বৃহস্পতিবার | ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

লেজগুটিয়ে পালানোর ইতিহাস আমার নেই মরলে বীরের মতই মরবো, রাজপথে মরবো : জি কে গউছ

প্রকাশিত : নভেম্বর ১৬, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন- সিলেটের গণসমাবেশকে যাতে জনসমুদ্রে পরিণত না করতে পারি সে জন্যই পুলিশ লাখাই উপজেলা বিএনপির প্রস্তুতি সভায় হামলা করেছে। এতে আমরা ভিত নই, পুলিশের হামলা-মামলার ভয়কে উপেক্ষা করেই আমরা রাজনীতি করি। কোনো বাধাঁই বিএনপিকে থামিয়ে রাখতে পারবে না। সিলেটে বিএনপির গণসমাবেশ জনসমুদ্রে পরিণত হবে।

তিনি বুধবার (১৬ই নভেম্বর) রাতে লাখাই থেকে ফিরে নিজ বাসভবনে উপস্থিত সাংবাদিক ও দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে এসব কথা বলেন। এরআগে হাজারো নেতাকর্মী মোটরসাইকেল শো-ডাউন দিয়ে লাখাই থেকে আলহাজ্ব জি কে গউছকে বাসায় নিয়ে আসেন।

বুধবার বিকালে লাআই উপজেলা বিএনপির সভায় পুলিশ হামলা করলে শতাধিক নেতাকর্মী আহন হন। অবরুদ্ধ করা হয় জি কে গউছকে। খবর পেয়ে জেলা সকল উপজেলায় তাৎক্ষনিক বিক্ষোভ মিছিল করেন দলের নেতাকর্মীরা। ছুটে যান লাখাই উপজেলায়। দলের নেতাকর্মী ও স্থনীয় লোকজন যখন বাড়তে থাকে তখন পুলিশ অবরোধ তুলে নেয়। পরে বিশাল শো-ডাউন দিয়ে বাসায় ফিরেন জি কে গউছ। বাসায় সাংবাদিকসহ দলীয় নেতাকর্মী ও উৎসুক জনতা ভির করেন।

এ সময় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে জি কে গউছ বলেন- নেতা এমনই হওয়া উচিৎ। কর্মী বিপদে পড়লে নেতার পরিচয় পাওয়া যায়। আজকে লাখাইর ঘটনায় আবারও প্রমাণ হয়েছে, আমাদের অভিভাবক আছে। আমরা অবরুদ্ধ থাকা অবস্থায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এডভোকেট রুহুল কবির রিজভী ও যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল একাধিকবার ফোনে আমার সাথে কথা বলেছেন, আমাদের খোঁজ খবর নিয়েছেন। অতিতে যেভাবে এ ধরনের ঘটনার মোকাবেলা আমরা করেছি, ঠিক সেইভাবেই ধৈর্য্যের সাথে এই পরিস্থিতির মোকাবেলা করার জন্য নির্দেশ নিয়েছেন।

তিনি বলেন- লাখাই প্রমাণ হয়েছে, পুলিশ দিয়ে বিএনপিকে মাঠ ছাড়া করা যাবে না। পুলিশ অনেক চেষ্টা করেছে, লাখাই থেকে যেনতেনভাবে আমাদেরকে হবিগঞ্জ পাঠাতে। কিন্তু তারা সফল হয়নি। যেভাবে গিয়েছি তার চেয়ে বেশি সম্মান নিয়ে হবিগঞ্জ ফিরেছি। মরবো কিন্তু অসম্মানের মরা মরবো না। লেজগুটিয়ে পালানোর ইতিহাস আমার নেই। মরলে বীরের মতই মরবো, রাজপথে মরবো, পালাবো না। আসার পথে লোকড়া, রিচি, বুল্লা ও করাব এলাকায় শত শত মানুষ এই শীতের রাতে রাস্তায় দাড়িয়ে আমাদের গাড়ী থামিয়ে খোঁজ খবর নিয়েছেন। যখন দেখেছি ভাল আছি, দুই হাত তুলে মহান আল্লাহর দরবারে শোকরিয়া আদায় করেছেন। এসব মানুষের প্রতি, দলীয় নেতাকর্মীর প্রতি তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

আজকের সর্বশেষ সব খবর