রবিবার | ২৪শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

রাবিতে ছাত্রলীগের সঙ্গে ধস্তাধস্তি, শিক্ষকদের গুলি করার হুমকি চাকরিপ্রার্থীর

প্রকাশিত : মে ৪, ২০২১




জার্নাল ডেস্ক : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে সিন্ডিকেট সভা স্থগিত করার জন্য উপাচার্যের সঙ্গে কথা বলতে গেলে চাকরিপ্রত্যাশী ছাত্রলীগের সাবেক-বর্তমান নেতা–কর্মীরা ধাক্কা দিয়ে শিক্ষকদের সরিয়ে দিয়েছেন। মঙ্গলবার (৪ মে) সকালে উপাচার্যের বাসভবনের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় ছাত্রলীগের নেতা–কর্মীদের জটলার মধ্যে থেকে এক ব্যক্তি শিক্ষকদের ‘গুলি করে দেওয়ার’ হুমকি দেন।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানের মেয়াদের শেষ সিন্ডিকেট সভা তার বাসভবনে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। তবে ‘দুর্নীতিবিরোধী’ শিক্ষকদের বাধার মুখে ১১টার দিকে সেই সভা স্থগিত করতে বাধ্য হয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

সিন্ডিকেট সভা স্থগিত করার দাবিতে সকাল থেকেই উপাচার্যের বাসভবনের সামনে অবস্থান নেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের ‘দুর্নীতিবিরোধী’ শিক্ষকেরা।

এর আগেই উপাচার্যের বাসভবনের সামনে অবস্থান নেয় ছাত্রলীগের বর্তমান ও সাবেক নেতাকর্মীরা। সকাল সোয়া ১০টার দিকে উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করার জন্যে তার বাসভবনে যেতে চাইলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বাধার মুখে পড়েন ‘দুর্নীতিবিরোধী’ শিক্ষকেরা। সেসময় ছাত্রলীগকে নিবৃত্ত করতে প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমানকে অনুরোধ করেন শিক্ষকেরা।

এক পর্যায়ে পুলিশ ও প্রক্টরিয়াল বডির উপস্থিতিতেই শিক্ষকদের সঙ্গে ধাক্কাধাক্কিতে জড়িয়ে পড়েন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক ও প্রক্টর ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের দ্বারা লাঞ্ছিত হন বলে অভিযোগ উঠেছে। সেসময় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের ভেতর থেকে এক যুবক শিক্ষকদের গুলি করার হুমকি দেন। সংবাদকর্মীদের ধারণ করা ভিডিওতে এমন দৃশ্য দেখা গেছে।

শিক্ষকেরা উপাচার্যের বাসভবনে ঢুকতে গেলে গেটের সামনে থাকা ছাত্রলীগের নেতা–কর্মীরা বলেন, ‘না স্যার, ভেতরে ঢোকা যাবে না।’ এ বিষয় নিয়ে শিক্ষকদের সঙ্গে ছাত্রলীগ নেতা–কর্মীদের কথা-কাটাকাটি হতে থাকে। এমন সময় ছাত্রলীগ নেতা–কর্মীদের সঙ্গে থাকা এক চাকরিপ্রত্যাশী বলে ওঠেন, ‘তাহলে কিন্তু স্যার গুলি করে দিব একদম।’ এতে শিক্ষকেরা উত্তেজিত হয়ে পড়েন।

জানা গেছে, ওই যুবকের নাম আকাশ। তিনি বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন মেহেরচন্ডী এলাকার বাসিন্দা। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বলেছেন, ‘আকাশ রাবি ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত নয়।’ তবে, গুলি করার হুমকি দেওয়ার বিষয়ে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি।

‘দুর্নীতিবিরোধী’ শিক্ষকদের একজন বাংলা বিভাগের শফিকুন্নবি সামাদী বলেন, ‘আমরা উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু, আমাদেরকে বাধা দেওয়া হয় এবং লাঞ্ছিত করা হয়। এমনকি, আমাদের গুলি করার হুমকি দেওয়া হয়। ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদেরকে এভাবে হুমকি দেওয়ার সাহস কারো থাকার কথা না। এটি আমাদের নিরাপত্তার বিষয়। এর জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য দায়ী।’

সঙ্গীত বিভাগের অধ্যাপক অসিৎ রায় বলেন, ‘আজকের যে সিন্ডিকেট সভা ছিল সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য কোনো এজেন্ডা দেননি। কোনো আলোচ্যসূচি ছাড়াই সভা ডেকেছেন। এটা আমার জানতে পেরেছি। এতে আমরা ভিসির সাথে দেখা করা চেষ্টা করেছি এবং উপাচার্য ভবনের ঢোকার সময় কিছু বহিরাগত ছেলে সেখানে অবস্থান করছিল। আমরা তাদের সরে যেতে বলি কিন্তু তারা যায়নি। পরে প্রক্টরকে ছেড়ে দেওয়ার অনুরোধ করি। সে সময় প্রক্টরের ভূমিকা নিষ্ক্রিয় ছিল। এ সময় আমাদের শিক্ষকদের মধ্যে সামাদী চাকরি প্রত্যাশীদের সাথে কথা বলছিলেন যে, তোমরা কেন আমাদের আটকাচ্ছো। তারা কোনোভাবেই যেতে দেবে না। তখন পিছন থেকে একজন বলে আমাদের গুলি মেরে উড়িয়ে দেবেন।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে অপ্রীতিকর ঘটনা যেন না ঘটে সে ব্যবস্থা আমরা করেছি। এ জন্য সবার সাহায্য প্রত্যাশা করছি।’

শিক্ষকদের গুলি করে হত্যার হুমকি দেওয়ার বিষয়ে প্রক্টরের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এটি বড় ধরনের অপরাধ।’ তবে এ ব্যাপারে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান।

এই বিভাগের আরো নিউজ

এবারও জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা হবে না
ইবিতে হল-ক্যাম্পাস খোলার দাবিতে মশাল মিছিল
দেড় বছর পর বাজলো স্কুলের ঘণ্টা, বাঁধভাঙ্গা উচ্ছাসে শিক্ষার্থীরা!
নবীগঞ্জ কলেজের অনিয়মের সত্যতা মিলেছে
বানিয়াচং উপজেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলাম সরকারের আজ বানিয়াচংয়ে এক বছর
আজকের সর্বশেষ সব খবর