বৃহস্পতিবার | ২৬শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

ঢাকার উত্তরা পূর্ব থানার হাজতে রিমান্ডের আসামির ঝুলন্ত লাশ

প্রকাশিত : আগস্ট ৩, ২০২১




জার্নাল ডেস্ক ॥ রাজধানীর উত্তরা-পূর্ব থানায় রিমান্ডে থাকা এক আসামির ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। থানা হাজতখানার ভেতর থেকে সোমবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। উদ্ধারের পর মরদেহ টঙ্গীর আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে পাঠায় উত্তরা-পূর্ব থানা পুলিশ।

রাজধানীর উত্তরা-পূর্ব থানা পুলিশের হেফাজতে থাকা এক আসামির মৃত্যু হয়েছে। সোমবার গভীর রাতে ওই থানার হাজতে থাকা মোহাম্মদ লিটন (৪৫) হাজতখানার বাথরুমে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মৃতের নাম মো. লিটন। ৩১ জুলাই ৫ হাজার ৮০০ পিস ইয়াবাসহ উত্তরার বিডিআর বাজার এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। সে দিনই র‍্যাব বাদী হয়ে লিটনের বিরুদ্ধে উত্তরা-পূর্ব থানায় মাদক আইনে মামলা করে।

সেই মামলায় ১ আগস্ট তাকে আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুই দিনের হেফাজতে পায় পুলিশ। সোমবার রিমান্ডের প্রথম দিনে লিটনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন তদন্ত কর্মকর্তা পূর্ব থানার উপপরিদর্শক আমিনুল ইসলাম। রাতে হাজতখানা থেকে লিটনের গলায় ফাঁস দেয়া মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

পুলিশের দাবি, হাজতের ভেতর গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে ওই আসামি।

পুলিশের বিমানবন্দর জোনের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার তাপস কুমার দাস বলেন, তারা থানা হাজতের সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ করেছেন। তাতে দেখা যায়, সোমবার রাত আনুমানিক দুইটার দিকে ওই আসামি হাজতে থাকা কম্বল ছিঁড়ে ফেলেন। সেই টুকরা নিয়ে হাজতের ভেতরের টয়লেটের ভেন্টিলেটরের সঙ্গে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। রাত সাড়ে ৩টার দিকে থানার পুলিশ বিষয়টি টের পেয়ে তাকে দ্রুত উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়। চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, হাসপাতালে ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে ওই আসামির মরদেহ সুরতহাল ও ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। রাতে হাজতখানায় দায়িত্বরত পুলিশের কোনো সদস্যের গাফিলতি ছিল কি-না তা তদন্তের তিন সদস্যের একটি কমিটিও করা হয়েছে।

পুলিশের আরেকজন কর্মকর্তা বলেন, লিটন এক সময়ে পরিবহন শ্রমিক ছিলেন। এরপর মাদকের কারবারে জড়িয়ে যান। র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তারের আগে আরও দুইবার মাদকসহ গ্রেপ্তার হয়েছিলেন। নিয়ম অনুযায়ী রিমান্ডের আসামিদের রাতে একা একটি হাজতে রাখা হয়, একা থাকার সুযোগে তিনি এই কাজ করেছেন। আমরা তার পরিবারকে খবর দিয়েছি, সেই সঙ্গে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ টঙ্গী সরকারি হাসপাতালে পাঠিয়েছি।

রিমান্ডে থাকা আসামির মৃত্যুতে এরইমধ্যে একটি অপমৃত্যু মামলা করেছে উত্তরা-পূর্ব থানা। ঘটনার তথ্য-প্রমাণ সহকারে আদালতে প্রতিবেদন দিতে হবে।

লিটনের বয়স ৪৫ বছর। গ্রামের বাড়ি বগুড়ার কাহালু উপজেলায়। লিটনের নামে আরও তিনটি মাদকের মামলা রয়েছে বলে জানায় পুলিশ। লিটনের মৃত্যুর ঘটনায় উত্তরা-পূর্ব থানা তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে।

আজকের সর্বশেষ সব খবর