বুধবার | ৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৫শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

রক্তের বিনিময়ে মানুষ দেশ স্বাধীন করেছে আওয়ামীলীগের গোলামী করার জন্য নয়

প্রকাশিত : নভেম্বর ৮, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন- ভোটের অধিকারের জন্য বাংলাদেশের মানুষ ৯ মাস যুদ্ধ করেছে। ৩০ লক্ষ মানুষ শহীদ হয়েছে। রক্তের বিনিময়ে এই দেশ স্বাধীন করেছে আওয়ামীলীগের গোলামী করার জন্য নয়। তাই দেশকে বাচাঁতে হলে, দেশের মানুষকে বাচাঁতে হলে, ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হলে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির বিকল্প নেই। আওয়ামীলীগ মানুষের ভোটের অধিকার হরণ করেছে, গণতন্ত্র হত্যা করে রাষ্ট্র ক্ষমতা দখল করে বসে আছে। আওয়ামীলীগের দুঃশাসনে দেশের মানুষ আজ দিশেহারা। নিত্যপন্য মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে, জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি, নজিরবিহীন লোডশেডিং, বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বৃদ্ধি কারণে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে, দেশের মধ্যবিত্ত পরিবারগুলো তাদের সংসার চালাতে পারছে না, সামনের দিনগুলোতে ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ অপেক্ষা করছে। পৃথিবীর কোনো রাষ্ট্র প্রধান বলেন নাই তার রাষ্ট্রে দুর্ভিক্ষ আসতে পারে, কিন্তু আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই ঘোষণা দিয়েছেন সামনে দুর্ভিক্ষ আসছে। কারণ তিনি জানেন বাংলাদেশের কী পরিমাণ টাকা বিদেশে পাচার হয়েছে। আওয়ামীলীগ নেতারা এখন আর ঘোষ, বা কমিশন বাণিজ্য টাকা নেন না, তারা ডলার নেন। ব্যাংকে ডলার সংকট, কারণ ডলার আওয়ামীলীগ নেতাদের বাসায়। যে কারণে দেশে ডলারের সংকট সৃষ্টি হয়েছে। দেশে অচলাবস্থা সৃষ্টি হচ্ছে। এই অবস্থা থেকে দেশের মানুষকে বাচাঁতে হলে আওয়ামীলীগের পতন নিশ্চিত করতে হবে। তাই গণআন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়ার মুক্তি নিশ্চিত করতে হবে। খালেদা জিয়ার মুক্তি ছাড়া বাংলাদেশের মানুষ তাদের ভোটের অধিকার ফিরে পাবে না।

তিনি মঙ্গলবার বিকালে সদর উপজেলার ১নং লোকড়া ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড বিএনপির উঠান বৈঠকে এসব কথা বলেন।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বিনাভোটের আওয়ামী সরকারের কবল থেকে মুক্তি ও জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার দাবিতে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জি কে গউছ আর বলেন- ডিজিটাল ভোট ডাকাতির মাধ্যমে আওয়ামীলীগ আবারও ক্ষমতায় থাকতে চায়। এ জন্যই সরকার ইভিএমের আশ্রয় নিয়েছে। কিন্তু সেই সুযোগ আর তাদের দেয়া হবে না। ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচন আর বাংলাদেশে ফিরে আসবে না, কোনো নির্বাচন করতে দেয়া হবে না।
এডভোকেট মোঃ ইলিয়াছের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আজিজুর রহমান কাজল, যুগ্ম আহ্বায়ক শামছুল ইসলাম মতিন, আজম উদ্দিন, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সফিকুর রহমান সিতু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাাদক নজরুল ইসলাম কাওছার, বিএনপি নেতা কাজী শামসু মিয়া, আলহাজ্ব জুলমত আলী, শ্যামল আহমেদ, আব্দুল কাইয়ুম, দরস আলী, আব্দুল কাদির, মশ্বব আলী, বোরহান উদ্দিন, রফিক মিয়া, আব্দুল আহাদ, সমশের আলী, আলহাজ্ব আব্বাস উদ্দিন, ইলিয়াছ মিয়া, আলা উদ্দিন মিয়া, সফিক মিয়া, মহিবুর রহমান, আলহাজ্ব কুতুব আলী, সফর আলী, ফুল মিয়া, আব্দুর রাজ্জাক, বাবুল মিয়া, সাইফুল ইসলাম, মহিবুর রহমান, রোস্তম আলী, আব্দুল কুদ্দুস প্রমুখ।

আজকের সর্বশেষ সব খবর