বৃহস্পতিবার | ২৬শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

বাণিজ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ চাইলেন মির্জা ফখরুল

প্রকাশিত : জানুয়ারি ৩, ২০২১




জার্নাল ডেস্ক : দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার দায়ে বাণিজ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ চাইলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। রোববার (৩ জানুয়ারি) গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন।

সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল বলেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি ঘটেছে। চালের দাম বেড়েছে, ডালের দাম বেড়েছে, তেলের দাম বেড়েছে, শাখ-সবজির দাম বেড়েছে। এটা এখন সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে। এ কারণে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে আগামী ৭ জানুয়ারি সারাদেশে থানা পর্যায়ে মানববন্ধন করবে বিএনপি।

তিনি বলেন, আমরা এ-ও মনে করি, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার দায়ে বাণিজ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ করা উচিত। এ দাবিটিও আমাদের কর্মসূচিতে থাকবে।

সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন স্থানে পৌরসভা নির্বাচনের ঘটনাপ্রবাহ তুলে ধরে বিএনপি মহাসচিব বলেন, পৌর নির্বাচনে নির্বাচন কমিশনের যে ব্যর্থতা, তাদের যে উদাসিনতা, যে দুর্নীতি এবং পুরোপুরিভাবে বলা যেতে পারে একটা পক্ষপাতিত্ব নির্বাচন করার যে উদ্দেশ্য সেগুলোর বিরুদ্ধে আমরা বারবার বক্তব্য রেখে আসছি।

তিনি বলেন, এই নির্বাচন কমিশন ব্যালট বলুন আর ইভিএম বলুন কোনোটাতেই সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন করার যোগ্য নয়। আমরা মনে করি, এই কমিশন সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালনা করতে একেবারেই পুরোপুরিভাবে ব্যর্থ হয়েছে। অবিলম্বে কাল বিলম্ব না করে একটা সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ সকল কমিশনারের পদত্যাগ করা উচিত। নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগের দাবিতে আগামী ১০ জানুয়ারি পৌরসভা ও মহানগরীতে মানববন্ধন করবে বিএনপি।

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে মির্জা ফখরুল বলেন, চালের দাম কমছে না, বেড়েই চলেছে। যেটা আশঙ্কাজনক। এবার চালের উৎপাদন কম হয়েছে। যার ফলে মূল্যবৃদ্ধির আশঙ্কা আছে। বর্তমান সরকার ২০০৮ সালে (নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন) যখন নির্বাচন করে তখন জনগণের কাছে অনেক সুন্দর সুন্দর কথা বলেছিলো। তারা বলেছিলো, জনগণকে ১০ টাকা কেজি চাল দেবে, বিনা পয়সায় সার দেবে এবং ঘরে ঘরে চাকুরি দেবে।

তিনি বলেন, গতকাল পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়েছে, ১০ টাকা কেজি চালের ৭ লাখ কার্ড ভুয়া। এটা সরকারের খাদ্য অধিদফতর বলছে। তাহলে বুঝতেই পারেন, এটা নিয়ে কী ধরনের দুর্নীতি চলছে। ১০ টাকা কেজি চাল কিনে তা ৭০ টাকা কেজিতে বিক্রি করা হচ্ছে বাজারে। সেটা সরকারি দলের মদদপুষ্টরা করছে। একইসঙ্গে বিভিন্ন ভাতা ও খাদ্য সাহায্য ওএমএস, কাবিখা, টিআর-এর দুর্নীতি চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে। এখানে পুরোটাই দলীয়করণ করা হয়েছে।

আজকের সর্বশেষ সব খবর