শনিবার | ২৬শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

বিকেল থেকেই অনলাইনেই মিলবে ট্রেনের টিকিট

প্রকাশিত : মে ২৩, ২০২১




জার্নাল ডেস্ক : নতুন করে বিধিনিষেধের মেয়াদ বাড়লেও সোমবার (২৪ মে) থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দূরপাল্লার বাস চলবে। একই সঙ্গে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলবে লঞ্চ এবং ট্রেন। ট্রেন চলাচলের ঘোষণার পর অনলাইন টিকিট বিক্রি কার্যক্রম চালুর প্রস্তুতি নিয়েছে সংশ্লিষ্টরা।

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ঘুরে দেখা যায়, টিকিট কাউন্টার, স্টেশন মাস্টার, স্টেশন ম্যানেজারের রুমে তালা ঝুলছে। তবে বেশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন দেখা গেছে প্ল্যাটফর্ম। এক কথায় চকচক করছে প্ল্যাটফর্মের সর্বত্র। আর লাইনে দাঁড়িয়ে আছে একটার পর একটা ট্রেন।

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের দেখা না গেলেও লাইনে কিছু কর্মীদের কাজ করতে দেখা যায়। সেইসঙ্গে আনসার ও রেলওয়ে পুলিশের কয়েকজন সদস্যকেও দায়িত্ব পালন করতে দেখা যায়G

কমলাপুর রেলওয়ের বিভিন্ন বিভাগের কর্মীরা জানান, তারা ট্রেন চালানোর সব প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন। নির্দেশনা আসলেই দুই ঘণ্টার মধ্যে ট্রেনের কোচ (বগি) ধুয়ে চলাচলের উপযোগী করে তোলা হবে।

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ম্যানেজার মাসুদ সারওয়ার জানান, বিকেলে সচল হবে রেলওয়ে অ্যাপস। বিকেল ৫টার পর থেকে অনলাইনে টিকিট পাওয়া যাবে। সব টিকিট অনলাইনে দেয়া হবে। স্টেশনে কোনো টিকিট বিক্রি হবে না।

ট্রেন লাইনে পাথর ছিটানোর কাজ করা মিরাজ নামে একজন বলেন, আমরা নিয়মিতই লাইনের কাজ করি। কাল থেকে ট্রেন চলবে কি-না সে বিষয়ে আমাদের কিছু জানা নেই। নিয়মিত কাজের অংশ হিসেবেই আমরা কাজ করছি।

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের প্ল্যাটফর্ম এ দাঁড়িয়ে থাকা ট্রেনগুলো ঘুরে ঘুরে দেখে এসি বগির তথ্য সংগ্রহ করা এক কর্মকর্তা বলেন, ঢাকায় কী পরিমাণ ট্রেনের এসি বগি আছে স্যার আমাদের সেই তথ্য সংগ্রহ করতে বলেছেন। সেজন্যই আমরা এসি বগির তথ্য সংগ্রহ করছি। ট্রেন কবে থেকে চলবে সে বিষয়ে আমরা কিছু বলতে পারবো না।

প্রধান রেলযান পরীক্ষক (ঊর্ধ্বতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী) মো. ছামিউল হক বলেন, ট্রেন চলাচলের বিষয়ে এখনো কোনো নির্দেশনা আমরা পাইনি। তবে আমাদের সব প্রস্তুতি নেয়া আছে। নির্দেশনা পেলে যেকোনো সময় আমরা ট্রেন চালু করতে পারবো।

যদি নির্দেশনা রাতে আসে তাহলে আপনারা কখন থেকে ট্রেন চালাতে পারবেন? এমন প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, রাতে নির্দেশনা আসলেও ট্রেন চালু করতে আমাদের কোনো সমস্যা হবে না। নির্দেশনা পাওয়ার দুই ঘণ্টার মধ্যে ট্রেন ধুয়ে আমরা চলাচলের উপযোগী করে তুলতে পারবো। তাছাড়া ট্রেন লাইনসহ অন্যান্য সব কাজই সম্পন্ন আছে।

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন প্ল্যাটফর্ম মাস্টার অপু বলেন, সরকার ট্রেন চলাচলের নির্দেশনা দিয়েছে বলে আমরা শুনছি। তবে এ সংক্রান্ত লিখিত কোনো নির্দেশনা এখন আমরা পাইনি। নির্দেশনা পেলে তারপর আমরা ট্রেন চলাচল শুরু করবো।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বাড়তে থাকায় গত ৫ এপ্রিল সকাল ৬টা থেকে বিধিনিষেধ শুরু হয়েছে। তখন থেকেই দূরপাল্লার বাস, লঞ্চ ও ট্রেন বন্ধ।

পরে গত ১৪ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে আটদিনের কঠোর লকডাউন শুরু হয়। লকডাউনের মধ্যে পালনের জন্য ১৩টি নির্দেশনা দেয়া হয় সরকারের পক্ষ থেকে। পরে চার দফা লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হয়। সে সময় বিধিনিষেধের শর্তেও নানা পরিবর্তন আনা হয়। সেই মেয়াদ শেষ হবে আজ রোববার মধ্যরাতে।