সোমবার | ৬ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

তীব্র গরমে অতিষ্ট হবিগঞ্জবাসী, শীতল পরশ পেতে নদীতে শিশুরা

প্রকাশিত : মে ২৪, ২০২১




সিরাজুল ইসলাম জীবন : গরমের তীব্রতায় অসহনীয় হয়ে পড়েছে জেলাবাসীর জনজীবন। একটু শীতল পরশ পেতে নদী অথবা পুকুরের দূরন্তপনায় মেতেছে শিশুরা। রোদ আর ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে হবিঞ্জের শ্রমিক থেকে শুরু করে সকল শ্রেণীর মানুষ।

সকাল ৭ টার পর থেকে তাপমাত্রা বাড়তে শুরু করে। সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টা পর্যন্ত তাপমাত্রার বারুদ উঠতে থাকে। বেশ কিছুদিনযাবদ বৃষ্টিপাত না হওয়ায় গরমের মাত্রাটা বেড়েছে।

তীব্র গরমে সব চেয়ে বেশি দুর্ভোগে পড়েছেন খেটে খাওয়া নিম্ন আয়ের মানুষগুলো। প্রকৃতির এমন আচরণে প্রাণ ওষ্ঠাগত তাদের। রোদের তেজে প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছেন না অনেকেই। কাজের চাপে বাড়ি থেকে বের হয়ে একটু স্বস্তি পেতে গাছের ছায়াতলে আশ্রয় নেন অনেকেই।

হবিগঞ্জ শহরে আসা…বানিয়াচং উপজেলার দক্ষিণ সাঙ্গর গ্রামের জাকির হোসেন নামে এক শ্রমিক বলেন, “ভাই কয়কদিন ধরে খুব গরম পরচে। আগে শহরেই বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতাম। এখন গ্রামে থাকি। প্রতিদিন গ্রাম থেকে আসি কাজের জন্য। কিন্তু এত গরমে- আসতে মন চায় না। কিন্তু কি করব? ছেলে/মেয়েদের খাবার জোগাতে প্রতিদিন আসতে হয় এই শহরে। অনেক সময় গা ঘামে জাম ভিজে! আবার এমনিতে শুকিয়ে যায়!। গরমকে শয্য করে, মাথার ঘাম-পায়ে ফেলে সংসার চালাতে হয়। সংসারের চিন্তা মাথায় আসলে গরম আর গায়ে লাগে না!। এমনিতে শয্য হয়ে যায়।

পৌর এলাকার রিস্কা চালক বাচ্চু মিয়া বলেন, কয়েক দিন যাবদ গাড়ি চালাতে খুব কষ্ট হচ্ছে। সকালে একটু গরম কম লাগলেও দুপুরের পর গরম বেড়ে যায়। বাইরে বের হওয়ায় যাচ্চে না। তাই রোজি-রোজকার নাই। খুব কষ্টে দিন কাটাচ্ছি।

একদিকে অতিষ্ট গরমে অন্য দিকে লোডশেডিং…..বিদ্যুতের ঘন ঘন লোডশেডিং সীমাহীন আকার ধারণ করেছে। একদিকে তীব্র তাপদাহ অন্যদিকে লোডশেডিং এর ফলে সাধারণ মানুষের মাঝে নাভিশ্বাস উঠেছে।

বৃষ্টির আশায় ব্যাঙা-ব্যাঙির বিয়ে!

আর এদিকে বৃষ্টির আশায় ব্যাঙের বিয়ে দিলেন খোয়াই নদী পাড়ের বাসিন্দা কয়েকজন শিশু! অবাক লাগলেও এমন ঘটনা অতিথেও ঘটেছে বিভিন্ন গ্রাম-গঞ্জে। বৃষ্টির আশায় ব্যাঙা-ব্যাঙির বিয়ে!।

প্রচন্ড গরমে স্বস্তি পেতে খোয়াই নদীর পানিতে শিশু-কিশোরীদের লাফালাফি। ছবি: হবিগঞ্জ জার্নাল

গরমে সবচেয়ে কষ্টে রয়েছে খেটে খাওয়া মানুষগুলো। এছাড়া শিশু ও বৃদ্ধদের নিয়ে রিতীমতো বিপাকে পড়েছে পরিবারের লোকজন। তীব্র তাপদাহ থেকে বাঁচতে লেবুর শরবত ও খাবার স্যালাইন কেনার হিড়িক পড়েছে। ইলেকট্রনিক দোকান গুলোতে বিক্রি বেড়েছে সিলিং ফ্যান ও ঝালি ফ্যানের। আর ফুটফাতে দেখা গেছে হাতপাখাও বিক্রি হচ্ছে বেশ।

পানিতে দৌড় শিশু-কিশোরীদের। ছবি: হবিগঞ্জ জার্নাল


কিছুটা স্বস্তি পেতে গাছের ছায়াতলে আশ্রয় নেন অনেকেই। ছবি: হবিগঞ্জ জার্নাল

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মৌসুমি এই পরিস্থিতির সঙ্গে যুক্ত হয়েছে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সৃষ্ট বাড়তি উষ্ণতা ও দীর্ঘমেয়াদি বৃষ্টিশূন্যতা।

সোমবার এ মৌসুমের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল হবিগঞ্জে। ৩৭ দশমিক ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা। গত কয়েক দিন ঢাকাসহ দেশের অন্য অঞ্চলে একইভাবে তুলনামূলক বাড়তি গরম পড়ছে। তাপপ্রবাহের এই পরিস্থিতি আরও কয়েক দিন চলতে পারে।

কাজের চাপে বাড়ি থেকে বের হয়ে একটু স্বস্তি পেতে গাছের ছায়াতলে আশ্রয় নেন অনেকেই। ছবি: হবিগঞ্জ জার্নাল

এই গরমে রোগমুক্ত থাকতে কি করনীয়?….হবিগঞ্জ জেলা ডেপুটিসিভিল সার্জন ডা: মো: মুখলিছুর রহমান প্রশ্নের উত্তরে বলেন, গরমের এ তাপদাহতে বাইরের খাবার বর্জন করে ঘরে নিরাপদে থেকে বেশি বেশি ফলমূল ও ঘন ঘন পানি পান করতে হবে। ঠাণ্ডা থাকুন আর শরীরকে পানিশূন্য হতে দেবেন না। তাই প্রচুর পরিমাণে ওরালস্যালাইন, পানি ও পানিজাতীয় তরল খাবার, ডাবের পানি ইত্যাদি পান করতে হবে। এতে শরীরে পানি ঘাটতি হওয়ার সম্ভাবনা কমে যাবে। প্রচন্ড রোদ এড়িয়ে চলতে হবে। যথাসম্ভব ছায়া-শীতল স্থানে থাকতে হবে। এছাড়াও বাইরের ভাজাপোড়া বা তেলযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেন ডা. মুখলিছুর রমহান। তিনি বলেন, জ্বর বা কাশি তিন থেকে পাঁচ দিন পর্যন্ত থাকতে পারে। তবে জ্বর যদি সাত দিনের বেশি স্থায়ী হয় তাহলে আমাদের ফ্লু কর্নারে যোগাযোগ করে করোনা টেস্টের পরামর্শ দেন জেলা ডেপুটি সিভিল সার্জন।

এই বিভাগের আরো নিউজ

তীব্র গরমে অতিষ্ট হবিগঞ্জবাসী, শীতল পরশ পেতে নদীতে শিশুরা
তীব্র গরমে অতিষ্ট হবিগঞ্জবাসী, শীতল পরশ পেতে নদীতে শিশুরা
তীব্র গরমে অতিষ্ট হবিগঞ্জবাসী, শীতল পরশ পেতে নদীতে শিশুরা
তীব্র গরমে অতিষ্ট হবিগঞ্জবাসী, শীতল পরশ পেতে নদীতে শিশুরা
তীব্র গরমে অতিষ্ট হবিগঞ্জবাসী, শীতল পরশ পেতে নদীতে শিশুরা
আজকের সর্বশেষ সব খবর