বৃহস্পতিবার | ৯ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

দুর্নীতির মাধ্যমে তিনগুণ সরকারি ভাতা নিচ্ছেন পিপি মাসুম মোল্লা!

প্রকাশিত : নভেম্বর ২২, ২০২১




স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের স্পেশাল পিপি আবুল হাশেম মোল্লা মাসুম দুর্নীতি ও জালিয়াতির মাধ্যমে সরকারি কোষাগার থেকে প্রাপ্য ভাতার তিনগুণ টাকা উত্তোলন করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সম্প্রতি আদালতের একজন আইনজীবী হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও দুর্নীতি দমক কমিশনসহ বিভিন্ন দপ্তরে এ অভিযোগ দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী, আইনমন্ত্রী ও আইন সচিব বরাবর অভিযোগের অনুলিপি পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে শিগগির তদন্ত শুরু করবে বলে জানিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালের ১লা জানুয়ারি হবিগঞ্জ জেলায় দু’টি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল গঠিত হয় এবং দুইজন বিজ্ঞ বিচারক নিয়োগপ্রাপ্ত হন। ফলে হবিগঞ্জ জেলায় তিনটি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল পরিচালিত হচ্ছে।

উক্ত নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যূনালগুলোতে এডভোকেট আবুল হাসেম মোল্লা মাসুম স্পেশাল পিপি হিসাবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তিনি একজন পিপি, তার কর্মদিবসও একটি। সরকারের আইন মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী তিনি এক কর্মদিবসে একটি মামলার সম্মানী ভাতার বিল দাখিল করে একদিনের সম্মানী ভাতা উত্তোলন করতে পারেন।

কিন্তু তিনি তা না করে অন্যায়, অবৈধ, প্রতারণা, জালিয়াতি ও দুর্নীতির মাধ্যমে একই কর্মদিবসে তিনটি আদালতে তিনটি মামলার নম্বর দেখিয়ে তিনগুণ সম্মানী ভাতার বিল দাখিল করে প্রাপ্য সম্মানী ভাতার বিলের বিপরীতে তিনগুণ টাকা সরকারি কোষাগার থেকে উত্তোলন করে আসছেন। এভাবে এডভোকেট আবুল হাসেম মোল্লা মাসুম দীর্ঘদিন যাবত দুর্নীতির মাধ্যমে সরকারের লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাত করেছেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

একইভাবে গত জুন মাসে অন্যায় অবৈধভাবে পুনরায় তাহার প্রাপ্য সম্মানী বিলের টাকার তিনগুণ বিল দাখিল করিলে তৎক্ষনাৎ জেএম শাখা, হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নজরে আসলে তার তিনগুণ দাখিলকৃত বিলের টাকা প্রদান না করে আটক করা হয়। তখন তিনি জেএম শাখার কর্মকর্তাদের সঙ্গে উচ্চবাচ্য করে হুমকি দেন যেÑ কি করে তার বিল আটকে দেয়া হল তা তিনি দেখে নিবেন।

অভিযোগকারী আইনজীবী নিজেও একজন এপিপি। তিনিসহ অন্যান্য এপিপিগণ প্রতিদিন একাধিক আদালতে একাধিক মামলা পরিচালনা করলেও আইন অনুযায়ী এক কর্র্মদিবসে এক আদালতে এক মামলার নম্বর দেখিয়ে সম্মানী ভাতা উত্তোলন করেন। কিন্তু স্পেশাল পিপি মাসুম মোল্লা দীর্ঘদিন ধরে দুর্নীতির মাধ্যমে তিনগুণ ভাতা নিচ্ছেন। এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন জানিয়েছেন তিনি।

এ বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন হবিগঞ্জের উপ পরিচালক মোহাম্মদ কামরুজ্জামান বলেন, দুদক কার্যালয়ে সম্প্রতি দায়ের হওয়া অভিযোগগুলো এখনও তাঁর হাতে পৌঁছেনি। আগামী সভায় এ অভিযোগটি তাঁর হাতে আসবে এবং তদন্তপূর্বক এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

অভিযুক্ত স্পেশাল পিপি মাসুম মোল্লার সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, অভিযোগটি মিথ্যা। আমি একটি আদালতের ভাতা উত্তোলন করি। তবে সাবেক জেলা প্রশাসকের আমলে একবার দুইটি মামলার বিল দাখিল করা হয়েছিল কিন্তু জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে সেটি দেয়া হয়নি।

এই বিভাগের আরো নিউজ

দুর্নীতির মাধ্যমে তিনগুণ সরকারি ভাতা নিচ্ছেন পিপি মাসুম মোল্লা!
দুর্নীতির মাধ্যমে তিনগুণ সরকারি ভাতা নিচ্ছেন পিপি মাসুম মোল্লা!
দুর্নীতির মাধ্যমে তিনগুণ সরকারি ভাতা নিচ্ছেন পিপি মাসুম মোল্লা!
দুর্নীতির মাধ্যমে তিনগুণ সরকারি ভাতা নিচ্ছেন পিপি মাসুম মোল্লা!
দুর্নীতির মাধ্যমে তিনগুণ সরকারি ভাতা নিচ্ছেন পিপি মাসুম মোল্লা!
আজকের সর্বশেষ সব খবর