মঙ্গলবার | ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

নলসিটিতে রাতে গোডাউন থেকে কৃষি প্রণোদনার মালামাল বিক্রি, ২জনকে দায়সারা শোকজ!

প্রকাশিত : নভেম্বর ৮, ২০২১




বুলবুল আহমেদ, ঝালকাঠি প্রতিনিধি॥ ঝালকাঠির নলছিটিতে উপজেলা কৃষি অফিসের গোডাউনে মজুত করে রাখা কৃষি প্রণোদনার মালামাল অবৈধভাবে বিক্রির অভিযোগ নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। সংশ্লিষ্ট অফিসের উপসহকারি উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা খোকন চন্দ্র রায়ের নির্দেশে মোকাদ্দম মো. ছালাম গাজী এ মালামাল বিক্রি করার ঘটনায় স্থানীয় এলাকাবাসী ও সাধারন কৃষকদের মাঝে চাপা ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে।

এদিকে প্রত্যক্ষদর্শীদের মাধ্যমে এলাকায় ঘটনা জানাজানি হলে বিষয়টি ধামাচাপা দিতে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ইসরাত জাহান মিলি শোকজ নোটিসের নামে দায়সারা ভূমিকা নিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। কারন গুরুত্বর এ ঘটনায় তিনি চিহ্নিত সেই দুজনকে ‘সার ও বীজ বিক্রির বিষয়টি আড়াঁল করে’ অফিস টাইমের বাহিরে কৃষক আজিজকে ২টি নেট জাল, ১টি ড্রাম ও ২ সেট ফিতা পাইপ প্রদানের কারণ দর্শানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ৩ নভেম্বর ভোর সাড়ে ৫টার দিকে কৃষি অফিসের গোডাউনে থাকা কৃষি প্রণোদনার বিপুল পরিমাণ সার ও বীজ, কয়েকটি ড্রাম, ৪-৫টি নেট জাল ও ৫-৬ সেট ফিতা পাইপ উপজেলার কুলকাঠি ইউনিয়নের এক কৃষকের কাছে অবৈধভাবে বিক্রি করেন সংশ্লিষ্ট অফিসের মোকদ্দম মো. ছালাম গাজী। উপসহকারি উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা খোকন চন্দ্র রায় উপস্থিতিতে গোডাউন থেকে এসব মালামাল বিক্রির সময় স্থানীয় কয়েকজন দোকানদার ঘটনাটি দেখে ফেললে। এ ঘটনা জানাজানি হয়। অবস্থা বেগতিক দেখে ওইদিন দুপুরে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ইসরাত জাহান মিলি ওই দুজনের বিরুদ্ধে কেন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না তা জানতে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেন।

এ ব্যাপারে জানতে মোকাদ্দম ছালাম গাজী কোনো মন্তব্য করতে রাজি না হলেও উপসহকারি উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা খোকন চন্দ্র রায় বলেন, ‘আমি অফিসের পাশে একটি ভবনে ভাড়া থাকি। ওইদিন ভোরে মোকাদ্দম ছালাম গাজী আমাকে গোডাউনের সামনে ডেকে নেন। তবে প্রণোদনার মালামাল বিক্রি বা প্রদানের ঘটনায় আমি জড়িত নই।’ শোকজ পাওয়ার কথা স্বীকার করে তিনি যথা সময়ে জবাব দেবেন বলে জানান।’

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ইসরাত জাহান মিলি বলেন, ওই দুজনকে কারণ দর্শানো নোটিস দেওয়া হয়েছে। ৩ কার্যদিবসের মধ্যে তাদের জবাব দিতে বলা হয়েছে। জবাব পাওয়ার পর পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

প্রসঙ্গত, এছাড়া নলছিটি উপজেলা কৃষি অফিসের কিছু অসাধু কর্মকর্তা নামে-বেনামে কৃষি প্রণোদনার কার্ড ইস্যু সিংহভাগ অনুদানের অর্থ লোপাট করেছে বলেও গুরুত্বর অভিযোগ রয়েছে। এতে সরকার করোনা মহামারিতে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের কৃষি প্রণোদনার জন্য দেয়া অনুদান থেকে প্রকৃত কৃষকরা বঞ্চিত হয়েছে জানাগেছে।

এই বিভাগের আরো নিউজ

নলসিটিতে রাতে গোডাউন থেকে কৃষি প্রণোদনার মালামাল বিক্রি, ২জনকে দায়সারা শোকজ!
নলসিটিতে রাতে গোডাউন থেকে কৃষি প্রণোদনার মালামাল বিক্রি, ২জনকে দায়সারা শোকজ!
নলসিটিতে রাতে গোডাউন থেকে কৃষি প্রণোদনার মালামাল বিক্রি, ২জনকে দায়সারা শোকজ!
নলসিটিতে রাতে গোডাউন থেকে কৃষি প্রণোদনার মালামাল বিক্রি, ২জনকে দায়সারা শোকজ!
নলসিটিতে রাতে গোডাউন থেকে কৃষি প্রণোদনার মালামাল বিক্রি, ২জনকে দায়সারা শোকজ!
আজকের সর্বশেষ সব খবর