মঙ্গলবার | ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

দুর্নীতি, লুটপাটের কারণে বরাদ্দ জনগণের কাছে পৌঁছায় না: রুমিন ফারহানা

প্রকাশিত : জুন ১৫, ২০২১




জার্নাল ডেস্ক ॥ বিএনপির সংরক্ষিত আসনের নংসদ সদস্য রুমিন ফারহানা বলেছেন, বাজেটে যেটুকু বরাদ্দ হয় সর্বগ্রাসী দুর্নীতি, লুটপাটের কারণে সেটুকুর উপকারও জনগণের কাছে পৌঁছায় না। লুটপাট বন্ধ আর সরকারের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে পারলে এই বাজেট বরাদ্দেও জনগণ অনেক কিছুই পেতে পারত।

মঙ্গলবার (১৫ জুন) জাতীয় সংসদে ২০২১-২২ অর্থবছরে প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে রুমিন ফারহানা এসব কথা বলেন। রুমিন বলেন, সরকার যদি হয় ‘বাই দ্য লুটারস, ফর দ্য লুটারস, অব দ্য লুটারস’ তাহলে বাজেটও হবে লুটেরা রক্ষারই বাজেট। তাতে জনগণের অংশীদারত্ব থাকবে না।

রুমিন ফারহানা বলেন, সরকারের দিক থেকে বাজেট একেবারে ঠিক আছে। ক্ষমতায় থাকতে যাকে প্রয়োজন, তার জন্যই তো বাজেট হবে। ক্ষমতায় থাকতে জনগণের ম্যান্ডেট লাগলে জনগণকে খুশি করতে হবে, আর ক্ষমতায় থাকতে যদি প্রয়োজন হয় কিছু ব্যবসায়ী আর আমলা, তাহলে তাদের জন্যই বাজেট হবে; হয়েছেও সেটা। আপনার হাতে যে পরিমাণ সম্পদ আছে, সেটা আপনি ‌ব্যয় করবেন আপনার প্রায়োরিটি অনুযায়ী, আপনার যাদের প্রয়োজন তাদের পেছনে।

রুমিন ফারহানা বলেন, করোনার সময়ে স্বাস্থ্য খাতের দুর্নীতি যখন মানুষের সামনে বেশি করে এল তখন স্বাস্থ্যমন্ত্রী স্বাস্থ্য খাতে দুর্নীতির অভিযোগ তোলা একটা ফ্যাশন বলে সমালোচকদের বিদ্রূপ করছেন। তবে তিনি এটাও বলেছেন, তার মন্ত্রণালয় সাধু, অন্যরা টাকা পাচার করছে। মনে পড়ল, অর্থমন্ত্রী আবার টাকা পাচারের কথা জানেনই না।

বিএনপির এই সাংসদ বলেন, চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে সার্বিকভাবে এডিপির ৪৯ শতাংশ বাস্তবায়িত হয়েছে। স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের এই হার মাত্র ২৫ শতাংশ। এই মহামারির মধ্যে অপর্যাপ্ত বরাদ্দের অর্ধেকও খরচ করতে পারেনি তারা। এদিকে ১০ হাজার মানুষের জন্য ৫ জন চিকিৎসক আর ৩ জন নার্স নিয়ে চলছে স্বাস্থ্য খাত।

রুমিন বলেন, বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী এখনো ভারত থেকে ৩ কোটি টিকা পাওয়ার গল্প করছেন। অথচ ভারত স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছে, এই বছর শেষ হওয়ার আগে তারা কোনো রকম টিকা রপ্তানি করতে পারবে না। যদিও টিকার দাম আগেই চুকানো হয়ে গেছে। আর এক অতিরিক্ত সচিব সিনোফার্ম টিকার দামের তথ্য জানিয়ে দেওয়ার পর সেই টিকাপ্রাপ্তিও অনিশ্চিত হয়ে গেছে। অর্থমন্ত্রী স্বপ্ন দেখছেন মাসে ২৫ লাখ টিকা দেওয়ার। যেখানে টিকার কোনো উৎসই এখন পর্যন্ত ঠিক হয়নি। আর এই হিসাবেও ১৭ কোটি মানুষের ৮০ শতাংশ অর্থাৎ ১৩ কোটি মানুষকে টিকার আওতায় আনতে সময় লাগবে ৮ বছরের বেশি। ওদিকে ভারতের পরিকল্পনা হচ্ছে দিনে ১ কোটি টিকা দেওয়া।

সামাজিক সুরক্ষা খাতে বরাদ্দ প্রসঙ্গে বিএনপির এই সাংসদ বলেন, আগামী অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে কাগজে-কলমে ১ লাখ ৭ হাজার কোটি টাকার বেশি বাজেট বরাদ্দ দেখানো হচ্ছে এই খাতে। অথচ এতেই আছে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অবসর ভাতা-গ্র্যাচুইটি, মুক্তিযোদ্ধা ভাতা, সঞ্চয়পত্রের সুদ, উপবৃত্তির টাকা, এমনকি প্রণোদনার জন্য দেওয়া ঋণের সুদে ভর্তুকি সমন্বয়ের অর্থ। এসব ক্ষেত্রেও কিছু দরিদ্র প্রান্তিক মানুষ সাহায্য পেয়ে থাকতে পারে। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হচ্ছে, গরিব মানুষকে টার্গেট করে কত টাকা বরাদ্দ হচ্ছে এই খাতে?

রুমিন ফারহানা বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে দেশীয় শিল্প এবং ব্যবসার ক্ষেত্রে বেশ কিছু নীতি-সহায়তা লক্ষ্য করে কেউ কেউ বাজেটকে বিনিয়োগবান্ধব বলছেন। তবে মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বাড়াতে না পারলে কোনো সহায়তাই ব্যবসায় প্রকৃত সহায়তা হবে না। করোনার অভিঘাতে কর্মহীন কয়েক কোটি দরিদ্র, নিম্ন-মধ্যবিত্ত মানুষের হাতে নগদ অর্থ তুলে দিলে সেটাই বাজারে চাহিদা তৈরি করে শিল্প-ব্যবসাকে চাঙা করে তুলত। তাদের প্রণোদনার নামে ঋণ দেওয়ার দরকার হতো না।

এই বিভাগের আরো নিউজ

দুর্নীতি, লুটপাটের কারণে বরাদ্দ জনগণের কাছে পৌঁছায় না: রুমিন ফারহানা
দুর্নীতি, লুটপাটের কারণে বরাদ্দ জনগণের কাছে পৌঁছায় না: রুমিন ফারহানা
দুর্নীতি, লুটপাটের কারণে বরাদ্দ জনগণের কাছে পৌঁছায় না: রুমিন ফারহানা
দুর্নীতি, লুটপাটের কারণে বরাদ্দ জনগণের কাছে পৌঁছায় না: রুমিন ফারহানা
দুর্নীতি, লুটপাটের কারণে বরাদ্দ জনগণের কাছে পৌঁছায় না: রুমিন ফারহানা
আজকের সর্বশেষ সব খবর