রবিবার | ২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

প্রধান শিক্ষককে স্কুলে প্রবেশে বাঁধা; শোক দিবসের অনুষ্ঠানে হামলা

প্রকাশিত : আগস্ট ২০, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ বানিয়াচঙ্গের মুরাদপুর এসইএসডিপি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিয়োগে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কাওছার শুকরানা ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্য তজম্মুল হক চৌধুরীকে ৫ লাখ টাকা না দেয়ায় দায়িত্ব পালন করতে পারছেন না প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন মহসিন।

তজম্মুল হক চৌধুরীর আপন ভাতিজা ওই বিদ্যালয়ের অফিস সহকারী মোঃ রুমেন মিয়া চৌধুরীর মাধ্যমে ক্ষমতার অপব্যবহার করে স্কুলের দৈনন্দিন আয়ের লক্ষ লক্ষ টাকা সুকৌশলে আত্মসাৎ করে যাচ্ছেন। অভিযোগ রয়েছে উপবৃত্তির টাকা সহ স্কুলের প্রায় কোটি টাকা আত্মসাত করেছেন তজম্মুল হক চৌধুরী। তাদের এসব দূর্নীতি ও অপকর্মের তথ্য প্রকাশ হয়ে যাওয়ার ভয়ে প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন মহসিনকে দায়িত্ব পালনে বাধাঁ সৃষ্টি করা হচ্ছে।

এমনকি গত ১৫ আগষ্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাৎ বার্ষিকীতে শোক দিবসে পালনে অনুষ্ঠান করতে পারেননি তাদের মারমুখি বাধাঁর কারণে।

এতে স্কুলের শিক্ষা ব্যবস্থা মুখ থুবড়ে পড়েছে। স্কুলের উন্নয়নের নামে সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন প্রকল্পের টাকা আত্মসাত করা হচ্ছে। কিন্তু নিরীহ শিক্ষক কর্মচারীগণ তজম্মুল হক চৌধুরী ও তার ক্যাডার বাহিনীর আক্রমণের ভয়ে সত্য বিষয় প্রকাশে সাহস পাচ্ছেন না।

শনিবার বিকালে হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন মুরাদপুর ইউনিয়নে মুরাদপুর এসইএসডিপি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন মহসিন।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন- ২০১৪ সালে নিয়োগপ্রাপ্ত হয়ে মুরাদপুর এসইএসডিপি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন জাকির হোসেন মহসিন। এরই মধ্যে বানিয়াচং উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কাওছার শুকরানা ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্য তজম্মুল হক চৌধুরী তার নিকট নিয়োগ প্রদানের কারণে তাদেরকে ৫ লাখ টাকা দেয়ায় দাবী করেন। উপবৃত্তি প্রাপ্ত অনুপস্থিত শিক্ষার্থীর টাকা ও সেসিপ কর্তৃক বেতন ভাতাদির সরকারি অংশের টাকা থেকে প্রত্যক শিক্ষককে প্রতি মাসে ১ হাজার টাকা প্রদান করতে ফরমান জারী করেন। কিন্তু বেকে বসেন প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন মহসিন। তিনি তাদের দাবী পুরণে অপারগতা প্রকাশ করেন। সেই থেকে শুরু হয় প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন মহসিনকে তার দায়িত্ব থেকে সড়িয়ে দিতে নানা কুট-কৌশল।
এক পর্যায়ে ২০১৭ সালে ১১ এপ্রিল কাওছার শুকারান ও তজম্মুল হক চৌধুরীর যোগসাজশে ও ইন্দনে তৎকালীন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির কতিপয় সদস্য প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন মহসিনের সাথে মারমুখী আচরণ করে জোরপূর্বক তার কাছ থেকে বিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র, রেজুলেশন, ক্যাশবহিসহ প্রধান শিক্ষকের রুমে রক্ষিত আলমিরা ও সকল চাবি সমূহ রেখে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে তাকে রুম থেকে বের করে তালা মেরে দেয়। পরে কাওছার শুকরানা ও তজম্মুল হক চৌধুরীর পরিকল্পিত পন্থায় প্রধান শিক্ষকের অনুপস্থিতিতে একটি রেজুলেশনের মাধ্যমে বিধি বহির্ভূতভাবে সাময়িক তাকে বরখাস্ত করা হয়।

পরবর্তিতে তাকের চূড়ান্ত বরখাস্ত করার হীন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়ে বরখাস্তের চিঠি অনুমোদনের জন্য সিলেট শিক্ষা বোর্ডে আবেদন করেন তারা। আবেদনর প্রেক্ষিতে সিলেট শিক্ষা বোর্ডের আপিল এন্ড আরপিটেশন কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক গঠিত তদন্ত কমিটি ২০১৮ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর সরেজমিনে তদন্ত করে শিক্ষা বোর্ডে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। এই প্রতিবেদনে প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন মহসিনের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের সত্যতা না পাওয়ায় তাকে স্বপদে পুনর্বহালসহ বিধি মোতাবেক বেতন ভাতাদি প্রদানের নির্দেশ দেয়া হয়। এরই মধ্যে প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন মহসিনকে হয়রানী করার জন্য হবিগঞ্জ জজ আদালতের ৪০৬/৪২০ ধারায় ৩টি মামলা করা হয়। কিন্তু অভিযোগ সমূহের সত্যতা না পাওয়ায় মামলা ৩টি থেকেও তাকে অব্যাহতি প্রদান করেন।

এরপর থেকে অবৈধ সুবিধাভোগী মোঃ তজম্মুল হক চৌধুরী ও মোঃ কাওছার শুকরানার হুকুমে মোঃ রহুল আমিন চৌধুরী, মোঃ নাজিম উদ্দিন চৌধুরী, মোঃ রউফ মিয়া চৌধুরী, মোঃ বাচ্চু মিয়া চৌধুরী, মোঃ শাবাজ মিয়া, মোঃ তোফাজ্জল চৌধুরী সহ একদল সন্ত্রাসী তাকে স্কুলে প্রবেশ করতে বাধা দেয়।

প্রধান শিক্ষক মহসিন বলেন- আমাকে হয়রানি করতে সিলেট শিক্ষা বোর্ডের আদেশের বিরুদ্ধে তৎকালীন ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি তৈয়বুর রহমান চৌধুরী হাইকোর্টে তাদের আইনজীবী দ্বারা উকিল নোটিশ করার পর হাইকোর্ট তাদের প্রদত্ত রীট খারিজ করে দেন। পরে ম্যানেজিং কমিটির আবারও আবেদনের প্রেক্ষিতে ২০২১ সালের ২৭ মার্চ সিলেট শিক্ষা বোর্ডের আপিল এন্ড আরপিটিশন কমিটির সভায় উভয় পক্ষের শুনানি শেষে কমিটির আনীত সকল অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট প্রমাণিত হওয়ায় তাদের সকল আবেদন ও অভিযোগ নাকচ করে দেন। সেই সাথে প্রধান শিক্ষককে পূনরায় পুনর্বহালসহ বেতন ভাতাদি প্রদানের নির্দেশ দেয়া হয়।

এই আদেশের পর স্কুল পরিচালনা কমিটি ২০২১ সালের ১৫ জুন প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন মহসিনকে স্বপদে পুনর্বহালসহ বেতন ভাতাদি প্রদান ও দায়িত্ব হস্তান্তরের অন্যান্য সকল কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়। কিন্তু তৎকালীন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাসুদ রানা করোনা বদলি হয়ে যাওয়ার পর এই পক্রিয়া আবারও স্থগিত হয়ে যায়।

এই অবস্থায় তৈয়বুর রহমান চৌধুরী মিথ্যা ও ভূয়া সভাপতি সেজে হাইকোর্টে শিক্ষা বোর্ডের আদেশের বিরুদ্ধে রীট পিটিশন দায়ের করেন। এই রীট পিটিশনের বিরুদ্ধে ২০২১ সালের ২৩ আগষ্ট জবাব প্রদান পূর্বক শুনানি করলে হাইকোর্টের চেম্বার জজ প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন মহসিনের পক্ষে রায় প্রদান করেন এবং একই বছরের ১ নভেম্বর সুপ্রিমকোর্টে প্রধান বিচারপতির পূর্নাঙ্গ বেঞ্চে উভয় পক্ষের শুনানি শেষে সিলেট শিক্ষা বোর্ডের আদেশ বহাল রেখে প্রধান শিক্ষকের পক্ষে রায় প্রদান করেন।

এছাড়াও প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন মহসিনের এমপিও ভূক্ত হওয়ার ফাইল বিভিন্ন অজুহাতে বার বার রিজেক্ট করছেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কাওছার শুকরানা। ফলে তিনি সরকারি বেতন ভাতাদি থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। দীর্ঘ সাড়ে ৫ বছর যাবৎ বেতন ভাতাদি না পাওয়ায় পরিবার পরিজন নিয়ে তিনি চরম মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

এদিকে সিলেট শিক্ষা বোর্ডের নির্দেশনা ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক বর্তমানে তিনি বিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্মচারীগণের বেতন বিল, আর্থিক অন্যান্য সকল লেনদেনসহ অফিসিয়াল সকল কার্যক্রম শত ভাগ চালিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে প্রধান শিক্ষকসহ স্কুলের সকল অভিভাবকদের নিয়ে সভা আহবান করার জন্য বলা হলেও তিনি কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেন না। বানিয়াচং উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় বার বার এ বিষয়টি উত্থাপিত হলেও আইন শৃঙ্খলার বিষয় নয় বলে এড়িয়ে যাওয়া হচ্ছে।

সর্বশেষ গত ১৫ আগষ্ট সিলেট শিক্ষা বোর্ডের নির্দেশনায় জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম মৃত্যু বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন করতে গেলে প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন মহসিনকে বাঁধা প্রদান করা হয়। এ সময় তজম্মুল হক চৌধুরীর ক্যাডার বাহিনী মোঃ রুহুল আমিন চৌধুরী, মোঃ নাজিম উদ্দিন চৌধুরী, মোঃ তোফাজ্জল হক চৌধুরী, মোঃ রউফ চৌধুরী, মোঃ বাচ্চু মিয়া, মোঃ শাবাজ মিয়ার হামলা ও মারমুখি বাঁধার মুখে শোক দিবসের সকল অনুষ্ঠান পন্ড হয়ে যায়। বিষয়টি তাৎক্ষণিক উপজেলা নির্বাহী অফিসার, থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও আইসি বিথঙ্গল ফাঁড়িক অবহিত করা হলেও কার্যত কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

এই অবস্থায় আমি ও আমার পরিবার পরিজন চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমাকে মিথ্যা মামলায় জড়ানোর ভয় দেখানো হচ্ছে। যে কোন সময় আমার বা পরিবার পরিজনের অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে যেতে পারে। দীর্ঘ সাড়ে ৫ বছর যাবত বেতন ভাতাদি না পাওয়ায় পরিবার পরিজন নিয়ে চরম মানবেতর জীবনযাপন করছি। ফলে স্কুল, কলেজে পড়ুয়া আমার সন্তানাদির লেখা-পড়া বন্ধ হয়ে গেছে।
এ ব্যাপারে আমি মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের চেয়ারম্যান, সিলেট শিক্ষা বোর্ড, হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক, জেলা শিক্ষা অফিসার ও ১৪নং মুরাদপুর ইউনিয়নের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের আমাকে স্কুলে যাওয়ার পথ নিরাপদ ও সুগম করতে আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

সংবাদ সম্মেলনে মুরাদপুর গ্রামের বিশিষ্ট মুরুব্বি ও সুজাতপুর হানিফ খান উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক বদিউল আলম চৌধুরী বলেন- প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন চৌধুরীর আনিত সকল অভিযোগই সত্য। ক্ষমতার অপব্যবহার ও ব্যক্তি স্বার্থের কারণে আমাদের স্কুলটি শেষ হয়ে যাচ্ছে। সারাদেশে আইন করে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি প্রত্যেকটি স্কুলে টানানো হয়েছে। কিন্তু আমাদের স্কুলে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি’র রুম তালাবদ্ধ করে নিজেদের ছবি প্রদর্শণ করা হচ্ছে। এটা আমাদের জন্য লজ্জার।

আজকের সর্বশেষ সব খবর