বিভাগের পক্ষ থেকে চোখে পড়ার মতো কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

জয়পুরহাট রেলওয়ের স্টেশন মাস্টার হাবিবুর রহমান জানান, এ দুর্ঘটনায় ইতোমধ্যেই দায়িত্বরত গেটম্যান নয়নকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। এছাড়াও সান্তাহার জিআরপি থানায় অপমৃত্যুর দু’টি মামলা দায়ের হয়েছে।

পাকশী রেলওয়ের মেকানিক্যাল অপারেটর তাহসিফ চৌধুরী পৃথিবী জানান, বর্তমানে তারা ক্ষতিগ্রস্ত রেললাইন মেরামত করছেন। দুর্ঘটনার পর থেকে দায়িত্ব পালনকারী তিনজন গেটম্যান নয়ন, মঞ্জু ও আব্দুর রহমান লাপাত্তা রয়েছে। এদের মধ্যে দুর্ঘটনার সময় দায়িত্বে অবহেলাকারী গেটম্যান নয়নকে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশ খুঁজছে।

তিনি জানান, সান্তাহার থেকে বিরামপুর পর্যন্ত পাকশী জংশনে মোট ৩৮টি রেলগেট আছে। এর মধ্যে ১৮টি ইঞ্জিনিয়ারিং রেলগেটে গেটম্যান আছে। বাকি ২০টি ট্রাফিক রেলগেটে গেটম্যান নেই।

প্রসঙ্গত, শনিবার (১৯ ডিসেম্বর) সকাল ৭টায় পার্বতীপুর থেকে ছেড়ে আসা রাজশাহীগামী উত্তরা এক্সপ্রেস ট্রেনটি পাঁচবিবি রেলস্টেশন ছেড়ে জয়পুরহাট রেলস্টেশনে আসছিল। এসময় জয়পুরহাট থেকে ছেড়ে আসা হিলিগামী বাঁধন পরিবহন নামে (বগুড়া-জ-১১-০০০৮) যাত্রীবাহী একটি বাস গেট খোলা থাকায় পুরানপৈল রেলক্রসিং অতিক্রম করছিলো।

এ সময় উত্তরা এক্সপ্রেস ট্রেনটির সঙ্গে বাসটির ধাক্কা লাগে। ট্রেনটি বাসটিকে ঠেলে পুরানপৈল রেলক্রসিং থেকে দক্ষিণে প্রায় ৫০০ গজ দূরে গিয়ে থেমে যায়। এতে বাসটি চুরমার হয়ে ঘটনাস্থলেই ১০ জন মারা যায়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরো দুই জনের মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় ট্রেনের দু’টি বগির ছয়টি চাকা লাইনচ্যুত হয়। ট্রেনের ইঞ্জিন ও রেলের স্লিপার ক্ষতিগ্রস্ত হয়। দুর্ঘটনার দীর্ঘ ৭ ঘণ্টা পর ওই দিনই দুপুর আড়াইটার দিকে উত্তরাঞ্চলের সঙ্গে সব ধরনের ট্রেন যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়।

এই বিভাগের আরো নিউজ

শনিবার চট্টগ্রামের যেসব স্থানে বিদ্যুৎ থাকবে না
চৌমুহনীতে পূজামণ্ডপে হামলায় একজন নিহত, ১৪৪ ধারা জারি
আড়াই কোটি টাকা নিয়ে যশোর শিক্ষা বোর্ডের হিসাব সহকারী পলাতক
ঝালকাঠিতে ডাকাতের হাতে গৃহবধু নিহত, আহত স্বামী
আখাউড়ায় কিন্টারগার্ডেন এসোসিয়েশনের সাংগঠনিক সফর অনুষ্ঠিত
আজকের সর্বশেষ সব খবর