সোমবার | ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

মিনিকেট নামে চাল বিক্রি করে প্রতারণা করা হচ্ছে

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২২




জার্নাল ডেস্ক ॥ মিনিকেট নামে কোনো ধান হয় না বাংলাদেশে, তাই মিনিকেট নামে কোনো চালও থাকার কথা নয়। অথচ বাজারে সবচেয়ে বেশি চাল বিক্রি হয় মিনিকেট নামেই। ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট থেকে সম্প্রতি ভোক্তা অধিদফতরকে চিঠি দিয়ে এ বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে। তা ছাড়া খাদ্য মন্ত্রণালয় থেকেও বিষয়টি আমাদের জানানো হয়েছে। তার পরিপ্রেক্ষিতে ভোক্তা অধিদফতর মিনিকেট চালের বিষয়ে খোঁজখবর নিতে মাঠে নামছে। জাতীয় ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক এএইচএম শফিকুজ্জামান এসব কথা বলেছেন।

তিনি আরও বলেন, ‘বিষয়টি যেহেতু খুবই স্পর্শকাতর সেহেতু কৃষি, খাদ্য ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট দফতরগুলোর সঙ্গে বিস্তর আলোচনা করে তবেই এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। শুধু তাই নয়, আমরা মিলমালিকদের সঙ্গেও বসব। কারণ মিনিকেট নামে চাল বিক্রি করে প্রতারণার ছক তৈরি করা হয়েছে। তবে মিনিকেট নামে চাল বিক্রি করে ভোক্তার সঙ্গে প্রতারণা করা হচ্ছে কি নাÑ সেটি গুরুত্বসহকারে যাচাই করা হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।’

শফিকুজ্জামান আরও বলেন, ‘খুচরা বাজারের চেয়ে একই ধরনের পণ্য প্যাকেটজাত করে অতিরিক্ত দামে বিক্রি করে বাড়তি টাকা তুলে নিচ্ছে করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো। এ বিষয়েও বাজারে জোরালো অভিযান চালানো হবে। শুধু তাই নয়, যেসব প্রতিষ্ঠান অতিরিক্ত দাম নিয়ে মানুষের পকেট খালি করছে সেসব প্রতিষ্ঠান গোয়েন্দা নজরদারিতে আছে বলেও তিনি জানান।’

মঙ্গলবার উৎপাদনকারী-সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ও সুপারশপের প্রতিনিধিদের সঙ্গে প্যাকেটজাত নিত্যপণ্যের (চাল, ডাল, আটা, ময়দা, চিনি, ডাল, লবণ ইত্যাদি) মূল্য বিষয়ে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন। অধিদফতরের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় বিভিন্ন কোম্পানির প্রতিনিধি এবং সুপারশপ মালিকদের সংগঠনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

মিনিকেট চালের বিষয়ে ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা বলেন, ‘মিনিকেট নামে চাল বিক্রি না করা গেলে কি নামে এ চাল বিক্রি করবে ব্যবসায়ীরা সে নাম ঠিক করে দিতে হবে সরকারকে। কোন প্রতিষ্ঠান কবে এ নাম ঠিক করবে সেগুলো আমাদের জানাতে হবে।’

সুপারশপের উচ্চ দামের প্রভাব পড়ছে খোলাবাজারে বলে জানিয়ে এএইচএম সফিকুজ্জামান বলেন, ‘খুচরা বাজারে সুপার শপগুলোর উচ্চ দামের প্রভাব পড়ছে। এ কারণে সুপারশপ মালিকদের দাম নিয়ে সতর্ক হতে হবে। সুপারশপগুলোতে প্যাকেটজাত পণ্যে অতি মুনাফা করা হচ্ছে। সুপারশপগুলো সর্বোচ্চ দামে প্যাকেটজাত পণ্য বিক্রি করে। সে ক্ষেত্রে খোলাবাজার থেকে দামের ব্যবধান কখনও কখনও ২০-৩০ শতাংশ হয়। সুপারশপে ১২০ টাকা কেজি দরে কেনা খোলা সুগন্ধি চাল প্যাকেটজাত করে ১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সেটি হতে পারে না। এক কেজি চালের দামে সর্বোচ্চ পাঁচ টাকা ব্যবধান হতে পারে। কিন্তু প্যাকেটজাতে অস্বাভাবিক মুনাফার কারণে দামের প্রভাব পড়ছে খোলাবাজারে।’

সভায় বলা হয়, ১ ডজন ডিমে ২৬ শতাংশ, খোলা চালে ২ শতাংশ আর প্যাকেটজাতে দাম বাড়ানো হয়েছে অন্তত ২৫ শতাংশ। বিভিন্ন প্যাকেটজাত পণ্যের দাম নির্ধারণ করে দিচ্ছে কোম্পানি। অথচ সুপারশপের খোলা চালের মূল্য নির্ধারণ করছে তারা নিজেরাই। এতে খোলাবাজারে প্রভাব পড়ছে। সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ থেকে বলা হয়, সুপারশপের ভাড়া, বিদ্যুৎ খরচ ও কর্মচারীদের বেতন বেড়েছে।
তিনি বলেন, ‘এর আগে আমরা যখন পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে মতবিনিময় সভা করেছি, তারা বলেছে, প্যাকেটজাত পণ্যের গায়ের দাম বাড়াতে চায় সুপারশপগুলো। সে কারণে পণ্যের গায়ের সর্বোচ্চ দাম বাড়িয়ে সরবরাহ করে কোম্পানিগুলো। ফলে দাম বৃদ্ধিতে তাদের হাত রয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘এ ব্যবধান কমাতে কাজ করা হবে। কত দামে পণ্য বিক্রি করা যাবে সেটা নির্ধারণ করা দরকার। এ ছাড়াও বিভিন্ন আমদানি পণ্য বাড়তি দামে বিক্রি করা হয় সুপারশপে। আমদানি পণ্যে যথাযথ তথ্য থাকে না। সেগুলো দেখা হবে এখন থেকে।’

এ সময় সুপারশপ মালিকরা খোলাবাজার থেকে তাদের পণ্যের দামের ব্যবধানের কারণ হিসেবে ৫ শতাংশ বাড়তি ট্যাক্স প্রদানের কথা উল্লেখ করেন। তারা ট্যাক্স প্রত্যাহারের অনুরোধ জানান। পাশাপাশি তারা দাম বাড়ানোর জন্য খুচরা ব্যবসায়ীদেরও দায়ী করেন।

তিনি বলেন, ‘বোরো ধানের ভরা মৌসুমে চালের দাম না কমার কারণে মিলমালিক থেকে খুচরা ব্যবসায়ীদের ডাকা হয়েছিল। তাদের নিয়ে সভা করা হয়েছে তখন জানা গেছে করপোরেটের হাতে মাত্র পাঁচ শতাংশ চাল মজুদ রয়েছে।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘বিভিন্ন কোম্পানি প্যাকেটজাত করে মূল্যবৃদ্ধি করছে। শুধু তাই নয়, করপোরেটগুলো মুড়ি-চানাচুরের ব্যবসা করছে। আইনে আছে কি না সে বিষয়ে শিল্প ও খাদ্য মন্ত্রণালয় দেখবে। ১৫০ টাকা কেজি চাল বিক্রি করা হচ্ছে। এটা খাদ্য মন্ত্রণালয় দেখবে। ভোক্তাদের স্বার্থেই এটা দেখতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমদানি করা পণ্যের কোনো মূল্য নেই, মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার তারিখ থাকবে না তা হতে পারে না। অবশ্যই আমদানিকারকের নাম, ঠিকানা, মূল্য ও মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার তারিখ উল্লেখ করতে হবে।

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘করপোরেট প্রতিষ্ঠানের ওপর সরকারের পুরো নিয়ন্ত্রণ আছে। তাই তো তাদের যা ইচ্ছা করতে দেওয়া হয় না, গোয়েন্দা সংস্থা প্রতিনিয়ত কাজ করছে। তেল সঙ্কটের সময় তার বাস্তব প্রমাণ। তাদের ডেকে এনে জানতে চাওয়া হয়েছে, কেন দাম বৃদ্ধি করা হচ্ছে। ভোক্তাদের স্বার্থের কোনো ব্যত্যয় ঘটলেই তাদের কাছে জানতে চাওয়া হচ্ছে।’

সিটি গ্রুপের পরিচালক বিশ্বজিৎ সাহা বলেন, ‘চিনির দাম নির্ধারণ করে সরকারের ট্যারিফ কমিশন। তাই একে অন্যকে দোষারোপ না করে সরকারকে এর দায়িত্ব নেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি। এ সময় অন্যদের মধ্যে ছিলেন, মেঘনা গ্রুপ, এসিআই লজিস্টিকসহ বিভিন্ন করপোরেট হাউসের কর্মকর্তারা।’

আজকের সর্বশেষ সব খবর