রবিবার | ২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

শীতের আগমনী বার্তা, ঘন কুয়াশার চাদরে হবিগঞ্জ

প্রকাশিত : নভেম্বর ১৩, ২০২২




সিরাজুল ইসলাম জীবন ॥ হেমন্ত প্রেমী কবি জীবনানন্দ দাশের ‘নির্জন স্বাক্ষর’ কবিতায় হেমন্ত ধরা দিয়েছে। কবি তার ভাষায় লিখেছেন ‘যখন ঝরিয়া যাব হেমন্তের ঝড়ে, পথের পাতার মতো তুমিও তখন আমার বুকের পরে শুয়ে রবে?’। ঠিক তেমনি শরতের শেষে শীতের আগমনী বার্তা নিয়ে প্রকৃতিতে হেমন্ত।

তবে হেমন্তের আগমনে প্রকৃতি সেজেছে এক অপরুপ সাজে। সন্ধ্যার মৃদু কুয়াশা, হিমেল বাতাস, সকালে সবুজ ঘাসের মাথায় জমে থাকা শিশির কণাই জানান দিচ্ছে প্রকৃতিতে এসেছে হেমন্ত। হেমন্তর আগমন ঘটলেই যেন শান্ত হয়ে উঠে উত্তপ্ত এই প্রকৃতি।যদিও জেলা শহরের দালান কোঠায় শীতের উষ্ণতা একটু দেরিতে আসলেও হবিগঞ্জের গ্রামীণ জনপদে আগে থেকেই শীতের সরব উপস্থিতি লক্ষ করা যাচ্ছে।গরম কাপড়ের খোঁজে দোকানে দোকানে চলে আনাগোনা। বিত্তবানদের কাছে শীত উপভোগের হলেও খেটে খাওয়া মানুষের কাছে শীত বেশ অস্বস্তির। গত দু’দিন হবিগঞ্জে রোদের তীব্রতাও কমতে শুরু করেছে। তবে সারাদিনের আবহাওয়ায় একটু আধটু গরম অনুভূত হলেও বিকাল গড়াতেই বোঝা যাচ্ছে শীতল পরিবেশ।

রোববার ভোরে দেখা যায়-হালকা কুয়াশায় ঢেকে রয়েছে রাস্ত-ঘাট।গ্রামের মেঠোপথে সকালে হাঠলেই পা ভিজে যাই শিশির কণাতে। সড়কে-মহাসড়কে বাস-ট্রাকগুলো চলাচল করছে হেডলাইট জ্বালিয়ে। ভোরে ও সকালে অনেকেই নিজ নিজ গন্তব্যে বের হয়েছেন হালকা গরম কাপড় গায়ে মুড়িয়ে। আর ঘাসের ওপর ভোরের সূর্য হালকা লালচে রঙয়ের ঝিলিক দিচ্ছে। তাই তো হেমন্তের আগমনে মাঠে মাঠে হেসে উঠেছে সোনালী ধান। পাকাধানের মৌ মৌ সুমৃষ্ট সুভাসে মুখরিত চারিপাশ।

আর এদিকে লেপ, কম্বল বের করতে শুরু করেছে বাড়ির গৃহিণীরা। দিনে গরম, রাতে শীতল হাওয়া আর ভোরের ঘন কুয়াশা বলে দিচ্ছে শীত আর দূরে নেই।

পৌর এলাকায় বসবাসকারী লেপ-তোশক তৈরির কারিগর  মোঃ সুজন মিয়া জানান, “কাপড় ও তুলার দাম বেশি হওয়ায় খরচ আগের তুলনায় কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া এটি একটি মৌসুমী ব্যবসা। সারা বছর অলস সময় কাটানোর পর শীতের কয়েক মাস কর্মব্যস্ততা বৃদ্ধির সাথে সাথে দিন রাত পরিশ্রম করে অতিরিক্ত উপার্জন নিজেদের স্বচ্ছলতা ফেরানোর চেষ্টা করি। শীতের প্রকট যত বেশি হয়, কাজও ততো বেশি বেড়ে যায়।”

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা অলক কুমার চন্দ হবিগঞ্জ জার্নালকে বলেন, ‘বিগত কয়েক দিন ভোর রাতে ও সকালে কুয়াশা পড়ছে। শীতের সঙ্গে তাপমাত্রা কমে আসতে শুরু করবে। এ বছর উপজেলায় শীতকালীন ফসল ভালো হবে বলে আশা করছি। ইতিমধ্যে কৃষকদের শীতকালীন সবজি চাষে উৎসাহ ও বিভিন্ন পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।’

আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা যায়’ ভোর থেকে হঠাৎ করে কুয়াশার পরিমাণ বেড়েছে। রোববার(১৩ই নভেম্বর) সকালে সর্বনিম্ন ২১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা ছিল। তবে দিন বাড়ার সাথে সাথে বাড়বে শীত। শীতের সাথে তাপমাত্রা কমে আসতে শুরু করবে। আগামী দিনগুলোতে শীত ও কুয়াশার তীব্রতা আরও বাড়বে।

আজকের সর্বশেষ সব খবর