শনিবার | ১০ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

মামলা দিয়ে বিএনপিকে মাঠ ছাড়া করা যাবে না

প্রকাশিত : নভেম্বর ২৩, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন- মামলা দিয়ে বিএনপিকে মাঠ ছাড়া করা যাবে না। পুলিশের গায়েবী মামলা আর হামলার ভয়কে উপেক্ষা করেই আমরা রাজনীতি করি। পুলিশ জনগণের সেবক, জনগণের ট্যাক্সের টাকায় তাদের বেতন হয়। কিন্তু আওয়ামীলীগকে খুশি করার জন্য পুলিশ গুলি করে বিএনপির কর্মীদেরকে হত্যা করছে। সময় একদিন পরিবর্তন হবে, সেই দিন পুলিশের সকল অপকর্মের বিচার বাংলাদেশের মাটিতে হবে।

তিনি বুধবার বিকালে পূর্ব এড়ালিয়ায় সদর উপজেলার ৪নং পইল ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড বিএনপির উঠান বৈঠকে এসব কথা বলেন।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বিনাভোটের আওয়ামী সরকারের কবল থেকে মুক্তি ও জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার দাবিতে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় জি কে গউছ আরও বলেন- বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। তিনি আমাদের গর্ব, বাংলাদেশের অহংকার। খালেদা জিয়ার জীবনে কোনো নির্বাচনে পরাজয় বরণ করতে হয়নি। কিন্তু শেখ হাসিনা ৯১ সালে ঢাকায় বিএনপির সাদেক হোসেন খোকা ও বিএনপি নেতা মান্নানের নিকট বিপুল ভোটে পরাজয় বরণ করতে হয়েছিল। খালেদা জিয়ার এই জনপ্রিয়তায় প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে শেখ হাসিনা কোর্টকে কাজে লাগিয়ে মিথ্যা মামলা দিয়ে খালেদা জিয়াকে সাজা দিয়েছে, কারাবন্দি করেছে, গৃহবন্দি করে রেখেছে।

তিনি বলেন- বাংলাদেশের মানুষ ৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ করেছিল একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের জন্য, মানুষের ভোটের অধিকার, ভাতের অধিকার ও বেঁচে থাকার অধিকার নিশ্চিত করার জন্য। কিন্তু স্বাধীনতার ৫০ বছর পর এই আওয়ামীলীগ আবারও মানুষের ভোটের অধিকার, বেঁচে থাকার অধিকার কেড়ে নিয়েছে, দেশের গণতন্ত্র হরণ করেছে। আওয়ামীলীগের ভোট চুরি দেখার জন্য ৩০ লক্ষ মানুষ ৭১ সালে জীবন দেয়নি। তাই আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে আবারও দেশের মানুষকে জেগে উঠতে হবে। আওয়ামীলীগের সকল অপকর্মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে হবে। মানুষের ভোটের অধিকার নিশ্চিত করতে গণতন্ত্রের মুক্তির সংগ্রামে সকলকে ঝাপিয়ে পড়তে হবে।

১নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি মোস্তফা জামালের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন ও আব্দুল কাদিরের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক হাজী এনামুল হক, সদর উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আজিজুর রহমান কাজল, যুগ্ম আহ্বায়ক আজম উদ্দিন, এডভোকেট আফজাল হোসেন, হাজী আব্দুর রহিম, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সফিকুর রহমান সিতু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট গুলজার খান, নজরুল ইসলাম কাওছার, বিএনপি নেতা এস এম মানিক, সৈয়দ আজহারুল হক বাকু, শাহেদ আহমেদ রিপন, সাইদুর রহমান কুঠি, আব্দুর সোবহান, শোয়েব মাস্টার, মোস্তফা মিয়া, মাসুক মিয়া, শাহজাহান মিয়া, মারুফ উদ্দিন, আল আমিন, মোছাব্বির মিয়া, আবু বকর, আরিফ, কপিল, রায়হান, আবুল কালাম, ফয়মল আহমেদ, আব্দুল হামিদ, ফুল মিয়া, শামীম, শামছুল হক, তাজুল ইসলাম, মাইন উদ্দিন, সোহাগ মিয়া, আফসর মিয়া, রুয়েল, রমজান আলী, মোতলিব, সুয়েল, আজগর মিয়া, হারুন, নানু প্রমুখ।