মঙ্গলবার | ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

রংপুরে পুলিশের চাঁদাবাজির প্রতিবাদে তিন ঘন্টা সড়ক অবরোধ

প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ১, ২০২১




সারাদেশ ডেস্ক : পুলিশের চাঁদাবাজি, হয়রানি, নির্যাতন ও মারধরের প্রতিবাদে রংপুর নগরীর পূর্ব বাবুখা এলাকায় ট্রাক টার্মিনাল এলাকায় রংপুর-কুড়িগ্রাম-দিনাজপুর মহাসড়ক তিন ঘন্টা অবরোধ ও বিক্ষোভ করে ট্রাক চালকরা। সোমবার (১ ফেব্রুয়ারি) সকাল এগারোটা থেকে দুপুর দুইটা পর্যন্ত রংপুর, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও ও পঞ্চগড় জেলার সাথে সারাদেশের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। এসময় সড়কের দুই পাশে প্রায় ৫ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়। আন্দোলনকারীরা দায়ী পুলিশ কর্মকর্তার বিচার দাবি করেন।

পরে সহকারী পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-দক্ষিণ) ফরহাদ ইমরুল কায়েস দায়ী পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিলে শ্রমিকরা তিন ঘন্টা পর দুপুর দুপুর দুইটায় অবরোধ তুলে নেন। সড়কে যানবাহন চালাচল শুরু হয়।

রংপুর জেলা ট্রাক, ট্যাংলরী, কাভার্ডভ্যান ও ট্রাক্টর শ্রমিক শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মানিক বলেন, ট্রাকের সব কাগজপত্র হালনাগাদ থাকার পরেও সোমবার সকালে নগরীর দর্শনা মোড় এলাকায় তাজহাট থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আশরাফ বালু বহনকারী ট্রাক চালক সজীবুর রহমান সজীকের ট্রাক থামিয়ে চাঁদা দাবি করে। সে চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে তাকে অশ্লীল ভাষায় গালাগাল করেন পরে তাকে মামলা দেয়।

তিনি জানান, রংপুরের লোকাল ট্রাকগুলো ইট, বালু ও মাটি বহন করে থাকে। কিন্ত রংপুর মেট্রোপলিটন ছয়টি থানার পুলিশ সড়কে চলাচলকারী এসব ট্রাকের কাগজপত্র হালনাগাদ থাকার পরেও প্রতিনিয়ত চাঁদাবাজি করে আসছে। চালকরা টাকা দিতে অস্বীকার করলে তাদের নামে হয়রানিমূলক মামলা, গালাগাল ও নির্যাতন করে আসছে। আমরা থানা পুলিশের এসব হয়রানির প্রতিবাদে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারকে লিখিত ভাবেও অভিযোগ দিয়েছি। কিন্ত এরপরেও থানা পুলিশ অযথা চালকদের হয়রানি করে আসছে। পুলিশের এসব কর্মকাণ্ডে আমরা অতিষ্ঠ হয়ে সড়ক অবরোধ করতে বাধ্য হয়েছি।

থানা পুলিশ যদি তাদের এই কর্মকাণ্ড থেকে বিরত না থাকে তাহলে আরো বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে হুমকি দেন এই শ্রমিক নেতা।

.ট্রাক চালকরা জানান, রংপুরের পীরগঞ্জ থেকে তারাগঞ্জ পর্যন্ত রংপুর জেলা ও মেট্রো পুলিশকে চাাঁদা দিতে হয়। এই পর্যন্ত পথ পাড়ি দিতে প্রত্যেক ট্রাক চালককে প্রায় এক হাজার টাকার মতো চাঁদা দিতে হয়। আমরা এর অবসান চাই। গাড়ির কাগজপত্র হালনাগাদ থাকার পরেও রাস্তায় কাগজপত্র পরীক্ষার নামে আমাদের প্রতিনিয়ত হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। এসব বন্ধ করতে হবে।

সহকারী পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-দক্ষিণ) ফরহাদ ইমরুল কায়েস জানান, ট্রাক, ট্যাংলরী, কাভার্ডভ্যান ও ট্রাক্টর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মানিকসহ ইউনিয়নের নেতাদের সাথে আমার কথা বলে বিয়ষটি গুরুত্বের সাথে নিয়েছি। ঘটনার তদন্ত করে দায়ী পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছি।

আর যাতে ট্রাক চালকেরা হয়রানির স্বীকার না হয় দেখি খেয়াল রাখার জন্য সকলকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

এই বিভাগের আরো নিউজ

রংপুরে পুলিশের চাঁদাবাজির প্রতিবাদে তিন ঘন্টা সড়ক অবরোধ
রংপুরে পুলিশের চাঁদাবাজির প্রতিবাদে তিন ঘন্টা সড়ক অবরোধ
রংপুরে পুলিশের চাঁদাবাজির প্রতিবাদে তিন ঘন্টা সড়ক অবরোধ
রংপুরে পুলিশের চাঁদাবাজির প্রতিবাদে তিন ঘন্টা সড়ক অবরোধ
রংপুরে পুলিশের চাঁদাবাজির প্রতিবাদে তিন ঘন্টা সড়ক অবরোধ
আজকের সর্বশেষ সব খবর