মঙ্গলবার | ১৮ই জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

বাহুবলে কাজ শেষ না হতেই উঠে যাচ্ছে সড়কের কার্পেটিং

প্রকাশিত : মে ১৬, ২০২১




বাহুবল প্রতিনিধি : হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার চলিতাতলা-বক্তারপুর সড়ক পাকাকরণের কাজ শেষ না হতেই কার্পেটিং উঠে যাচ্ছে। এতে কাজের গুণগত মান নিয়ে স্থানীয় লোকজনের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা যায়, উক্ত সড়ক ৬ কিঃমিঃ পুনঃপাকাকরণ (কার্পেটিং) এর জন্য অর্থ বরাদ্দ দেয় সরকার। প্রকল্প বাস্তবায়নের কার্যক্রম ঈদের ২দিন পূর্বে চলিতাতলা বাজারের নিকট এসে সমাপ্ত হয়। কাজের মান এতই নিম্নমানের, যেন কোটি টাকা হজম করতেই দায়সারাভাবে কাজ করে ঠিকাদার। অতি হালকা মানের পাথর কংক্রিট আর কেরোসিন মিশ্রিত পিচের প্রলেপ দেয়া হয়। এরই মাঝে রাস্তার বিভিন্ন স্থানে পিচঢালার ৩/৪দিনের মাথায় উঠে যাচ্ছে। এতে এলাকার সাধারণ মানুষের মাঝে তুমুল সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে।

এরই মধ্যে রাস্তার পিচের করুণ দশার ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে গেছে। এতে সরকারী এ কাজের সমালোচনায় মেতে ওঠেছেন অনেকেই। আর এই সমালোচনাটি সরকারের উপর বর্তাচ্ছে উপজেলা এলজিইডির কতিপয় অসাধু কর্মকর্তার কারণে। কাজের যথাযথ তদারকি না করায় দুর্নীতির আলামত এখন ফুটে উঠেছে। কর্তৃপক্ষ দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেবেন, রাস্তা কি পুনঃমেরামত করে দেয়া হবে; এমন প্রশ্নই স্থানীয় জনগণের মুখে মুখে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ও অলুয়া গ্রামের বাসিন্দা এমএ মজিদ তালুকদারের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন- রাস্তা সংস্কারের ৩ দিনের মাথায় পিচ উঠে যাওয়ার ঘটনাটি দেখে মনে হয় ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতি হয়েছে। সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার এবং এলজিইডির প্রকৌশলীর যোগসাজসে এমনটা হয়েছে। এছাড়া কাজের এমন অবস্থা দেখে মনে হয়, বাহুবলে কোন জনপ্রতিনিধি নেই। কারণ এ ব্যাপারে জনপ্রতিনিধিরও ভূমিকা রয়েছে। বেহাল রাস্তার অংশগুলো সিডিউল অনুযায়ী পুনঃসংস্কার করতে হবে। অন্যতায় জনগণকে সাথে নিয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

এ ব্যাপারে ৩নং সাতকাপন ইউপির সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সাঈদ আহমদ এক মন্তব্যে বলেন- উপজেলা প্রকৌশল অফিসের প্রধান কর্তাকেই এর দায়ভার নিতে হবে। কারণ, সুযোগে দুর্নীতিবাজরা সুবিধা নেবেই। কর্তা ব্যক্তির তদারকি থাকলে এমনটা হতো না। অনতিবিলম্বে তা মেরামত করে দিতে হবে। অন্যতায় জনগণ এ নিয়ে রাস্তায় নামবে।

আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. আয়াত আলী বলেন- ‘রাস্তার কাজটি যেভাবে করা হয়েছে আমি দেখেছি। খুবই খারাপ এবং দুঃখজনক। আমি উপজেলা চেয়ারম্যান সাহেবকে এ বিষয়ে অবগত করেছি।’

অপর আওয়ামী লীগ নেতা নারায়ণ চন্দ্র পাল বলেন- ‘আমাকে এ ব্যাপারে স্থানীয় কয়েকজন বলেছে। আমি তাদেরকে উপজেলা প্রশাসনের কাছে দরখাস্ত করার পরামর্শ দিয়েছি। প্রশাসন অবশ্যই ব্যবস্থা নেবে।’

রাস্তার অনিয়ম নিয়ে স্থানীয় ইউপি মেম্বারের সাথে আলাপ করলে তিনি বলেন- ‘কাজ সঠিক হয়নি। আমি ঠিকাদারকে বলেছি ভালভাবে করার জন্য। ঠিকাদার আমার কথা না শোনে আমাকে মিথ্যা মামলার হুমকি দেয়।’

আজকের সর্বশেষ সব খবর