রবিবার | ২৪শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

লাখাইয়ে হাওরে নববধূকে গণধর্ষণ, আরো ৩ আসামি গ্রেফতার

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ৬, ২০২১




জার্নাল প্রতিবেদক ॥ হবিগঞ্জের লাখাইয়ে হাওরে নৌকাভ্রমণে নববধূকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় রাঙামাটি থেকে আরো ৩ আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার (৬ আগস্ট) বিকেল সাড়ে ৩টায় নিজ কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিং করে বিষয়টি নিশ্চিত করেন পুলিশ সুপার এসএম মুরাদ আলি।

তিনি বলেন, রাঙামাটি পার্বত্য জেলার নানিয়ারচর থানার ইসলামপুর বউবাজার এলাকার পাহাড়ি এলাকা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলেন উপজেলার মোড়াকড়ি গ্রামের পাতা মিয়ার ছেলে হৃদয় মিয়া, বকুল মিয়ার ছেলে সুজাত মিয়া এবং নিজাম মিয়ার ছেলে জুয়েল মিয়া।

পুলিশ সুপার বলেন, গ্রেফতারকৃত আসামিরা এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা প্রাথমিকভাবে স্বীকার করেছেন। তাদেরকে আরো জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আদালতে পাঠানো হবে। এছাড়া পুরো ঘটনাটি নিয়ে পুলিশ তদন্ত করছে।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার তিন আসামিকে গ্রেফতার করে র‌্যাব ও পুলিশ। ধর্ষণের ঘটনায় এ পর্যন্ত ৬ আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি দুই আসামি এখনও পলাতক। এরই মধ্যে গ্রেফতারকৃত মিঠু মিয়া আদালতে ঘটনার সঙ্গে জড়িত স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন।

গত ২৫ আগস্ট দুপুরে নব দম্পতি তাদের এক বন্ধুকে নিয়ে টিক্কাপুড়া হাওরে নৌকাভ্রমণে যায়। সেখানে আরেকটি নৌকা নিয়ে ৮ জন যুবক তাদের নৌকায় হানা দেয়। দুই বন্ধুকে মারধর করে নববধূকে তারা সংঘবদ্ধ ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে তাদের নগ্ন করে ভিডিও ধারণ করে তারা। নগ্ন ছবি ও ভিডিও দেখিয়ে ৯ লাখ টাকা দাবি করে তারা। টাকা না পাওয়ায় ভিডিওটি এলাকার কয়েকজনের কাছে ছড়িয়ে দেয়া হয়।

গত বৃহস্পতিবার নববধূর স্বামী আটজনের বিরুদ্ধে হবিগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এ মামলা করেন। আদালত অভিযোগটি আমলে নিয়ে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মামলা রেকর্ড করতে লাখাই থানার ওসিকে নির্দেশ দেয়।

মামলার আসামিরা হলেন, মোড়াকড়ি গ্রামের মুছা মিয়া, মিঠু মিয়া, হৃদয় মিয়া, সুজাত মিয়া, জুয়েল মিয়া, সোলায়মান রনি, মুছা মিয়া ও শুভ মিয়া।

ওই দিনই মিঠু মিয়া, সোলায়মান রনি ও শুভ মিয়াকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

প্রেস ব্রিফিংয়ে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শৈলেন চাকমা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজা আক্তার শিমুল, লাখাই থানার ওসি সাইদুল ইসলাম, ওসি তদন্ত ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মহিউদ্দিন সুমনসহ জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

 

 

১৩ সেপ্টেম্বর সারপ্রাইজ দেবেন মাহিয়া মাহি

বিনোদন ডেস্ক ॥ আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর সারপ্রাইজ দেবেন বলে জানিয়েছেন ঢাকাই সিনেমার আলোচিত চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি। রোববার রাতে মাহি নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে একটি স্ট্যাটাস দেন। তবে মাহির স্ট্যাটাস দেখে অনেকে ধরেই নিয়েছেন ‘গোপনে’ বিয়ে করেছেন তিনি, সেটাই প্রকাশ করবেন ওইদিন।

স্ট্যাটাসে মাহিয়া মাহি লেখেন, আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর সারপ্রাইজ দেবো, ইনশাআল্লাহ।

‘সারপ্রাইজ’ বিষয়ে জানতে চাইলে মাহিয়া মাহি গণমাধ্যমকে বলেন, এখন বললে তা আর সারপ্রাইজ রইলো না। ১৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করতেই হবে।’

সিলেটের ব্যবসায়ী পারভেজ মাহমুদ অপুকে ২০১৬ সালে বিয়ে করেন মাহিয়া মাহি। বিয়ের এক বছর পর থেকেই তাদের মধ্যে বিচ্ছেদের কথা শোনা যাচ্ছিল। অবশেষে গেল মে মাসে দাম্পত্য জীবনের ইতি টানার ঘোষণা দেন মাহি।

এর কিছুদিন পর থেকে মাহির নতুন বিয়ে গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে। তবে এসব গুঞ্জনকে পাত্তা দিচ্ছেন না মাহি।

এই বিভাগের আরো নিউজ

মানুষের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনতে হলে খালেদা জিয়ার মুক্তি নিশ্চিত করতে হবে: জি কে গউছ
জনপ্রিয়তা হারানো বিএনপি পেছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় আসতে চায়: এমপি আবু জাহির
শেষ ওভারে জিতলো অস্ট্রেলিয়া
শাহবাগে ‘গণঅনশন ও অবস্থান’ কর্মসূচিতে ৮ দফা দাবি
ইকবালের বিষয়ে ফখরুলের কাছে তথ্য আছে: ওবায়দুল কাদের
আজকের সর্বশেষ সব খবর