বুধবার | ১০ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

লাখাই’র মুড়াকরিতে জাল দলিলে মাধ্যমে এক নিরীহ ব্যক্তির জায়গায় দখলের অভিযোগ

প্রকাশিত : জুন ৬, ২০২১




স্টাফ রিপোর্টার ॥ লাখাই উপজেলার মুড়াকরি গ্রামে জাল দলিলে মাধ্যমে সুকুমার দাস (৬৫) নামে এক নিরীহ ব্যক্তির ভিট জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে। একই এলাকার হামিদুল হকগংরা জমিটি দখল করে তাতে তড়িঘরি করে স্থাপনা নির্মাণ করছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়- মুড়াকরি গ্রামের নিবারণ দাসের ছেলে সুকুমার দাস এর একটি ভিট জমি জাল দলিলে মাধ্যমে একই এলাকার জারু মিয়ার ছেলে হামিদুল হকগং দখল করে নেয়। জমি দখলে বাঁধা দেয়ায় হামিদুল হকগং সুকুমার দাসকে হুমকি ও নানা ভয়ভীতি প্রদর্শন করে।

এ ঘটনায় সুকুমার দাস গত ১৯ মে লাখাই থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেন। অভিযোগ পেয়ে লাখাই থানায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অভিযোগটি তদন্তের জন্য এসআই আব্দুল মান্নানকে নির্দেশ দেন। এসআই আব্দুল মান্নান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে অভিযোগের সত্যতা পান।

সুকুমার দাস বলেন- ‘১শ’ বছরের আগ থেকে পূর্বপুরুষদের জায়গায় বসত ভিটা করে আমরা ব্যবহার করে আসছি। হঠাৎ প্রতিবেশী হামিদুল হকগং আমাদের জায়গায় অবৈধ অনুপ্রবেশ করে জোরপূর্বক দখল করে নেয়। ওই ভূমিটি তাদের বলে দাবি করে ১৯৬২ইং সালের একটি জাল দলিলে দেখায়। সে বেশ কিছু লোকজন নিয়ে আমাকে ভিটে মাটি থেকে বের করে দেয়। আমি বের হতে না চাইলে আমাকে কিল-ঘুষি ও লাথি দিতে থাকে। এক পর্যায়ে টেনেহিঁচড়ে বের করে দেয়। পরে আমার বাড়ির জমিতে বেড়া দিয়ে দখল করে নেয়। এই জমি আমার পৈত্রিক সম্পত্তি, আমার বাবা কাকারা ব্যবহার করেছেন।’

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত হামিদুল হকের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তাঁর মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে লাখাই থানার এসআই আব্দুল মান্নান জানান, হামিদুল হক গংরা ১৯৬২ সালের একটি দলিলের মাধ্যমে সুকুমার দাসের জায়গা জমি দখল করে নিয়েছে।

এ ঘটনায় সুকুমার দাস থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে থানার ওসি আমাকে বিষয়টি সরজমিন তদন্তের দায়িত্ব দেন। সরজমিন তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়। এই জমির প্রকৃত মালিক কারা, তা যাচাই করতে উভয়পক্ষকে গত শুক্রবার থানায় আসার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়। কিন্তু অভিযুক্ত হামিদুল হক কিংবা অভিযোগকারী কোন পক্ষই থানায় আসেনি বা এ ব্যাপারে যোগাযোগ করেনি।

আজকের সর্বশেষ সব খবর