বৃহস্পতিবার | ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

টানা কর্মসূচি দিয়ে মাঠ গরম করতে চায় বিএনপি

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ৪, ২০২২




জার্নাল ডেস্ক ॥ টানা কর্মসূচি দিয়ে সারাদেশে জনসমর্থন জানান দেওয়ার চেষ্টা করছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)। দেশের বিভিন্ন এলাকায় দলটির আয়োজিত কর্মসূচিতে হামলার ঘটনাও ঘটছে। একইসাথে দলীয় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলাও দেওয়া হচ্ছে। তারপরেও মাঠ না ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ ও সরকারের কৌশল দেখে কর্মসূচিতে পরিবর্তন এনে মাঠ গরম রাখতে চায় বিএনপি।

তবে এখনই পুলিশ ও ক্ষমতাসীন দলের সাথে বড় কোনো সংঘাতে জড়াবে না বিএনপি। দলের শীর্ষ নেতাদের সাথে কথা বলে এমনটাই জানা গেছে।

উল্লেখ্য, জ্বালানি তেল, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধি, ভোলায় স্বেচ্ছাসেবক ও ছাত্রদলের দুই নেতাকে হত্যার প্রতিবাদে গত ২২ আগস্ট থেকে সারাদেশে টানা বিক্ষোভ মিছিল-সমাবেশ করছে বিএনপি। এই কর্মসূচি চলবে ১০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

সূত্র জানায়, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের এখনো প্রায় দেড় বছর বাকি থাকলেও এখন থেকেই মাঠে থাকবে বিএনপি। তবে হরতাল-অবরোধের মতো কর্মসূচিতে শিগগিরই যাবে না দলটি। তারা মিছিল-সমাবেশের মতো কর্মসূচিতে সামনে এগোবে। সরকারবিরোধী সব দলের সাথে আলোচনা করেই এবার বড় কর্মসূচি দেওয়া হবে। বিএনপির নীতিনির্ধারকরা মনে করছেন, বিএনপির এ ধরনের অহিংস কর্মসূচি আটকাতে পুলিশ বা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে বেশি ব্যবহার করা হলে দেশে-বিদেশে নেতিবাচক বার্তা যাবে। এটা বিএনপির জন্য লাভজনক হবে। ইতোমধ্যে ভোলা ও নারায়ণগঞ্জে তিনজন মারা গেছেন। বিএনপির অভিযোগ, তারা পুলিশের গুলিতে মারা গেছেন। সেজন্য তারা ভোলায় পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। নারায়ণগঞ্জেও মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এমন ঘটনা যেখানেই ঘটবে সেখানেই মামলা করা হবে দলের পক্ষ থেকে।

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলা বিএনপির নেতা মো. শফিকুল ইসলাম ছালাম বলেন, ‘ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান প্রত্যেকটি কর্মসূচি শেষে দায়িত্বশীল নেতাদের সাথে কথা বলছেন। তিনি কর্মসূচি সফল করায় সবাইকে ধন্যবাদ জানাচ্ছেন। দিকনির্দেশনা দিচ্ছেন। সবাইকে ধৈর্য ধরে সহনশীলতার সাথে মাঠে থাকার আহ্বান জানাচ্ছেন। নিজেদের মধ্যে ভেদাভেদ ভুলে জনগণকে মাঠে নিয়ে আসার অনুরোধ করছেন। আমরা এখন উপজেলা থেকে ইউনিয়ন পর্যায়ে ছড়িয়ে পড়ছি। গ্রামেও আমাদের কর্মসূচি চলছে। এতে অনেক সাধারণ নারী-পুরুষ শামিল হয়ে প্রতিবাদ করছেন।’

বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স বলেন, ‘বিএনপিতে তো গত ১৪ বছর ধরেই হামলার-মামলার মধ্যে যাচ্ছে। এগুলো নতুন নয়। নির্বাচন সামনে রেখে তা আরও বাড়বে। তবে আমাদের প্রস্তুতিও আছে। ভয় দেখিয়ে মাঠ থেকে সরানো যাবে না।

আজকের সর্বশেষ সব খবর