বুধবার | ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

রায়হান হত্যা: এসআই আকবরসহ ৫ পুলিশের বিরুদ্ধে চার্জশিট

প্রকাশিত : মে ৫, ২০২১




জার্নাল ডেস্ক : সিলেটে পুলিশ ফাঁড়িতে যুবক রায়হান আহমদ হত্যার ৭ মাসের মাথায় আদালতে অভিযোগপত্র জমা দিয়েছে তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

বুধবার (৫ মে) বেলা ১১টায় বন্দরবাজার ফাঁড়ির তৎকালীন ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) আকবরসহ ৬ জনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়।

পিবিআই সিলেটের পুলিশ সুপার খালেদ-উজ-জামান বলেন, আদালতে অভিযোগপত্র জমা হয়েছে। এতে পাঁচ পুলিশ সদস্য ও এক সাংবাদিককে অভিযুক্ত করা হয়েছে। দুপুর ১২টায় পিবিআই সিলেট অফিসে প্রেসব্রিফিং করে মামলার পুরো তদন্ত কার্যক্রম ও আসামিদের ব্যাপারে জানানো হবে।

এর আগে পুলিশ সুপার বলেন, আলোচিত এ মামলার আসামি পুলিশ হওয়ায় একটি নির্ভুল ও গ্রহণযোগ্য চার্জশিট তৈরি করতে কিছুটা সময় লেগেছে।

জানা গেছে, বন্দরবাজার ফাঁড়ির সাময়িক বরখাস্ত ৬ পুলিশকে ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

তারা হলেন- বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির তৎকালীন ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়া, টুআইসি এসআই হাসান আলী, এএসআই আশেকে এলাহী, কনস্টেবল হারুনুর রশিদ, কনস্টেবল তৌহিদ মিয়া ও কনস্টেবল টিটু চন্দ্র দাস। অভিযুক্ত ৬ জনই কারাগারে রয়েছেন। তবে ঘটনার সিসিটিভি ফুটেজ গায়েবকারী কথিত সাংবাদিক আব্দুল্লাহ আল নোমান পলাতক রয়েছে।

এর আগে গত বছরের ১১ অক্টোবর রাতে সিলেট নগরের আখালিয়ার এলাকার বাসিন্দা রায়হান আহমদকে নগরের কাষ্টঘর সুইপার কলোনি থেকে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে ধরে এনে নির্যাতন চালানো হয়। এতে তিনি গুরুতর আহত হলে পরদিন ভোরে তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সেখানে সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় ১২ অক্টোবর রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার বাদী হয়ে কোতোয়ালি মডেল থানায় পুলিশ হেফাজতে মৃত্যু আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

ঘটনার পরদিন রাতে কোতোয়ালি মডেল থানায় পুলিশ হেফাজতে নির্যাতনে মৃত্যু অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেন নিহতের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার। ওইদিন ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবরসহ চার পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত এবং তিনজনকে প্রত্যাহার করা হয়।

আর ১৪ অক্টোবর পিবিআইকে আলোচিত এ মামলার তদন্তভার দেওয়া হয়। তদন্তভার পেয়ে ১৫ অক্টোবর কবর থেকে রায়হানের মরদেহ উত্তোলন করে ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে পুনরায় ময়নাতদন্ত করা হয়। দুই দফার ময়নাতদন্তে রায়হানের দেহে ১১১টি আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়। এর মধ্যে ১৪টি আঘাত ছিল গুরুতর।

এই ঘটনায় দেশব্যাপী প্রতিবাদ ও নিন্দার ঝড় ওঠে। অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যদের গ্রেপ্তারের দাবিতে গড়ে ওঠে আন্দোলন। চলে নানা কর্মসূচি। নিহত রায়হানের মা সালমা বেগম রাজপথে নামেন। বন্দর ফাঁড়ির সামনে কাফনের কাপড় মাথায় দিয়ে অনশন করে ছেলে হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানান তিনি।

এ নিয়ে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশসহ আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীও বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে। সাময়িক বরখাস্তের পরপরই পুলিশ লাইন থেকে পালিয়ে যান মূল অভিযুক্ত এসআই আকবর। ২০ অক্টোবর ঘটনার তথ্য গোপন ও আকবরকে পালাতে সহায়তার অভিযোগে ফাঁড়ির টু-আইসি এসআই হাসানকেও সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

আর ঘটনার এক মাসের মাথায় ৯ নভেম্বর পলাতক ফাঁড়ি ইনচার্জ এসআই আকবরকে সিলেটের কানাইঘাটের সীমান্তবর্তী দনা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে জেলা পুলিশ। এরপর দিন তাকে পিবিআইর কাছে হস্তান্তর করা হয়। তাকেও দুই দফায় রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

 

আজকের সর্বশেষ সব খবর