সোমবার | ৬ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

ঢাকায় যেভাবে তৈরি হতো লাখ লাখ জাল টাকা-রুপি

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ১৭, ২০২০




অনলাইন ডেস্ক : রাজধানীর পশ্চিম জুরাইনের শহিদ শাহাদত হোসেন রোড এলাকা থেকে বিপুল দেশি-বিদেশি জাল টাকাসহ নয়জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি)। বৃহস্পতিবার তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

ডিবি পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম বলেন, গ্রেপ্তারকৃতরা নতুন বর্ষকে সামনে রেখে এ জাল টাকা ও রুপি তৈরি করেছে।

মাহবুব আলম বলেন, ‘আমাদের কাছে গোপন সংবাদ ছিল একটি চক্র নতুন বছরকে কেন্দ্র করে জাল টাকা তৈরি করছে। সেই তথ্যের ভিত্তিতে আজ আমরা অভিযান পরিচালনা করি পশ্চিম জুরাইনের একটি বাসায়। সেখানে অভিযান চালিয়ে মোট নয়জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতরা উৎপাদনকারী ও বিপণনকারী চক্রের সদস্য। এই গ্রুপের আর কেউ জড়িত আছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

ডিবির যুগ্ম কমিশনার আরো বলেন, ‘অভিযানের সময় তাদের কাছ থেকে ৩২ লাখ জাল বাংলাদেশি টাকা, ২০ লাখ জাল ভারতীয় রুপি ও আসল চার লাখ পাঁচ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়। এ ছাড়া মোবাইল ফোনসেট, জাল টাকা ও রুপি তৈরির বিশেষ ধরনের কাগজ, নিরাপত্তা সুতা, বিভিন্ন ধরনের রং, কেমিক্যাল, ল্যাপটপ, প্রিন্টার, লেমিনেশন মেশিন, কাটার, বিভিন্ন রকমের ডাইসসহ জাল টাকা তৈরির নানা উপকরণ জব্দ করা হয়েছে। যা দিয়ে আরো কয়েক কোটি জাল টাকা ও রুপি তৈরি করা সম্ভব। উদ্ধার করা জাল টাকার মধ্যে ৫০০ টাকা ও এক হাজার টাকা মূল্যমানের নোট এবং জাল রুপিগুলোর মধ্যে ৫০০ রুপির জাল নোট রয়েছে।’

মাহবুব আলম বলেন, ‘ভারতীয় রুপি ও বাংলাদেশি টাকা একই মেশিনে তৈরি করত এ জালিয়াত চক্র। তবে ভারতীয় রুপির ক্ষেত্রে আলাদা সুতা ব্যবহার করা হতো। এ ছাড়া কাগজও আলাদা ব্যবহার করা হতো। এসব জিনিস ভারত থেকেই আনা হতো বলে গ্রেপ্তারকৃতরা আমাদের জানিয়েছে।’

ডিবির যুগ্ম কমিশনার বলেন, চক্রের বিভিন্ন সদস্য বাগেরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, চট্টগ্রাম, ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরের বিভিন্ন জায়গায় লুকিয়ে থেকে থেকে জাল টাকা তৈরি করত। গ্রেপ্তারকৃতদের প্রায় সবার বিরুদ্ধে ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় ডজন খানেক মামলা রয়েছে। জামিনে থেকেও বেশি টাকা উপার্জনের লোভে তারা বারবার জাল টাকা ও রুপি উৎপাদন করছিল। গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে জাকির, তার স্ত্রী ও অপর সহযোগীসহ ২০১৯ সালে ডেমরা থানাধীন একটি অত্যাধুনিক বাসায় জাল রুপি উৎপাদনকালে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সামনে গ্রেপ্তার হয়।’

মাহবুব আলম আরো বলেন, ‘গ্রেপ্তারকৃত জাকির একজন কুখ্যাত ফিনিশার, হাতুড়ে ইঞ্জিনিয়ার এবং জাল টাকা ও রুপি সম্পর্কে সম্যক জ্ঞানের অধিকারী। ওবায়দুল ও জসিম এই জাল টাকা তৈরির কারখানায় বিশেষ কাগজ, নিরাপত্তা সুতা তৈরি ও অন্য কাজ করত। বাদল ঢাকা, সাভার ও মানিকগঞ্জের পাইকারি ডিলার। শিহাব রাজধানীর পাইকারি ডিলার। সাগর নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরের ডিলার। বরিশালসহ দক্ষিণাঞ্চলে জাল নোট সরবরাহকারীদের মূল হোতা জামাল। এদের আছে এক শক্ত নেটওয়ার্ক, যাদের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন জায়গার খোলা বাজার, বিপণিবিতান, যানবাহনের ড্রাইভার ও হেলপারদের বিভিন্ন কৌশলে ধোকা দিয়ে জাল টাকা বিক্রি করে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে।’

এই বিভাগের আরো নিউজ

ঢাকায় যেভাবে তৈরি হতো লাখ লাখ জাল টাকা-রুপি
ঢাকায় যেভাবে তৈরি হতো লাখ লাখ জাল টাকা-রুপি
ঢাকায় যেভাবে তৈরি হতো লাখ লাখ জাল টাকা-রুপি
ঢাকায় যেভাবে তৈরি হতো লাখ লাখ জাল টাকা-রুপি
ঢাকায় যেভাবে তৈরি হতো লাখ লাখ জাল টাকা-রুপি
আজকের সর্বশেষ সব খবর