শুক্রবার | ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

মহান স্বাধীনতার মূল চেতনা গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে আওয়ামীলীগ: জি কে গউছ

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ১৭, ২০২১




স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন- দেশের স্বাধীনতা ও বিজয় দিবসের মূল চেতনাই হচ্ছে গণতন্ত্র। যে চেতনা ও আদর্শকে বুকে ধারণ করে দেশের মানুষ মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের সেই চেতনা ও আদর্শ ভুলুণ্ঠিত হয়েছে। দেশের গণতন্ত্রকে আওয়ামীলীগ হত্যা করে একদলীয় শাসন কায়েম করেছে। দেশে আজ আইনের শাসন নেই, মানুষের মৌলিক অধিকার নেই, জানমালের নিরাপত্তা নেই, বাক-স্বাধীনতা নেই। এই অবস্থায় একটি স্বাধীন দেশ চলতে পারে না। তাই মানুষ আওয়ামীলীগ সরকারের দুঃশাসন থেকে মুক্তি চায়, মানুষ পরিবর্তনের পক্ষে, মানুষ বিএনপির পক্ষে।তিনি গত ১৬ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার বিকালে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির এক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন।

সভায় জি কে গউছ বলেন- বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের রয়েছে গৌরোবজ্জল ইতিহাস। তিনি এদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা দিয়েছেন, তিনি একজন সেক্টর কমান্ডার, বীর মুক্তিযোদ্ধা। দেশ স্বাধীনের পর শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানকে বীর উত্তম উপাধি দেয়া হয়েছে। স্বাধীনতার পর আওয়ামীলীগ গণতন্ত্র হত্যা করে বাকশাল কায়েম করেছিল। কিন্তু শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রবর্তন করে আবার গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ২০০৯ সালে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় এসে আবারও গণতন্ত্র হত্যা করে একদলীয় শাসন কায়েম করেছে, মানুষের ভোটাধিকার কেরে নিয়েছে, মানুষের মৌলিক অধিকার হরণ করেছে। আমাদের নতুন প্রজন্মকে এই ইতিহাস জানাতে হবে।

তিনি বলেন- প্রশাসনের উপর নির্ভর করে পৃথিবীর কোন স্বৈরশাসক ক্ষমতায় থাকতে পারেনি, আওয়ামীলীগও পারবে না। জনগণ তাদের নিকট থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। লাগামহীন দুর্নীতি আর দুঃশাসনের মাধ্যমে আওয়ামীলীগ জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। তাই ক্ষমতা হারানোর ভয়ে বিএনপিকে রাজপথে নামতে দেয় না আওয়ামীলীগ। বিএনপি কোন কর্মসূচী ঘোষণা দিলেই পুলিশ লেলিয়ে দিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে গায়েবী মামলা দেয়া হয়, গণগ্রেফতার করা হয়। এই দমন পিড়ন করে বিএনপিকে রাজপথ থেকে সড়ানো যাবে না। মামলা-হামলার ভয়কে উপেক্ষা করেই বিএনপি নেতাকর্মীরা রাজনীতি করে।

জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবুল হাশিমের সভাপতিত্বে এবং যুগ্ম আহ্বায়ক মিজানুর রহমান চৌধুরী ও সদস্য তাজুল ইসলাম চৌধুরী ফরিদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন- জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি সফিকুর রহমান চৌধুরী ফারছু, গোলাম মোস্তফা রফিক, সাবেক সভাপতি এডভোকেট শামছু মিয়া চৌধুরী, এডভোকেট মঞ্জুর উদ্দিন শাহীন, এডভোকেট হাজী নুরুল ইসলাম, হাজী এনামুল হক, এডভোকেট এনামুল হক সেলিম, এডভোকেট আব্দুল হাই প্রমুখ।

হবিগঞ্জ পৌর বিএনপি ঃ হবিগঞ্জ পৌর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল ইসলাম নানু, যুগ্ম আহ্বায়ক নাজমুল হোসেন বাচ্চু, আলাউদ্দিন মিয়া, এস এম আব্দুল আওয়াল, মর্তুজা আহমেদ রিপন, মুজিবুর রহমান মুজিব, মিজানুর রহমান লাল, কামাল খান, সাহেদ আলী, মামুন মিয়া, সিরাজুল ইসলাম, খোকন সাই ধনু, আনোয়ার আলী, আনিসুজ্জামান জেবু, জহিরুল হক সজল, আবুল হোসেন, ফকির নেওয়াজ, ছঞ্চল দাস, আব্দুর রাজ্জাক চৌধুরী বকুল, সৈয়দ হেলাল, আকবর হোসেন, আব্দুল মজিদ, রুহুল আমিন, আলী আকবর, দেওয়ান মোহাইমিন চৌধুরী ফুয়াদ, জয়নাল আবেদিন, শায়েল আহমেদ, লালন মিযা, মনিরুল ইসলাম লিটন, তৌফিক মিয়া, আনোয়ার হোসেন আনু, আব্দুস সালাম, আলী আমজাদ, আলকাছ মিয়া, গাজী রিপন, আব্দুল খালেক, আজিজুর রহমান মিজান, ইকবাল হোসেন প্রমুখ।

সদর উপজেলা বিএনপি ঃ সদর উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আজিজুর রহমান কাজল, যুগ্ম আহ্বায়ক আজম উদ্দিন, এডভোকেট আফজাল হোসেন, জব্বার খান, হাজী আব্দুল মতিন, ফরিদ মিয়া, ফারুক মিয়া, আব্দুস শহিদ, শোয়েবুর রহমান, আব্দুস সোবহান, শাহীন মিয়া, আব্দুর রাজ্জাক, আব্দুল কাদির, রফিকুল ইসলাম বিপ্লব, আকিকুল ইসলাম বকুল, আব্দুল মতিন মেম্বার, হেলাল আহমেদ, ফরিদ মিয়া, জয়নাল আবেদীন প্রমুখ।

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা বিএনপি ঃ শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা বিএনপি সভাপতি গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী বেলাল, সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের, সহ সভাপতি নিজাম উদ্দিন বেলাল, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্বাস উদ্দিন তালুকদার, যুগ্ম সম্পাদক নিজাম উদ্দিন আহমেদ মোহন প্রমুখ।
যুবদল ঃ জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সফিকুর রহমান সিতু, এডভোকেট গুলজার খান, রবিউল আলম রবি, আরব আলী, নজরুল ইসলাম কাওছার, টিপু আহমেদ, মালেম শাহ, মিজানুর রহমান সুমন, জি এম নুরুল হক, আক্তার হোসেন, এম ডি দুলাল প্রমুখ।
আইনজীবি ফোরাম ঃ আইনজীবি ফোরামের সভাপতি এডভোকেট আবুল ফজল, এডভোকেট মোঃ ইলিয়াছ, এডভোকেট আয়াতুল ইসলাম, এডভোকেট মতিউর রহমান সানু প্রমুখ।

শ্রমিকদল ঃ জেলা শ্রমিকদলের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট এস এম বজলুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রতন আনসারী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সোহেল এ চৌধুরী, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক তুহিন খান, আব্দুল কাইয়ুম প্রমুখ।
স্বেচ্ছাসেবক দল ঃ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি জহিরুল হক শরীফ, এডভোকেট আব্দুল কাইয়ুম, এডভোকেট শাহ আঙ্গুর আলী, এমদাদুল হক বাবুল, আজিজুর রহমান বাবলু, শহিদুল আলম চৌধুরী আকিক, শেখ মুখলিছুর রহমান, আব্দুল আহাদ আনসারী, আজিজুল ইসলাম, শিশু মিয়া, তোফাজ্জুল হোসেন, সাইদুর রহমান, জুবেদ আহমেদ প্রমুখ।
কৃষক দল ঃ জেলা কৃষক দলের সদস্য সচিব মহিজুর রহমান বাচ্চু, যুগ্ম আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম, মফিজ মিয়া, পৌর কৃষকদলের সভাপতি আশরাফুল আলম সবুজ, সাহাব উদ্দিন।

ছাত্রদল ঃ জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম হাফিজুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ রাজীব আহমেদ রিংগন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইফল ইসলাম রকি, শাহ আলম হোসাইন, গোলাম মাহবুব, ইকবাল আহমেদ চৌধুরী, নাজমুল হোসেন অনি, সৈয়দ আশরাফ আহমেদ, মোবারক হোসেন সোহেল, ফজলে রাব্বী, মতিউর রহমান টিপু, গোলাম আজম ওয়াক্কি, আশিকুল ইসলাম ইমন, মোশাররফ হোসেন রনি, সাজিদুল হক, নুরুল আমিন, জামাল মিয়া, আশরাফুল ইসলাম রাখি, আজিজুর রহমান শিমুল, সৈয়দ জুবায়েল শিহাব, এস এম বাইজিদ প্রমুখ।

মৎস্যজীবি দল ঃ জেলা মৎস্যজীবি দলের সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমেদ, সফিক মিয়া, তাজুল ইসলাম, তাহির উদ্দিন, শামরাজ মিযা, ইউসুফ মিয়া প্রমুখ।
জাসাস ঃ জেলা জাসাসের সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমেদ।

মহিলা দল ঃ জেলা মহিলাদলের সভাপতি এডভোকেট ফাতেমা ইয়াসমিন, সিনিয়র সহ সভাপতি নুরজাহান বেগম, মায়া বেগম, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দা লাভলী সুলতানা, সাংগঠনিক সম্পাদক সুরাইয়া খানম রাখি, আইরিন আক্তার, ফাতেমা বেগম, শামীমা আক্তার, সালমা বেগম, রঙ্গিলা খাতুন, লিপি আক্তার, হেনা আক্তার প্রমুখ।

আজকের সর্বশেষ সব খবর