মঙ্গলবার | ৭ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি ‘সনাতন সমাজের’

প্রকাশিত : নভেম্বর ২০, ২০২১




জার্নাল ডেস্ক ॥ দেশে সাম্প্রদায়িক হামলা ও সহিংসতার বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের বিবৃতির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে সনাতন ধর্মের কয়েকটি সংগঠন। এ সময় আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য প্রত্যাহারসহ ছয় দফা দাবি জানান হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতারা।

শনিবার (২০ নভেম্বর) চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ‘ঐক্যবদ্ধ সনাতন সমাজ’ নামে একটি সংগঠন এসব দাবি জানায়। এ সময় আরও কয়েকটি সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সংগঠনটির সদস্য কাঞ্চন আচার্য বলেন, দেশের বিভিন্ন এলাকায় সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা-নির্যাতন করা হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বিবৃতি সহিংসতাকারীদের উৎসাহিত করেছে। সরকারের দায়িত্বশীল অবস্থানে থেকে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এমন বক্তব্য অগ্রহণযোগ্য ও নিন্দনীয়।

তিনি বলেন, একদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা এবং মন্দিরের সঠিত তথ্য নিয়ে সেগুলো পুনর্নিমাণের ঘোষণা দিয়েছেন। ইতোমধ্যে সেখানে প্রশাসনের পদস্থ কর্মকর্তারা এবং আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকটি টিম পরিদর্শন করেছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মোতাবেক মাঠ পর্যায়ের পুলিশ প্রশাসন ঘটনায় প্রকৃত অভিযুক্তদের খুঁজে বের করে গ্রেফতার করছে। অন্যদিকে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বিবৃতি অপরাধীদের উৎসাহিত করছে।

সম্মেলনে বক্তারা ছয় দফা দাবি করেন। দাবিগুলো হল- ১. আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে তার বক্তব্য প্রত্যাহার করে জাতির কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। অন্যথায় দেশব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

২. ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনকে ব্যবহার করে কাউকে ঘায়েল করা বন্ধ করতে হবে। পাশাপাশি মিথ্যা ও বানোয়াট মামলায় যাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের মুক্তি দিতে হবে।

৩. সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় জড়িত অপরাধীদের দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

৪. ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের ধর্মবিশ্বাস, দেবদেবী ও পূজা-অর্চনা নিয়ে বিদ্বেষমূলক অপপ্রচার বন্ধ করতে হবে। পাশাপাশি ডিজিটাল মাধ্যমসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যারা এ ধরনের অপপ্রচার করেন তাদের আইনের আওতায় আনতে হবে।

৫. ক্ষতিগ্রস্ত ও ধ্বংসপ্রাপ্ত মঠ-মন্দির, আশ্রম, বাড়িঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও দেবালয়সমূহকে রাষ্ট্রীয় অর্থায়নে সেনাবাহিনীর দ্বারা পুনর্নিমাণ করে দিতে হবে।

৬. সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন প্রণয়ন করতে হবে এবং সংখ্যালঘু কমিশন-মন্ত্রণালয় গঠন করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ গীতা শিক্ষা কমিটির কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ডা. কথক দাশ, সনাতন সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা অশোক চক্রবর্তী, হিন্দু মহাজোট চট্টগ্রাম জেলার নেতা অ্যাডভোকেট যীশু কৃষ্ণ রক্ষিত, ঋষি মতিলাল স্মৃতি সংসদের সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট শুভাশীষ শর্মা, জাগো হিন্দু পরিষদের চট্টগ্রামের সভাপতি রুবেল কান্তি দে প্রমুখ।

এই বিভাগের আরো নিউজ

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি ‘সনাতন সমাজের’
পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি ‘সনাতন সমাজের’
পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি ‘সনাতন সমাজের’
পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি ‘সনাতন সমাজের’
পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি ‘সনাতন সমাজের’
আজকের সর্বশেষ সব খবর