রবিবার | ২৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

ভাস্কর্য ভাঙচুকারীদের পায়ের নিচে পড়ে ক্ষমা চাইতে-কৃষিমন্ত্রী

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ২০, ২০২০




জার্নাল ডেস্ক : ভাস্কর্য ভাঙচুকারীদের পায়ের নিচে পড়ে ক্ষমা চাইতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক। রোববার (২০ ডিসেম্বর) রাজধানীর মানিক মিয়া অ্যাভিনিউতে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুরের প্রতিবাদে আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য ভাঙচুকারীদের বাংলাদেশের মাটি থেকে সমূলে উৎপাটন করা হবে। বাংলার মাটিতে পরাজিত পাকিস্তানিদের দোসররা আর কখনো মাথা তুলে দাঁড়াতে পারবে না।

তিনি বলেন, যারা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভেঙেছে, তাদেরকে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের মতো মোকাবিলা করে আবার পরাজিত করব। তাদেরকে আমাদের পায়ের নিচে পড়ে ক্ষমা চাইতে হবে।

ভাস্কর্য আর মূর্তি এক নয় উল্লেখ করে কৃষিমন্ত্রী বলেন, ভাস্কর্যের নান্দনিক দিক রয়েছে। এটি শিল্প। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য নির্মাণ করা হচ্ছে, যাতে করে তার আদর্শ ও চেতনাকে এ দেশের ভবিষ্যৎ বা আগামী প্রজন্মের কাছে তুলে ধরা যায়। ভাস্কর্য হচ্ছে স্মৃতিচিহ্ন বা স্মারক। এর মাধ্যমে ভবিষ্যত প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার চেতনায় উদ্বুদ্ধ হবে এবং মানবপ্রেমে ও মানবসেবায় ব্রতী হবে।

তিনি বলেন, আজকে যারা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভেঙেছে এবং যারা উস্কানি দিয়েছে, তারা এটি সুপরিকল্পিতভাবে করেছেন। এই স্বাধীনতাবিরোধী পরাজিত শক্তি দেশিয়-আন্তর্জাতিক ঘাতকচক্রের যোগসাজশে ১৯৭৫ সালে সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিলো।

ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু বাঙালি জাতীয়তাবাদ এবং ন্যায়-সমতার ভিত্তিতে একটি অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থা গড়তে চেয়েছিলেন। ঠিক সেই সময়ে ঘাতকচক্র বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে হত্যা করতে চেয়েছিলো। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, দর্শন ও চেতনাকে চিরতরে মুছে ফেলতে চেয়েছিলো। পরাজিত এই ধর্মান্ধগোষ্ঠী ১৯৭৫-এরপর থেকে ২১ বছর ধরে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আদর্শকে সুপরিকল্পিতভাবে ধ্বংস করেছে।

আজকের সর্বশেষ সব খবর