রবিবার | ২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

তেলের দাম ২০০ ডলারের বেশি হওয়ার শঙ্কা

প্রকাশিত : মার্চ ৮, ২০২২




আন্তর্জাতিক ডেস্ক ॥ ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধের ফলে ২০০৮ সালের পর সর্বোচ্চ অবস্থানে রয়েছে বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দর। আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের স্টক লেনদেনকারীরা মনে করেছেন, চলতি মার্চের শেষেই তা ব্যারেলপ্রতি ২০০ ডলার ছাড়িয়ে যাবে। সোমবার (৭ মার্চ) অপরিশোধিত জ্বালানির জন্য হাঁকা দরাদরিতে নাটকীয় মূল্যবৃদ্ধি ঘটেছে।

বিশ্বের অন্যতম বড় রপ্তানিকারক রাশিয়া থেকে তেল সরবরাহ বন্ধের জোর গুঞ্জন থাকায় এমনটা হয়েছে। আগাম এই দরাদরিকে বলা হয় ‘বাই কল অপশন’। এদিন প্রায় ১২০০ সরবরাহক ঠিকাদার ব্রেন্ট ক্রুড ফিউচার্স ২০০ ডলারে কেনার মূল্য হেঁকেছেন।

ইউরোপের জ্বালানি তেল বাজারের অন্যতম সূচক আইস ফিউচার্স ইউরোপের তথ্যসূত্রে জানা যায়। ক্রেতাদের এই ২০০ ডলারে ক্রয় অপশনের মেয়াদ ২৮ মার্চেই উত্তীর্ণ হবে, তারপর চূড়ান্ত দর নির্ধারিত হবে। এর মধ্যেই সেগুলো কিনে নেওয়ার দর ১৫২ শতাংশ বেড়েছে।

আইসের তথ্যমতে, আগামী জুনের জন্য প্রতিব্যারেল ১৫০ ডলারে ব্রেন্ট ক্রুড ক্রয়চুক্তির ‘বাই কল অপশন’ গত শুক্রবারই দ্বিগুণ বেড়েছে। একইদিন, ১৮০ ডলার তেলের কল অপশনের পরিমাণ বেড়েছে ১১০ শতাংশ। এই প্রেক্ষিতে সোমবার মে মাসের জন্য বাই কল অপশন নাটকীয় হারে বাড়ে।

লেনদেনকারীরা এদিন রাশিয়া থেকে সরবরাহ বন্ধের পাশাপাশি, লিবিয়া থেকে সরবরাহ ব্যাহত এবং ইরানের সাথে পশ্চিমাদের পরমাণু চুক্তির আলোচনায় দেরী হওয়ার আশঙ্কায় এই আগাম মূল্য হাঁকার প্রতিযোগিতায় যোগ দেন।

এদিকে, গেল সপ্তাহেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী বিনিয়োগ ব্যাংক জেপি মরগ্যান অ্যান্ড চেজ পূর্বাভাস দেয়, রাশিয়া থেকে সরবরাহ বিচ্ছিন্নতা চলমান থাকলে ব্রেন্ট ক্রুড প্রতিব্যারেল ১৮৫ ডলার নিয়ে চলতি বছর শেষ করবে।

অস্ট্রেলিয়া অ্যান্ড নিউজিল্যান্ড ব্যাংকিং গ্রুপ লিমিটেডের অনুমান, পশ্চিমাদের নতুনতম নিষেধাজ্ঞার কারণে রাশিয়া থেকে ট্যাংকার জাহাজ ও পাইপলাইনে করে দৈনিক অন্তত ৫০ লাখ ব্যারেল তেল সরবরাহ প্রভাবিত হবে।

যুক্তরাষ্ট্র ও সৌদি আরবের পর বিশ্বের তৃতীয় বৃহৎ জীবাশ্ম তেল উত্তোলক রাশিয়া। আন্তর্জাতিক জ্বালানি সংস্থার তথ্যানুযায়ী, ওপেক প্লাস সদস্য দেশটি গেল বছরের ডিসেম্বরে দৈনিক ৭৮ লাখ ব্যারেল অপরিশোধিত তেল (ক্রুড) এবং তেলজাত পণ্য রপ্তানি করেছে। এসময় ডিজেল, ফুয়েল অয়েল, ভ্যাকুয়াম গ্যাসঅয়েল এবং পেট্রোকেমিক্যাল ফিডস্টকের মতো পণ্য ইউরোপ, এশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রে রপ্তানি করে দেশটি।

আজকের সর্বশেষ সব খবর