সোমবার | ৬ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

বিজয় ‘বাধ্যতামূলক’ হলেও অন্য কি-বোর্ডে বাধা নেই

প্রকাশিত : জানুয়ারি ২০, ২০২৩




জার্নাল ডেস্ক ॥ স্মার্টফোনে বিজয় কি-বোর্ড ইনস্টল করে বাজারজাত করা বাধ্যতামূলক বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি) এমন নির্দেশনা দিলেও গ্রাহকরা বাংলা লেখার অন্য সফটওয়্যারগুলোও ব্যবহার করতে পারবেন। তথ্যপ্রযুক্তিবিদরা এমনটাই বলছেন।

তবে তথ্যপ্রযুক্তিবিদরা একটি বেসরকারি কোম্পানির সফটওয়্যারকে ‘বাধ্যতামূলক’ করায় আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন যে ভবিষ্যতে অন্য কোম্পানিগুলোও তাদের প্রোডাক্টের পক্ষে এমন সরকারি নির্দেশনা দাবি করতে পারেন। এ ছাড়া যেসব তরুণ ওপেন সোর্স সফটওয়্যার ডেভেলপ করে তারাও নিরুৎসাহিত হতে পারে।

বেশ কয়েকজন তথ্যপ্রযুক্তিবিদ নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, বিটিআরসির নির্দেশনা সত্ত্বেও ব্যবহারকারীরা চাইলেই প্লে স্টোর থেকে বাংলা লেখার অন্যান্য কি-বোর্ড ইনস্টল করতে পারবেন এবং সেগুলো ব্যবহার করতে পারবেন।

বিজয় সফটওয়্যার ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের মালিকানাধীন। মন্ত্রী নিজেও বলছেন, এটা তো লক করা হচ্ছে না, যে গ্রাহকদের বাধ্যতামূলক এটাই ব্যবহার করতে হবে।

তথ্যপ্রযুক্তিবিদরা বলছেন, বিজয় কি-বোর্ড বিনামূল্যে ব্যবহার করা যায় এবং এটা ভালো। তবে এর চেয়েও ইউজারফ্রেন্ডলি সফটওয়্যার আছে যেগুলো অনেকেই ব্যবহার করেন। এখনো অনেকে ফোনেটিক্সের মাধ্যমে বাংলা টাইপ করেন।

তবে বিটিআরসি’র এমন নির্দেশনা নিয়ে অনেকেই আশঙ্কা প্রকাশ করে বলছেন, এর মাধ্যমে গোপনে ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য নেওয়া হবে কি না।

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার একটি আন্তর্জাতিক মাধ্যমকে বলেছেন, এখানে কোনো স্বার্থের দ্বন্দ্ব নেই। আমি তো এখান থেকে টাকা নিচ্ছি না।

এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী আরও বলেন, এই কি-বোর্ডকে সরকার স্ট্যান্ডার্ড হিসেবে নির্দেশনা দিয়েছে। এটা লক করেও দেওয়া হচ্ছে না। যদি লক করে দেওয়া হতো তাহলে বলতে পারতেন যে এটা বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। এটা একটা বিকল্প মাত্র।

সম্প্রতি স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত এবং আমদানি করা সব ধরনের স্মার্ট ফোনে বিজয় বাংলা কি-বোর্ড সংযুক্ত করার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

এই সফটওয়্যার ইনস্টল করা না থাকলে কোনো মোবাইল উৎপাদনকারী বা আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান তাদের মোবাইল ফোন বাজারজাত করতে পারবে না।

চিঠিতে বিটিআরসি বলেছে, বিটিআরসির স্পেকট্রাম বিভাগ থেকে বিনামূল্যে এই অ্যান্ড্রয়েড প্যাকেজ কিট (এপিকে) পাওয়া যাবে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে মোবাইল ফোন আমদানি বা প্রস্তুত করার জন্য বিটিআরসির অনুমোদন লাগে।

আজকের সর্বশেষ সব খবর