শনিবার | ১লা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

মাধবপুরে সকল স্বাস্থ্যবিধি মেনে পবিত্র আশুরা পালিত

প্রকাশিত : আগস্ট ২০, ২০২১




শেখ ইমন আহমেদ, মাধবপুর থেকে ॥ হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলায় শুক্রবার (২০ই আগষ্ট) করোনাকালীন সময়ে সকল স্বাস্থ্যবিধি মেনে পালিত হয়েছে পবিত্র আশুরা। কারবালার শোকাবহ ও হৃদয়বিদারক ঘটনার এই দিনটি ধর্মীয়ভাবে বিশ্বের মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের কাছে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। মুসলিম বিশ্বে ত্যাগ ও শোকের প্রতীক হিসেবে এ দিনটি বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ পবিত্রতম দিবস।

মাধবপুরে প্রতিটি ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে পবিত্র আশুরা যথাযোগ্য মর্যাদায় ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে সংক্ষিপ্ত কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিনটি পালন করা হয়েছে।

পবিত্র আশুরা উপলক্ষে মাধবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ মঈনুল ইসলাম মঈন জানান, পবিত্র আশুরা অত্যন্ত শোকাবহ, তাৎপর্যপূর্ণ ও মহিমান্বিত একটি দিন। বিভিন্ন কারণে এ দিনটি বিশ্বের মুসলমানদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং পবিত্র ভাবগাম্ভীর্যপূর্ণ।

তিনি আরো বলেন, আমরা এক সংকটময় সময়ে আশুরা পালন করেছি। করোনাভাইরাস সমগ্র বিশ্বকে স্থবির করে দিয়েছে। আল্লাহ বিপদে মানুষের ধৈর্য পরীক্ষা করেন। এ সময় সবাইকে অসীম ধৈর্য নিয়ে সহনশীল ও সহানুভূতিশীল মনে একে অপরকে সাহায্য করে যেতে হবে।

বিদ্যমান করোনা পরিস্থিতিতে মাধবপুরে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে মাধবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক এর নেতৃত্বে থানা পুলিশের বিভিন্ন টিম।

উল্লেখিত বিষয়ে মাধবপুর উপজেলার ইসলামিক ফাউন্ডনের ইমাম জানান, ইসলামি পরিভাষায় মহররমের ১০ তারিখকে ‘আশুরা’ বলে। সৃষ্টির শুরু থেকে এ দিনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা সংঘটিত হয়েছে।

হিজরি ৬১ সালের এদিনে ফোরাত নদীর তীরে কারবালার প্রান্তরে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর দৌহিত্র ইমাম হোসাইন (রা.) ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা শহিদ হয়েছিলেন।সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার জন্য তাঁদের এই আত্মত্যাগ মানবতার ইতিহাসে সমুজ্জ্বল হয়ে আছে। কুরআন ও হাদিসের বর্ণনা মতে, এ দিনে মহান আল্লাহ তায়ালা প্রাণিকুল, আসমান-জমিন সৃষ্টি করেছেন। আবার এদিনেই তামাম মাখলুকাত ধ্বংস ও হবে। পৃথিবীতে নির্বাসনের পর এ দিনেই হযরত আদম (আ.) আরাফাত ময়দানে হযরত মা হাওয়ার সঙ্গে মিলিত হন। হযরত মুসা (আ.) ফেরাউনের জুলুম থেকে এই দিনে পরিত্রাণ লাভ করেছিলেন তার অনুসারীদের নিয়ে নীল নদ পার হয়ে। হযরত নূহ (আ.) সদলবলে মহা প্লাবন শেষে যুদী পাহাড়ে অবতরণ করে পৃথিবীকে নতুনভাবে সাজিয়ে তুলেন।

আজকের সর্বশেষ সব খবর