মঙ্গলবার | ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

‘মদের কারণে পরীমনিকে ধরা হলে অনেক মন্ত্রী-মিনিস্টারকেও গ্রেপ্তার করা উচিত’

প্রকাশিত : আগস্ট ২৮, ২০২১




জার্নাল ডেস্ক ॥ মদের কারণে যদি পরীমনিকে গ্রেপ্তার করা হয়, তাহলে অনেক মন্ত্রী মিনিস্টারকেও তো ধরতে হবে। শুধু মদের কারণে পরীমনি গ্রেপ্তার হয়নি। তাকে অন্য কারণে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এমন মন্তব্য করেছেন অর্থনীতিবিদ ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক আনু মোহাম্মদ।

‘নারীর বিরুদ্ধে মোরাল পুলিশিং, গণমাধ্যমের অসংবেদনশীলতা এবং আইন ও বিচার বিভাগের পক্ষপাতিত্বের বিরুদ্ধে আমরা’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে এ কথা বলেন তিনি। শনিবার (২৮ আগস্ট) রাজধানীর পল্টনে জাতীয় প্রেস ক্লাবে মানবাধিকার সংগঠন স্ফুলিঙ্গের আয়োজনে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়।

আনু মোহাম্মদ বলেন, দেশে এখন আইন চলে ক্ষমতার ইশারায়। যেখানে ক্ষমতা আছে, সেখানে আইন চলে, ক্ষমতা না থাকলে আইন চলে না। আইন-আদালত বলতে কোনো কিছু এখন দেশে নেই। আমরা দেখলাম, পরীমনির জামিন আবেদনের শুনানিই হচ্ছে না। আর ক্ষমতাধরেরা মামলা থেকে খালাস পেয়ে যাচ্ছেন। মোশতাকের বেলাতেও আমরা দেখেছিলাম কেবলমাত্র একটা লেখার জন্য দিনের পর দিন তাকে বন্দী থাকতে হয়েছে। জামিন আবেদন নাকচ হয়েছে। অবশেষে তো তাকে মরেই যেতে হলো। অথচ বসুন্ধরা গ্রুপের আনভীর আহমেদ মুনিয়া মৃত্যু মামলা থেকে খালাস পান। এস আলম গ্রুপের জায়গায় ১২ জনকে খুন করা হলো, পুলিশ সেই মামলাই নিল না।

আইনজীবী সুলতানা আক্তার রুবি বলেন, রাষ্ট্র এবং অত্যাচারীর পক্ষে আর জনগণের বিপক্ষে। কথায় আছে রাজায় রাজায় যুদ্ধ হয়, উলুখাগড়ার জীবন যায়। পরীমণিকে আমার সেরকম উলুখাগড়ার মতোই মনে হচ্ছে।

বৈঠক চলাকালীন অনলাইন মাধ্যমে যুক্ত হয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উইমেন অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক সানজিদা নীরা জানান, গণমাধ্যম এবং বিজ্ঞাপনগুলো তাদের কাটতি বাড়াতে নারীদের নিয়ে এই ধরণের অসংবেদনশীল সংবাদ পরিবেশন করে। নারীকে এভাবে উপস্থাপন না করেও যে গণমাধ্যম চলতে পারে এই ধারণায় আসতে হবে।

বক্তারা বলেন, নারী সহিংসতার শিকার হোক বা নারী অভিযুক্ত হোক প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে গণমাধ্যমগুলোতে সংবাদ পরিবেশনের নামে নারীর ব্যক্তিগত জীবনকে নষ্ট করার প্রবণতা দেখা যায়। অন্যদিকে নারীর বিরুদ্ধে এই সমাজ রীতিনীতি অলিখিতভাবে তৈরি করে রেখেছে যার জন্য তাঁর নাগরিক অধিকার এবং মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে।

বৈঠকে স্ফুলিঙ্গ জানায়, বিগত বছরগুলোতে বিভিন্ন ঘটনায় দেখা যাচ্ছে যে- নারীর বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মোরাল পুলিশিং এবং গণমাধ্যমে নারীর ব্যক্তিগত জীবনকে উন্মুক্ত করে কেলেঙ্কারিকরণের সংবাদ প্রচার করে সমাজের প্রচলিত পুরুষতান্ত্রিক জনমতকে প্রতিষ্ঠিত করা হয় এবং তাকে কাজে লাগিয়ে রাষ্ট্রীয় প্রভাবশালীদের অপরাধকে আড়াল করার চেষ্টা করা হয়। এর পাশাপাশি বিচারবিভাগের বিশেষ ক্ষমতাশীল গোষ্ঠীর প্রতি পক্ষপাতিত্ব এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কর্তৃক আইনের অপব্যবহার করে নারীদের নাগরিক অধিকার ক্ষুণ্ণ করার বিষয়টি প্রায়শই পরিলক্ষিত হচ্ছে। স্ফুলিঙ্গ মনে করে, একটি রাষ্ট্র এবং তার প্রতিষ্ঠানসমূহের দীর্ঘদিনের অগণতান্ত্রিক এবং পুরুষতান্ত্রিক চর্চাই নারীর বিরুদ্ধে এই অন্যায্যতা তৈরি করছে।

গোলটেবিল বৈঠকে নারীর বিরুদ্ধে মোরাল পুলিশিং, গণমাধ্যমের অসংবেদনশীলতা এবং আইন ও বিচার বিভাগে পক্ষপাতিত্বের বিরুদ্ধে স্ফুলিঙ্গের পক্ষ থেকে ৮ দফা দাবি জানানো হয়। দাবিগুলো হচ্ছে- গণমাধ্যমকে মুক্ত এবং স্বাধীন করতে হবে, আইনের অপব্যবহার করে নাগরিকের ব্যক্তি-পরিসরে ঢুকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কর্তৃক নাগরিক অধিকার ক্ষুণ্ণ করা বন্ধ করতে হবে, প্রতিটি গণমাধ্যম এবং রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে নারীর বিরুদ্ধে অসংবেদনশীল আচরণ, শব্দ চয়ন এবং ছবি ব্যবহার বন্ধ করতে হবে, গণমাধ্যমে নারীর বিরুদ্ধে অসংবেদনশীল সংবাদ পরিবেশন, শব্দ চয়ন এবং ছবি ব্যবহারের ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট নীতিমালা থাকতে হবে এবং তা বাস্তবায়ন করতে হবে, প্রতিটি সাংবাদিক এবং গণমাধ্যমকর্মীদের উল্লেখিত নীতিমালা বিষয়ে অবগত করতে হবে এবং জেন্ডার সংবেদনশীলতার প্রশিক্ষণ দিতে হবে, নারীর বিরুদ্ধে সমাজের প্রচলিত মোরাল পুলিশিং এর বিরুদ্ধে গণমাধ্যমকে সোচ্চার থাকতে হবে, নারীর সহিংসতা সংক্রান্ত অভিযোগ স্বাধীনভাবে তদন্ত করতে হবে। এসকল অভিযোগে তদন্ত না করে অভিযুক্তকে আইনি প্রক্রিয়া থেকে অব্যাহতি দেওয়া যাবে না, বিচার বিভাগকে স্বাধীন এবং নিরপেক্ষ করতে হবে।

গোলটেবিল বৈঠকে আলোচক হিসেবে যুক্ত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ এবং সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক গীতি আরা নাসরিন, বাংলাদেশ যুব ইউনিয়নের সম্পাদক খান আসাদুজ্জামান মাসুম, নারী মুক্তি কেন্দ্রের ঢাকা নগরের সভাপতি তাসলিমা বিউটি, বিপ্লবী নারী ফোরাম ঢাকা নগরের সদস্য আমেনা আক্তার, আইনজীবী তাসমিয়াহ নুহাইয়া আল আমিন, কথাসাহিত্যিক নুরন্নবী শান্ত, কবি ও সাংবাদিক রহমান মুফিজ, উন্নয়নকর্মী ফেরদৌস আরা রুমী। গোলটেবিল বৈঠকের শুরুতেই উল্লেখিত কর্মসূচির অবস্থানপত্র পাঠ করেন স্ফুলিঙ্গের সদস্য পূরবী তালুকদার। বৈঠকটি সঞ্চালনা করে স্ফুলিঙ্গের সদস্য মোশফেকা আরা শিমুল এবং ইশরাত জাহান উর্মি।