বৃহস্পতিবার | ৯ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

পানি নেই জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট হাসপাতালে, দুর্ভোগে রোগীরা

প্রকাশিত : অক্টোবর ২৯, ২০২১




জার্নাল ডেস্ক ॥ রাজধানীর জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে পানি না থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন ভর্তি থাকা হাসপাতালের রোগীরা।

নারায়ণগঞ্জের ভুলতার বাসিন্দা মোহাম্মদ আসাদ জাননা, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে গত কয়েক দিনের চিকিৎসায় শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার ভোরে হাসপাতালের বাথরুমে গিয়ে বিড়ম্বনায় পড়েন ষাটোর্ধ্ব এই বৃদ্ধ। দেখেন বাথরুমের ট্যাপ দিয়ে পানি আসছে না। ভেবেছিলেন, কিছুক্ষণ পর হয়তো পানি আসবে।

ঘটনাটি মেয়ে পারুল আক্তারকে জানান তিনি। ঘণ্টা খানেক পরও বাথরুমের ট্যাপে পানি না আসায় আশপাশের ওয়ার্ডে খবর নেন পারুল। জানতে পারেন, কোথাও পানি নেই। শুধু মোহাম্মদ আসাদ কিংবা পারুল আক্তার নন, হাসপাতালে ভর্তি থাকা রোগী ও রোগীর স্বজনেরা পানির সংকটে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন।

বৃহস্পতিবার ভোর থেকে এই ভোগান্তির শুরু। পানি না থাকার বিষয়টি রোগীর স্বজনেরা জানান হাসপাতালের ওয়ার্ড মাস্টারদের। তারা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করেন। পরে হাসপাতালের কর্মচারিরা সেখানকার পাম্পে গিয়ে দেখেন, সেখানে পানির বদলে বালু উঠছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তখন গণপূর্তের প্রকৌশলীদের বিষয়টি জানান। প্রকৌশলীরা সরেজমিন অনুসন্ধান করে জানান, গভীর নলকূপে পানির স্তর নেমে যাওয়ায় পাম্প দিয়ে পানি উঠছে না। এর বদলে বালু উঠছে।

এই বিষয়ে গণপূর্তের উপসহকারী প্রকৌশলী জুলফিকার আরেফিন বলেন, ‘ঢাকা শহরে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর অনেকটা নেমে গেছে। জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে আমাদের যে পাম্পটি আছে, ওটার পানির স্তর নিচে নেমে গেছে। এই কারণে পাম্প থেকে পানির বদলে বালু উঠছে। স্থায়ী সমাধানের জন্য নতুন করে গভীর নলকূপ খনন শুরু হয়েছে। এই কাজ শেষ করতে আরও পাঁচ থেকে সাত দিন সময় লাগবে।’

এই বিষয়ে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক মীর জামাল উদ্দিন বলেন, ‘গভীর নলকূপে পানির স্তর নিচে নেমে গেছে। তাই পাম্প চালু করলেও পানি উঠছে না। গণপূর্তের কর্মকর্তারা সংকট সমাধানের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।’

রোগী ও স্বজনেরা যাতে ভোগান্তিতে না পড়েন, সে জন্য ওয়াসা থেকে পানি এনে হাসপাতালের সামনে রাখা হয়েছে বলেও জানান অধ্যাপক মীর জামাল উদ্দিন। তিনি বলেন, ‘পাশের হাসপাতাল থেকে পানির একটা সংযোগ আমাদের হাসপাতালে সাময়িকভাবে দেওয়া হয়েছে। আশা করছি, রাতেই হাসপাতালে পানি চলে আসবে। শুক্রবার সকাল থেকে পানির আর কোনো সমস্যা থাকবে না।’

এই বিভাগের আরো নিউজ

পানি নেই জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট হাসপাতালে, দুর্ভোগে রোগীরা
পানি নেই জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট হাসপাতালে, দুর্ভোগে রোগীরা
পানি নেই জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট হাসপাতালে, দুর্ভোগে রোগীরা
পানি নেই জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট হাসপাতালে, দুর্ভোগে রোগীরা
পানি নেই জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট হাসপাতালে, দুর্ভোগে রোগীরা
আজকের সর্বশেষ সব খবর