বুধবার | ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

বানিয়াচংয়ে উদ্যমী এক যুবকের বেড়ে উঠার গল্প

প্রকাশিত : জুলাই ৮, ২০২১




শিব্বির আহমদ আরজু, বানিয়াচং থেকে : মোহাম্মদ ছানু মিয়া (৩৬) বিদেশ ফেরত যুবক। সৌদি থেকে এসে ২টি গাভী ক্রয় করে লালন-পালন শুরু করেন। এতে বেশ সফলতাও পান। ২ গাভী থেকে মনে বাসনা জাগে গরুর খামার করার।

আজ স্বপ্নের সেই খামারে ২৫ টি ষাড় রয়েছে। ইচ্ছা আছে ভবিষ্যতে ডেইরী খামার দেয়ার। সে উপজেলা সদরের ৩নং দক্ষিণ-পূর্ব ইউনিয়নের অন্তর্গত ৮নং ওয়ার্ডের পাড়াগাঁও মহল্লার মোঃ তৈয়ব আলীর ছেলে। ৩ ভাই ও ১ বোনের মধ্যে মোহাম্মদ ছানু মিয়া ২য়। সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বড় একটি ঘরে আধুনিক পদ্ধতিতে গরুগুলোকে বেঁধে খাবার দিচ্ছেন তিনি।

সূত্রে জানা যায়, ২০০৪ সালে সংসারের হাল ধরতে সৌদি আরবে পাড়ি জমান মোহাম্মদ ছানু মিয়া। প্রবাসে অবস্থান করেন ১০ বছর। এর পর ২০১৬ সালে এসে লালন-পালনের উদ্দেশ্যে ২টি গাভী ক্রয় করেন। এ থেকে তার পথচলা। প্রতি বছর কোরবানীর ঈদে তিনি ষাড়গুলো বিক্রি করেন। এর পর শীত মৌসুমে আবার ষাড় ক্রয় করে লালন-পালন করেন। বর্তমানে তার খামারে ২জন ব্যক্তি বেতনধারি হিসেবে কাজ করছেন।

এ ব্যাপারে খামারি মোহাম্মদ ছানু মিয়া হবিগঞ্জ জার্নালকে জানান, আমি গরুর খামার দেয়ার ইচ্ছা বহুদিনের। সেই ইচ্ছাকে বাস্তবায়ন করতে গিয়ে অনেক সংগ্রাম করতে হয়েছে। আমি খামার দিতে গিয়ে উপজেলা প্রাণি সম্পদ বিভাগের অনেক সহযোগিতা পেয়েছি। আমি চাই আমার ন্যায় তরুণ যুবকরা অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাক এবং নতুন করে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হোক। সেই সাথে আমার হাঁসেরও খামার আছে। আমি খামারগুলো দেখাশোনার পাশাপাশি মুদিমালের ব্যবসাও পরিচালনা করি। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক অঞ্জন কুমার আচার্য বলেন, ছানু ভাই অত্যন্ত মিশুক ও সংগ্রামি মানুষ। তিনি কাজকে ভালোবাসেন। তার যে মেধা ও সুষ্ঠু পরিকল্পনা তা বাস্তবায়ন হলে নতুন করে অনেক কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে। তাকে সরকারের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় ঋণ কম সুদে দিলে সে যেমন লাভবান হবে ঠিক তেমনিভাবে প্রাণিসম্পদ বিভাগেরও সুনাম এবং বিস্তৃতি ঘটবে।

প্রাণি চিকিৎসক দ্বীপক দেব জানান, মোহাম্মদ ছানু মিয়া একজন উদ্যমি যুবক। তিনি খামার করে অনেক এগিয়ে গেছেন। এভাবে যদি প্রাণি সম্পদের প্রতি তরুণ যুবকরা সম্পৃক্ত হন তাহলে দেশ থেকে অনেক বেকারত্ম দূর হবে এবং নতুন করে সৃষ্টি হবে কর্মসংস্থান। আমি তার এ হারনামানা সংগ্রামকে সাধুবাদ জানাচ্ছি।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগের কর্মকর্তা মোঃ সাইফুর রহমান জানান, সরকার চাচ্ছে প্রাণিসম্পদ বিভাগের মাধ্যমে তরুণ যুবকদের কাজে লাগাতে। এ ক্ষেত্রে সরকার থেকে তাদের জন্য যা সুযোগ-সুবিধা আছে তা দিয়ে থাকি। আমরা সরকার থেকে বেতন পাচ্ছি এসব কাজের জন্য। তাই যে সময় যা প্রয়োজন তা আমাদের দিক থেকে দিতে কোন কার্পণ্য নেই। বিশেষ করে আমরা কোন ঋণ দেইনা, দেই টেকনিক্যাল সাপোর্ট। সেই সাথে চিকিৎসা ক্ষেত্রে কোন গাফিলতি নেই।

 

আজকের সর্বশেষ সব খবর