শনিবার | ২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে আওয়ামীলীগ নোংড়া রাজনীতি করছে: জি কে গউছ

প্রকাশিত : মার্চ ১০, ২০২৩




স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন- সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে আওয়ামীলীগ নোংড়া রাজনীতি করছে। উন্নত চিকিৎসার সুযোগ না দিয়ে খালেদা জিয়াকে জিম্মি করে বিএনপিকে পাতানো নির্বাচনে নিতে চায়। যা বাংলাদেশের মানুষ ভালোভাবে নেয়নি। বাংলাদেশে সুষ্ঠ রাজনীতির ধারা অব্যাহত রাখতে হলে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি সরকারকে নিশ্চিত করতে হবে, মানুষের ভোটের অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে। অন্যতায় বাংলাদেশের গণতন্ত্র বিপন্ন হলে দায়িত্ব সরকারকেই নিতে হবে।

তিনি গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে হবিগঞ্জ পৌর এলাকার ২নং ওয়ার্ড বিএনপির উদ্যোগে উঠান বৈঠকে এসব কথা বলেন।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার স্থায়ী মুক্তি, গ্যাস বিদ্যুৎ ও দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে এবং বিএনপির ১০ দফা বাস্তবায়নের দাবীতে এই উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

জি কে গউছ আরও বলেন- এই অঞ্চলের মানুষের নিকট আমি আজীবন ঋণি হয়ে থাকবো। এই গরুর বাজার স্কুল সেন্টারের পর পর তিনবার আমি এই অঞ্চলের মানুষের ভোটে নির্বাচিত হয়েছি। আমি পৌরসভার মেয়রের দায়িত্ব নেয়ার পর মাত্র ২ বছর আমার দল বিএনপি রাষ্ট ক্ষমতায় ছিল। আমি তৎকালিন অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমানের সহযোগীতায়, তৎকালিন প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিশেষ বরাদ্ধে কামড়াপুর থেকে নছরতপুর পর্যন্ত রেলটেকের উপর বাইপাস সড়ক নির্মাণ করেছিলাম। খোয়াই নদীর উপর কামড়াপুর ব্রীজ ও এম এ রব ব্রীজ নির্মাণ করেছিলাম। যার সুফল হবিগঞ্জের মানুষ ভোগ করছেন। আমি উন্নয়নের মাধ্যমে অবহেলিত হবিগঞ্জ পৌরসভার মানচিত্র পাল্টে দিয়েছি। হবিগঞ্জ পৌরসভাকে একটি মডেল পৌরসভায় রূপান্তর করেছি। যার প্রতিদান পৌরবাসী আমাকে দিয়েছেন। তিনি বলেন- হবিগঞ্জের মানুষ আমাকে ভালোবাসে। আমার প্রতিটি দুঃসময়ে হবিগঞ্জের মানুষ আমার পাশে দাঁড়িয়েছে। আমাকে আজীবন কারাগারে রাখতে হত্যা মামলার আসামী করা হয়েছে। আমাকে হত্যা করতে কারাগারে আমাকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। কিন্তু হবিগঞ্জের মানুষ আমাকে ভুলে যায়নি। আমার উপর যে অত্যাচার-নির্যাতন করা হয়েছে তার প্রতিবাদ সরুপ দল ও ধর্ধের উর্ধ্বে উঠে পৌরবাসী আমাকে ৩ বার মেয়র নির্বাচিত করেছে। সিলেট কারাগার থেকে নৌকার প্রার্থীকে পরাজিত করে মেয়র হয়েছি। এ জন্য হবিগঞ্জ পৌরবাসীর নিকট আমার কৃতজ্ঞতার শেষ নেই। কোনো ষড়যন্ত্র করে আমাকে জনগণ থেকে পৃথক করা যাবে না। যতদিন বেচেঁ থাকবো মানুষের কল্যাণে কাজ করবো, নিজেকে জনসেবায় নিয়োজিত রাখবো, ইনশাআল্লাহ। জি কে গউছ আরও বলেন- সরকারের ব্যর্থতার কারণে বারবার বিদ্যুতের দাম বাড়ছে। আওয়ামীলীগ নেতাদের লাগামহীন দূর্নীতির কারণে বাজার নিয়ন্ত্রহীন। আকাশচুম্বি দ্রব্যমূল্যের কারণে দেশের মানুষ দিশেহারা। পবিত্র রমজান মাস আমাদের দরজায় কড়া নাড়ছে। মানুষের কপালে চিন্তার ভাজ পড়েছে। বার বার গ্যাসের দাম বাড়ছে, বিদ্যুতের দাম বাড়ছে, নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে। কিন্তু সরকারের কোনো ভ্রুক্ষেপ নেই। বিনাভোটের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেগুনীর পরিবর্তে কুমড়া খেতে বলছেন, তেল কম খেতে বলছেন, পিয়াজ ছাড়া তরকারী খেতে পরামর্শ দিয়েছেন, তিনি জাতির সাথে উপহাস করছেন। এই অবস্থায় দেশ চলতে পারে না। সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। দেশের মানুষকে বাঁচাতে হলে, দেশের গণতন্ত্র রক্ষা করতে হলে, মানুষের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হলে আওয়ামীলীগের পতন নিশ্চিত করতে হবে, জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। আর জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হলে আওয়ামীলীগের কবল থেকে দেশকে মুক্ত করতে হবে। ইনশাআল্লাহ, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার হাত ধরেই বাংলাদেশে আবারও জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করা হবে।

২নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি হাজী শফিক উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আক্কাস আলী পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মিজানুর রহমান চৌধুরী, এডভোকেট হাজী নুরুল ইসলাম, মহিবুল ইসলাম শাহিন, সদর উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আজিজুর রহমান কাজল, পৌর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক তাজুল ইসলাম চৌধুরী ফরিদ, এডভোকেট আফজাল হোসেন, নাজমুল হোসেন বাচ্চু, আব্বাস উদ্দিন, আব্দুর রউফ, মর্তুজা আহমেদ রিপন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি জহিরুল হক শরীফ, জেলা মহিলাদলের সভাপতি এডভোকেট ফাতেমা ইয়াসমিন, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দা লাভলী সুলতানা, জেলা যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সফিকুর রহমান সিতু, মামুনুর রশিদ খান, দেওয়ান মোহাইমিন চৌধুরী ফুয়াদ, বিএনপি নেতা লিটন আহমেদ, দুদু মিয়া, নজরুল ইসলাম কাওছার, সিরাজুল ইসলাম জীবন, শাহিদ মিযা, শাহ মুশলিম, আব্দুর রউফ মোল্লা, মেরাজ হোসেন, মামুন আহমেদ, সিরাজুল ইসলাম, আব্দুল হান্নান, গোলাপ খান, আরিছ মিয়া, ইলিয়াছ আহমেদ ওয়াহিদ, কাজল মিয়া, সৈয়দ রুহেব হোসেন, আল আমিন তালুকদার, আব্দুল কাইয়ুম, শাহীন আলম, শাহজাহান মিযা, মোঃ আজিজুল ইসলাম হৃদয়, জাকির হোসেন রানা, ফয়জুল ইসলাম ইব্রাহিম, মোঃ রকি, লিংকন, জীবন মিয়া, শংকর বনিক, রাখাল সরকার, বরণ সরকার প্রমুখ।

 

আজকের সর্বশেষ সব খবর