বৃহস্পতিবার | ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

পরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থা গড়ে তোলতে সহযোগিতা চেয়েছেন মেয়র সেলিম

প্রকাশিত : জুন ১৮, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জে টানা ১৪ ঘন্টার অবিরাম বৃষ্টিপাতের কারণে শহরের বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় রাস্তাঘাট এমন কি বাড়ী-ঘর ও জলমগ্ন হয়েছে। যে পরিমানে বৃষ্টিপাত হয়েছে সে পরিমাণ পানি নিষ্কাশন হওয়ার মতো ড্রেনেজ টুকু ড্রেনে নেই। হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আতাউর রহমান সেলিম ২০২১ সালের ২৮ মার্চ দায়িত্ব গ্রহনের পরপরই গুরুত্ব দিয়ে পৌর এলাকার পানি নিষ্কাশনের বড় ড্রেন গুলো পরিস্কারের ব্যবস্থা করেন। সাথে সাথে বেশ কিছু এলাকায়  ড্রেনের প্রতিবন্ধকতা অপসারণের ব্যবস্থা করেন। যে কারণে বৃষ্টি মওসুমে শহরের বৃষ্টির পানি দ্রুত নিস্কাশিত হয়।

চলতি বছরও মেয়র আতাউর রহমানের দিক নির্দেশনায় বড় ড্রেন, খাল সমূহ নিয়মিত ভাবে পরিস্কারের ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। ড্রেন গুলোতে যাতে ময়লা আবর্জনা না ফেলা হয় সে ব্যাপারে মেয়র আতাউর রহমান সেলিমের উদ্যোগে জন সচেতনামূলক না না উদ্যোগ গ্রহন করা হয়। এ ব্যাপারে পৌরসভার পক্ষ হতে ব্যাপক সচেতনামূলক প্রচার-প্রচারণা চালানো হয়। সারা শহরের একাধিক বার লিফলেট বিতরণ করা হয়। শহরের যত টমটম আছে সব টমটমের পিছনে সচেতনতা স্টীকার সাটানো হয়। মাইকিং করা হয়। উঠান বৈঠক করা হয়।

কিন্তু দুঃখ জনক হলেও সত্য ড্রেনে ময়লা আবর্জনা ফেলা থামছেই না। পৌরসভা একদিকে ড্রেনের ময়লা-আবর্জনা পরিস্কার করে, অন্যদিকে ড্রেনে ময়লা নিক্ষেপের কারণে ড্রেনর অবস্থা যেমনটি ছিল তেমনটি হয়ে উঠে। বৃষ্টির পানি সড়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে এটি একটি অন্যতম বাঁধা। এ ছাড়া ও অপরিকল্পিত বাসা-বাড়ী নির্মাণ পানি নিষ্কাশনের পথে অন্যতম অন্তরায়। অনেকেই তাদের বাসা-বাড়ী পৌরসভার প্ল্যান অনুযায়ী বিধি মোতাবেক নির্মাণ করছেন না। পানি নিস্কাশনের জন্য যে জায়গাটুকু রাখা দরকার তারা রাখচ্ছেন না। এমনিতেই হবিগঞ্জ শহর দীর্ঘ দিনে অপরিকল্পিত ভাবে গড়ে উঠেছে। এ শহরের পানি দ্রুত নিষ্কাশিত হওয়ার মতো ড্রেনেজব্যবস্থা নেই। হবিগঞ্জ শহরের পুরাতন খোয়াই নদী সহ বিভিন্ন এলাকায় ড্রেন ও পানি নিস্কাশনের জায়গায় অবৈধ ভাবে স্থাপনা নির্মাণের ফলেও পানি নিষ্কাশন মারাত্মক ভাবে ব্যাহত হয়। হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আতাউর রহমান সেলিম বিগত ১ বছরে পানি নিষ্কাশনের পথে প্রতিবন্ধকতা অপসারণের চেষ্টা করেছেন। সে প্রচেষ্টা এখনও চলমান রয়েছে। কিন্তু দীর্ঘ দিনের অপরিকল্পিত শহরের সমস্যা সমাধান করতে ১ বছর সময় কিছুই না। হবিগঞ্জ শহরের পানি যাতে দ্রুততম সময়ের মাঝে নিষ্কাশিত হয় সে জন্য পৌরসভার পাশাপাশি পৌরবাসীর সহযোগিতা একান্ত প্রয়োজন। আর সে কারণেই পৌরসভার পক্ষ হতে প্রচারনা চালানো হয় সচেতনতার। এ প্রচারনা হলো, ড্রেনে বা যত্র তত্র ময়লা আবর্জনা না ফেলার, পৌরসভার বিল্ডিং কোড মেনে বাসা-বাড়ী নির্মাণ করার, ড্রেন, পৌরসভার জায়গা অথবা সরকারী জমি অবৈধ দখল হতে বিরত থাকার। জলযটের কারণে ভোগান্তি হতে পৌরবাসীকে পুরোপুরি মুক্ত করতে পৌরসভার পাশাপাশি পৌরবাসীর সহযোগিতার কোন বিকল্প নেই।

হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আতাউর রহমান সেলিম শুক্রবার ব্যাপক বৃষ্টিপাতের মাঝেও বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করেন। তিনি পৌরসভার পরিচ্ছন্নতা টিমকে বিভিন্নভাবে নিদের্শনা দেন। মেয়র বলেন, ‘বিগত এক বছরে নতুন কোন ড্রেনেজ অবকাঠামো নির্মিত হয় নি। দীর্ঘদিনের চলে আসা অপরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থার মাধ্যমে পানি সম্ভব নয়। পরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থা গড়ে তোলতে না পারলে অতি বৃষ্টির সময় সমস্যার সৃষ্টি হবে।’

মেয়র আশাবাদ ব্যক্ত করেন যে, পৌরসভার উপদেষ্টা হবিগঞ্জ-৩ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য মোঃ আবু জাহির এবং জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় ভবিষ্যতেও হবিগঞ্জ পৌরসভার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ এবং পানি নিস্কাশনের প্রতিবন্ধকতা উচ্ছেদে কার্য্যকর ব্যবস্থা গ্রহন অব্যাহত থাকবে। এছাড়াও তিনি জলাবদ্ধতা নিরসনে পৌর বাসীর সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করেন।

আজকের সর্বশেষ সব খবর