মঙ্গলবার | ১৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

‘নয় মাস বিষাদের ঔরসে লালিত স্বদেশ’

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ১৫, ২০২০




বাঙালির হাজার বছরের ইতিহাসে এক অনন্য গৌরবের দিন আজ। ৩০ লাখ শহীদের আত্মত্যাগ, সংগ্রাম এবং মুক্তিযোদ্ধাদের বীরত্বে একাত্তরের এ দিনে শত্রুমুক্ত হয়েছিল বাংলাদেশ।

গৌরবদীপ্ত সোনালি অধ্যায়ের জন্য পেরুতে হয়েছিল, রক্তের নদী! ৯ মাসের ত্যাগ তিতিক্ষা! যাকে কবিতার ভাষা বলা যায়, ‘দীর্ঘ নয়টি মাস, বিষাদের ঔরসে লালিত হয়ে/বিশ্বের সবুজাভ মানচিত্রে, জ্বলজ্বলে রক্তিম সূর্য হয়ে/জন্ম তোমার হে স্বদেশ’।

আর এ বিজয় যাত্রার শুরুটা, ১৯৪৭ সালে ভারতবর্ষ ভাগের পর থেকেই। তখন থেকে পূর্ব পাকিস্তানের উপর চলছিলো পশ্চিম পাকিস্তানীদের শোষণ-বঞ্চনা। প্রথম আঘাত আসে মাতৃভাষার ওপর, আবার কখনও অর্থনৈতিকভাবে কোনঠাসা করে রাখা। দিনে দিনে নিপীড়ন-নির্যাতন ও বৈষম্যের এ গল্প বাড়তেই থাকে। আর এসব অন্যায়ের প্রতিবাদেও মানুষ সোচ্চার হতে থাকে। জায়গায় জায়গায় হতে থাকে প্রতিবাদের স্ফুলিঙ্গ বিস্ফোরণ।

পরাধীনতার শৃঙ্খলমুক্তির চূড়ান্ত সূত্রপাত ১৯৭০ সালে অনুষ্ঠিত পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনের মাধ্যমে। সেই নির্বাচনে জয় লাভ করে শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ। তবে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে নারাজ পশ্চিম পাকিস্তানের সমনদে বসে থাকা রাজনৈতিকরা। পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের ওপর শুরু হয় অকথ্য অত্যাচার। সেই পরিপ্রেক্ষিতে ৭ মার্চ স্বাধীনতা ঘোষণা করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এ ভাষণের মাধ্যমে বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার জন্য চূড়ান্ত যুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে জাতিকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।

তিনি বলেছিলেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’।

ক্ষমতা হস্তান্তরের টালবাহানা করে এরপর আসে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের ভয়াল রাত। সেই রাতে পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী নিরস্ত্র, নিরপরাধ ঘুমন্ত বাঙালির উপর ঝাপিয়ে পড়লেন। অজস্র বেসামরিক নাগরিক, ছাত্র, শিক্ষক, বুদ্ধিজীবী ও বাঙালি পুলিশকর্মকর্তাসহ হত্যা করলেন অসংখ্য মানুষকে। গ্রেফতার হলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

এরপর এক রক্তাক্ত অধ্যায়। দেশের বীর সন্তানেরা বঙ্গবন্ধুর ওই আহ্বানে সাড়া দিয়ে হানাদারদের বিরুদ্ধে প্রবল প্রতিরোধ সংগ্রামে আত্মনিবেদন করেন। দীর্ঘ ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লক্ষ নিরীহ মানুষকে হত্যা করে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী। ৩ লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমহানি ঘটে। সহায়-সম্পদের বিপুল ক্ষয়ক্ষতি সাধন হয়। জীবন বাঁচাতে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে আশ্রয় গ্রহণ করে এক কোটি মানুষ। যুদ্ধে ৩৯০০ ভারতীয় সেনাও শহীদ হন।

১৬ ডিসেম্বর ঢাকার রমনা রেসকোর্স ময়দানে সম্মিলিত বাহিনীর প্রধান জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরার কাছে আত্মসমর্পণ করেন হানাদার পাকিস্তানী বাহিনী
শেষ পর্যন্ত ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর ঢাকার রমনা রেসকোর্স ময়দানে বিকাল ৪টা ৩১ মিনিটে সম্মিলিত বাহিনীর প্রধান জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরার কাছে আত্মসমর্পণ করেন ৯৩ হাজার সেনাসহ হানাদার পাকিস্তানী বাহিনীর কমান্ডর লেফটেন্যান্ট জেনারেল একে নিয়াজি।

‘দেশের মাটির কসম খেয়ে, করে মুক্তিযুদ্ধ/সেই লড়াইয়ে বাঙালিদের, হলো বিরাট জয়/সবাই দেখে বাংলাদেশে, স্বাধীন সূর্যোদয়।’-হ্যাঁ- সেদিনই পৃথিবীর বুকে স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম হয়। লাল-সবুজ পতাকা ঊর্ধ্বে তুলে ধরে বিজয়ী বাঙালিরা। সেই পতাকা উঁচিয়ে চলছে বাঙালির অভিযাত্রা।

বিজয় দিবস উপলক্ষে আজ সরকারি ছুটি। মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে মানুষ নিবেদন করবে পুষ্পাঞ্জলি। জাতি গভীর শ্রদ্ধা আর ভালোবাসার সাথে স্মরণ করবে সেই সব শহীদকে যাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত হয়েছে প্রিয় স্বাধীনতা। তবে এবারের বিজয় দিবস উদযাপনের আবহটা ভিন্ন। বাংলাদেশসহ গোটা বিশ্ব করোনাভাইরাসে আক্রান্ত লাখ লাখ মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে। তাই স্বাস্থ্যবিধি মেনেই উদযাপন করতে হবে বিজয়ের দিনটি।

বিজয় দিবসে বিভিন্ন আয়োজন

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে জাতির শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে মসজিদ, মন্দির, গির্জা, প্যাগোডা ও অন্যান্য উপাসনালয়ে বিশেষ মুনাজাত ও প্রার্থনা করা হবে। হাসপাতাল, জেলখানা, এতিমখানা, বৃদ্ধাশ্রমসহ, সরকারি শিশুসদন, বিভিন্ন অনাথ আশ্রয়কেন্দ্র এবং এ জাতীয় বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হবে। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে এবং বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসেও দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে অনুরূপ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে সব সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং রাতে আলোকসজ্জা করা হবে। প্রধান প্রধান সড়ক ও সড়কদ্বীপগুলো জাতীয় পতাকা ও অন্যান্য পতাকায় সজ্জিত করা হবে।

বিজয় দিবস উপলক্ষে জাতীয় সংবাদপত্রে বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশিত হয়েছে। বাংলাদেশ বেতার ও অন্যান্য রেডিও টেলিভিশনে দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচারিত হচ্ছে।

এছাড়া বিস্তারিত কর্মসূচি নিয়েছে আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল। সূর্যোদয়ের ক্ষণে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে, বঙ্গবন্ধু ভবন ও দেশব্যাপী সংগঠনের কার্যালয়ে জাতীয় পতাকা ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে। সকাল নয়টায় জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পার্ঘ্য নিবেদন। সাড়ে নয়টায় টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, জিয়ারত, দোয়া ও মিলাদ মাহফিল। সকাল সোয়া ১০টায় বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন। বেলা সাড়ে তিনটায় ২৩ বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সীমিত পরিসরে আলোচনা সভা হবে। এতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বক্তব্য দেবেন দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিরোধী রাজনৈতিক দল বিএনপি নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ভোরে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে কর্মসূচি শুরু করবে। সাড়ে আটটায় সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন দলটির নেতারা। সেখান থেকে ফিরে শেরেবাংলা নগরে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাবেন তাঁরা। বেলা সাড়ে তিনটায় ভার্চ্যুয়াল আলোচনা সভার আয়োজন করা হবে। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির সঙ্গে মিল রেখে সারা দেশে দলের নেতারা কর্মসূচি পালন করবেন।

আজকের সর্বশেষ সব খবর