বৃহস্পতিবার | ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

বিএনপির আন্দোলন গণতন্ত্রের মুক্তি ও ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন

প্রকাশিত : নভেম্বর ৩০, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন- দেশের মানুষ বিএনপিকে ভালোবাসে। তাই বিএনপির সমাবেশ জনসমুদ্রে পরিণত হয়। কারণ বিএনপি যে আন্দোলন করছে তা শুধু বিএনপির আন্দোলন নয়, এই আন্দোলন দখলদার সরকারের কবল থেকে গণতন্ত্রের মুক্তির আন্দোলন, এই আন্দোলন মানুষের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন। এই আন্দোলনে আমাদের জিততেই হবে।

তিনি বুধবার বিকালে সদর উপজেলার ৪নং পইল ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড বিএনপির উঠান বৈঠকে এসব কথা বলেন।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বিনাভোটের আওয়ামী সরকারের কবল থেকে মুক্তি ও জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার দাবিতে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জি কে গউছ আর বলেন- আওয়ামীলীগ দেশকে একটি অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করেছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের আকাশচুম্বী ঊর্ধ্বগতি, অসহনীয় যাতায়াত ভাড়া, অস্বাভাবিক পরিবহন ব্যয়, লোডশেডিং ও গ্যাস সঙ্কটে দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে জনজীবন। আজ মানুষের কোনো আয় নেই। কিন্তু ব্যাপক লুটপাট ও বাজার সিন্টিকেটের মাধ্যমে আওয়ামীলীগ নেতাদের আয় আছে। তারা লুটপাট করে দেশের অর্থনীতিকে শূন্য করে ফেলছে। এই অবস্থায় দেশকে বাচাঁতে হলে, দেশের মানুষকে বাচাঁতে হলে আওয়ামীলীগের পতন নিশ্চিত করতে হবে।

তিনি বলেন- বিএনপি সমাবেশ আহ্বান করলেই আওয়ামীলীগ নৌকা বন্ধ করে দেয়, বাস বন্ধ করে দেয়, পুলিশ দিয়ে বাঁধা সৃষ্টি করা হয়, হয়রানী করা হয়, কিন্তু তারপরও জনগণকে আটকাইতে পারে না। কারণ বাংলাদেশের মানুষ বন্দুকের নলকে ভয় পায় না। এ দেশের মানুষ পাকহানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছে, গণতন্ত্র ও ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছে। সেই গণতন্ত্রকে আওয়ামীলীগ হত্যা করেছে, মানুষের ভোটের অধিকার রাতের আধারে হাইজেক করেছে। তাই দেশের মানুষ আর এক মুহুর্তের জন্য আওয়ামীলীগকে ক্ষমতায় দেখতে চায় না। দখলদার সরকারকে বিদায় জানাতে মানুষ রাজপথে নেমে আসছে। বিএনপির সভা-সমাবেশ জনসমুদ্রে পরিণত হচ্ছে। আওয়ামী সরকার এই গণবিস্ফোরণ দেখে নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষায় এখন আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর উপর পুরোপুরি নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। কিন্তু এতেও আওয়ামীলীগের শেষ রক্ষা হবে না। ইনশাআল্লাহ, জনগণের বিজয় নিশ্চিত।

বিএনপি নেতা ফকির আব্দুল বশিরের সভাপতিত্বে ও কাওছার আহমেদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক হাজী এনামুল হক, সদর উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আজিজুর রহমান কাজল, যুগ্ম আহ্বায়ক আজম উদ্দিন, এডভোকেট আফজাল হোসেন, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট গুলজার খান, নজরুল ইসলাম কাওছার, বিএনপি নেতা এস এম মানিক, সৈয়দ আজহারুল হক বাকু, আব্দুস সোবহান, মোস্তফা মিয়া, আবুল কালাম, কামাল চৌধুরী, জালাল মিয়া, আশরাফুল যুমন, মোস্তফা জামাল, আব্দুল হক, ওয়াহিদ ভান্ডারী, সাইদুর রহমান কুঠি, কামরুল হাসান, ফয়সল আহমেদ তোতা, আব্দুস সালাম, আক্কাস মিয়া, মহিদুল হক সুমন, আদব আলী, জাহেরা বেগম প্রমুখ।

আজকের সর্বশেষ সব খবর