সোমবার | ২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

বাহবলে খুন হওয়া প্রবাসী ফয়সল এর সন্তানের আগমন! রাখা হয়েছে বাবার দেয়া নাম॥ পরিবারে কান্নার রোল

প্রকাশিত : আগস্ট ১০, ২০২১




জার্নাল প্রতিবেদক ॥ হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার মীরের পাড়া গ্রামের কুয়েত প্রবাসী শাহ ফয়সল । বছরখানে পূর্বে বিয়ে করেন শাহ উমাইয়াকে। বিয়ের পর তার পরিবারে আসবে নতুন অতিথি। এ নিয়ে ফয়সলের ব্যাপক উৎসাহ। সে পরিবারের সবাইকে জানিয়ে দেয় তার যদি মেয়ে হয় তবে তার নাম রাখা হবে শাহ মায়মুনা। আর সন্তান যদি ছেলে হয় তার নাম রাখা হবে শাহ আনাছ। সোমবার রাত পৌনে ১১টায় হবিগঞ্জ শহরের চাঁদের হাসি হাসপাতালে সিজারের মাধ্যমে তার প্রথম সন্তানের আগমন ঘটে পৃথিবীতে।হাসপাতালের নামের মতই সুন্দর ফুটফুটে কণ্যা সন্তানের আগমনে পরিবারের সবার মাঝে বয়ে যাওয়ার কথা আনন্দের বন্যা। কিন্তু না। পরিবারের সবার মাঝে দেখা যায় কান্নার রোল। এই কান্নার কারন হল পৃথিবীতে আসা নতুন এই সদস্যের আগমনে যার সবছেয়ে বেশী খুশি হওয়ার কথা সেই শাহ ফয়সলকে এক মাসে পূর্বে নির্মমভাবে হত্যা করে খুনিরা। দিনদুপুরে প্রকাশ্যে খুনিরা শাহ ফয়সলকে হত্যা করলেও গ্রেফতার হচ্ছে না কোন আসামী। উপরোন্ত সন্তানের আগমনের দিনে মিথ্যা ঘটনা সাজিয়ে শাহ ফয়সল এর পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেছে খুনিদের পক্ষ থেকে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ১১ জুলাই বাহুবল উপজেলার পুটিজুরী ইউনিয়নের মীরের পাড়া গ্রামের শাহ মোজাম্মিল হোসেন ময়না মিয়ার ছেলে কুয়েত প্রবাসী শাহ ফয়সলকে কুপিয়ে হত্যা করে একই গ্রামের কাতার প্রবাসী মোতাহির মিয়া ও তার লোকজন। এ ব্যাপারে ফয়সলের ছোট ভাই শাহ মিল্লাত হোসেন ফারহান বাদী হয়ে ৭জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৪/৫জনকে আসামী করে বাহুবল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর ৪ নং আসামী আপ্তাব উদ্দিনকে গ্রেফতার করলে বিজ্ঞ আদালত তাকে ১দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। কিন্তু মামলার আর কোন আসামীকে গ্রেফতার করেনি পুলিশ। কিছুদিন পূর্বে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে আসামীদের পরিবারের লোকজন নিজেদের ঘরেই আগুন লাগিয়ে থানায় মামলা দায়েরের চেষ্টা করে। কিন্তু পুলিশ এসে ঘটনার সত্যতা না পেয়ে কোন মামলা নেয়নি। পরে নিহত শাহ ফয়সল এর স্বজনদের বিরুদ্ধে সোমবার আদালতে লুটপাটের মামলা দায়ের করে পূর্বজয়পুর গ্রামের আশিক মিয়ার স্ত্রী লুৃৎফা আক্তার। ১৪ জনের নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাত আরও ২০/২৫ জনকে আসামী করে আদালতে মামলা দায়ের করলে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুলতান উদ্দিন প্রদান মামলাটি এফআইএর গণ্যে রুজু করার জন্য বাহুবল থানার ওসিকে নির্দেশ দেন।

নিহত শাহ ফয়সল এর ভাই ও হত্যা মামলার বাদী শাহ মিল্লাত হোসেন ফারহান বলেন, আমার ভাই আজ দুনিয়ায় নেই। হত্যাকারীদেরকে গ্রেফতার করা হচ্ছে না। নির্মম হত্যার শিকার হওয়া সেই ভাইয়ের পরিবারের সন্তানের আগমনে আমরা খুশি হওয়ার কথা। কিন্তু যেদিন সেই সন্তানের আগমন হল সেদিনই আমাদের বিরুদ্ধে খুনিরা নিজেরা ঘটনা সাজিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে। কিভাবে আমরা আনন্দিত হই। শাহ ফয়সলের দেয়া নামেই তার সন্তানের নাম শাহ মায়মুনা করা হয়েছে বলে তিনি জানান। তিনি মিথ্যা মামলায় যাতে তাদেরকে হয়রানী না করা হয় এবং প্রবাসী শাহ ফয়সলের খুনীদেরকে আইনের আওতায় আনা হয় তার জন্য পুলিশ প্রশাসনের সৃদৃষ্টি কামনা করেন।

বাহুবল মডেল থানার ওসি আলমগীর কবির বলেন, তারা খুনিদেরকে ধরার জন্য চেষ্টা করছেন। তিনি নিজেসহ বাহুবল নবীগঞ্জ সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবুল খায়ের ও ওসি কামরুজ্জামান লুটপাটের বিষয়টির প্রাথমিক তদন্ত করেছেন। এখনও কে করেছে তা বলা যাচ্ছে না।

এই বিভাগের আরো নিউজ

বাহবলে খুন হওয়া প্রবাসী ফয়সল এর সন্তানের আগমন! রাখা হয়েছে বাবার দেয়া নাম॥ পরিবারে কান্নার রোল
বাহবলে খুন হওয়া প্রবাসী ফয়সল এর সন্তানের আগমন! রাখা হয়েছে বাবার দেয়া নাম॥ পরিবারে কান্নার রোল
বাহবলে খুন হওয়া প্রবাসী ফয়সল এর সন্তানের আগমন! রাখা হয়েছে বাবার দেয়া নাম॥ পরিবারে কান্নার রোল
বাহবলে খুন হওয়া প্রবাসী ফয়সল এর সন্তানের আগমন! রাখা হয়েছে বাবার দেয়া নাম॥ পরিবারে কান্নার রোল
বাহবলে খুন হওয়া প্রবাসী ফয়সল এর সন্তানের আগমন! রাখা হয়েছে বাবার দেয়া নাম॥ পরিবারে কান্নার রোল
আজকের সর্বশেষ সব খবর