সোমবার | ১৫ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

নবীগঞ্জে রাজনা হত্যার ৫ ঘণ্টার মধ্যে ‘খুনি স্বামী’ আটক

প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২২




জার্নাল প্রতিবেদক ॥ হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার রসুলগঞ্জ বাজারে সফিক মিয়ার বাসা থেকে গত সোমবার রাতে রাজনা বেগম নামে গৃহবধূর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। রাজনা ৮নং নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের বড় আলীপুর গ্রামের জাকারিয়া মিয়ার স্ত্রী ও একই ইউনিয়নের পশ্চিম তিমিরপুর গ্রামের মৃত আব্দুর রহিমের মেয়ে।

এ ঘটনার পর থেকে তার স্বামীর কোনো সন্ধান পাওয়া যাচ্ছিলো না। তবে বৃহস্পতিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) দীর্ঘ ৫ ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে রাত ১১টার দিকে মুন্সিগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান থানার লতব্দী এলাকা থেকে রাজনার স্বামীকে গ্রেফতার করে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)-৯ এর একটি চৌকস দল।

তথ্যটি শুক্রবার (৪ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১টায় এক প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে গণমাধ্যমকে জানায় র‍্যাব-৯।

প্রেস ব্রিফিংয়ের র‍্যাব-৯ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ আবদুর রহমান (পিএসসি, আর্টিলারি) বলেন, গত ৩১ জানুয়ারি হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ থানার ভাড়া বাসা থেকে রাজনা বেগম (১৯) নামের এক গৃহবধূর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় নিহত রাজনা বেগমের ভাই সুফি মিয়া হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ থানায় ৫ জনকে আসামি করে ২ ফেব্রুয়ারি একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এই ঘটনার মূল রহস্য উদঘাটন ও আসামি গ্রেফতারের লক্ষ্যে র‍্যাব-৯ গােয়েন্দা নজরদারীর পাশাপাশি ছায়া তদন্ত শুরু করে। গােয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে এ হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত প্রধান আসামি ভিকটিমের স্বামী জাকারিয়াকে বৃহস্পতিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত মুন্সিগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান থানার লতব্দী এলাকা থেকে গ্রেফতার করে র‍্যাবের একটি দল। জাকারিয়া নবীগঞ্জ উপজেলার বড় আলীপুর গ্রামের সবুজ মিয়ার ছেলে।

র‍্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জাকারিয়া স্ত্রীকে হত্যার দায় স্বীকার করেন। তিনি পেশায় একজন সিএনজি চালক। রাজনার সাথে ৪ বছরের প্রেমের সম্পর্কের পর গত বছর পারিবারিক সম্মতিতে তাদের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে একটি অটোরিকশা কেনার কথা বলে যৌতুকের টাকার জন্য জাকারিয়া রাজনার পরিবারকে বিভিন্নভাবে চাপ দিয়ে আসছিলেন।

এরই ধারাবাহিকতায় ঘটনার দিন বিকাল ৪টার দিকে যৌতুকের টাকার জন্য প্রথমে জাকারিয়া তার স্ত্রীর হাত-পা ওড়না দিয়ে বেঁধে ফেলে এবং ভয়-ভীতি দেখিয়ে শারীরিকভাবে নির্যাতন করতে থাকে। এসময় জাকারিয়া তার শ্বশুর বাড়িতে ফোন দিয়ে টাকা দাবি করে এবং সিএনজি অটোরিকশা কেনার জন্য টাকা না দিলে রাজনাকে মেরে ফেলার হুমকি প্রদান করেন।

এসময় শ্বশুর বাড়ির লােকজন টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় হাত-পা বাঁধা অবস্থায় জাকারিয়া তার স্ত্রীর মুখ ওড়না দিয়ে বেধে ফেলে, যাতে চিৎকার করতে না পারে। পরে রান্না ঘর থেকে ধারালাে বটি নিয়ে এসে স্ত্রীর গলা কেটে হত্যা করে ঘরের বাইরে থেকে তালা দিয়ে পালিয়ে যায়।

ঘটনার দিন মধ্যরাতের দিকে জাকারিয়া বাসযােগে রওনা হয়ে ঢাকায় চলে যান। ঢাকায় নিরাপদ আশ্রয় না পেয়ে তিন তার পুরাতন কর্মস্থল মুন্সিগঞ্জের লতব্দীতে আত্মগােপনে থাকেন। অতঃপর গােয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার রাতে তাকে সেখান থেকে গ্রেফতার করে র‍্যাব।

গত সোমবার (৩১ জানুয়ারি) রাতে ভাড়া বাসা থেকে গৃহবধূ রাজনা বেগমের হাত-পা বাঁধা অবস্থায় গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

উল্লেখ্য, নবীগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের রসুলগঞ্জ বাজারে শফিক মিয়ার ভাড়া বাসায় হাত-পা বাঁধা অবস্থায় রাজনার গলা কাটা লাশ উদ্ধার করে নবীগঞ্জ থানাপুলিশ। বিয়ের ৪ মাসের মাথায় সোমবার (৩১ জানুয়ারি) রাতে নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের রসুলগঞ্জ বাজারে ভাড়াটিয়া বাসা থেকে রাজনা বেগম (২০) নামের এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করা হয়। রাজনার স্বামী জাকারিয়া (২৩) সদর ইউনিয়নের আলীপুর গ্রামের সবুজ মিয়ার ছেলে।

জানা যায়, গত ৩-৪ মাস পূর্বে পরিবারের সম্মতিক্রমে জাকারিয়া ও রাজনার বিয়ে হয়। তারপর ভালোই সংসার চলছিল তাদের। গত ৭-৮ দিন আগে রসুলগঞ্জ বাজারে শফিক মিয়ার বাসায় ভাড়াটিয়া হিসেবে তারা আসে দুই জন। ঘটনার দিন বিকালে সাড়ে ৫ টার দিকে রাজনার মা তাকে দেখতে আসলে দরজা বন্ধ দেখতে পান। অনেক ডাকাডাকি করেও না শুনায় দরজার ফাঁকে দিয়ে থাকিয়ে দেখেন তার মেয়ের লাশ পড়ে আছে বিছানার মধ্যে। পরে চিৎকার করলে মানুষ এসে নবীগঞ্জ থানায় খবর দিলে থানাপুলিশ এসে দরজা ভেঙে লাশ উদ্ধার করে।

আজকের সর্বশেষ সব খবর