সোমবার | ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

শেখ হাসিনার পতনের মধ্য দিয়েই খালেদা জিয়ার মুক্তি নিশ্চিত হবে: জি কে গউছ

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ৮, ২০২২




মোঃ আলাল মিয়া, নবীগঞ্জ থেকে ॥ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন- গণআন্দোলনের মাধ্যমে শেখ হাসিনার পতনের মধ্য দিয়েই খালেদা জিয়ার মুক্তি নিশ্চিত করতে হবে। বিনাভোটের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পতন ছাড়া বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও মানুষের ভোটের অধিকার ফিরে আসবে না। ইনশাআল্লাহ, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার হাত ধরেই মানুষের ভোটের অধিকার ও গণতন্ত্র ফিরে আসবে। জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠিত হবে।

তিনি বৃহস্পতিবার (৮ই সেপ্টেম্বর) বিকালে নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি, পরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধি ও দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি এবং নারায়নগঞ্জ ও ভোলাসহ বিভিন্ন স্থানে পুলিশের গুলিতে বিএনপির ৩ কর্মী হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে এই বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে জি কে গউছ আরও বলেন- পুলিশ বিএনপির প্রতিপক্ষ নয়। বিএনপির প্রতিপক্ষ আওয়ামীলীগ। কিন্তু আওয়ামীলীগ কৌশলে পুলিশকে বিএনপির প্রতিপক্ষ বানাতে চায়। কারণ আওয়ামীলীগ জনবিচ্ছিন্ন। আওয়ামীলীগের দুঃশাসনে দেশের মানুষ বিক্ষুব্দ। দেশের মানুষ আওয়ামীলীগকে আর এক মুহুর্তের জন্যও ক্ষমতায় দেখতে চায় না। আওয়ামীলীগের লুটপাট ও লাগামহীন দূর্নীতির কারণে দেশ আজ দেউলিয়াত্বের দ্বারপ্রান্থে। আওয়ামীলীগের এই ব্যর্থতা জনগণের উপর চাপিয়ে দিয়েছে। জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি, নজিরবিহীন লোডশেডিং এর কারণে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে, পরিবহনব ভাড়া বেড়েছে। এতে জনজীবন নাভিশ্বাস হয়ে উঠেছে। আওয়ামীলীগের এসব ব্যর্থতা তুলে ধরতেই বিএনপি রাজপথে কর্মসূচী দিয়েছে। কিন্তু আওয়ামীলীগ বিএনপিকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়ে পুলিশ প্রশাসন ব্যবহার করছে। এসব অপকর্ম যারাই করছে তাদের বিচার বাংলাদেশের মাটিতে হবে। জনগণ সকল অপকর্মের জবাব দিবে। সেই দিন আর বেশি দুরে নয়।

তিনি বলেন- ইভিএম ও ব্যালট পেপার বুঝিনা, আমরা চাই নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার। শেখ হাসিনার অধীনে বিএনপি কোন নির্বাচনে যাবে না, কোন নির্বাচন আর করতে দেয়া হবে না। ২০১৪ ও ২০১৮ সালের মত কোন নির্বাচন আর বাংলাদেশে হবে না। ২০২৩ সালই হবে শেখ হাসিনার পতনের সাল।

তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন- ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের কোন বিকল্প নেই। নবীগঞ্জে বিএনপির দুর্বল নেতৃত্বের কারনেই আজকের সমাবেশে পুলিশ বাঁধা দিতে পেরেছে। নবীগঞ্জে বিএনপিকে ঢেলে সাজাঁতে হবে। আমাদের কথা কম বলতে হবে, আর কাজ বেশি করতে হবে। আমরা ইচ্ছা করলেই পুলিশের ব্যারিকেট ভাঙ্গতে পারি। কিন্তু আজকে কোন সরকার পতনের কর্মসূচী ছিল না। জনগণের কষ্ট লাগবে জ্বালানি তেল ও দ্রব্যমূল্য কমানোর দাবীতে আজকে সমাবেশের কর্মসূচী পালন করছে বিএনপি। সরকার পতনের ডাক যে দিন আসবে, সেই দিন বিএনপির সামনে কোন ব্যারিকেট টিকবে না।

নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনরি আহ্বায়ক সরফরাজ চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক মুজিবুর রহমান শেফু ও যুগ্ম আহ্বায়ক শিহাব আহমেদ চৌধুরীর পরিচালনায় এই অনুষ্ঠিত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও সাবেক এমপি শেখ সুজাত মিয়া।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব মতিউর রহমান পিয়ারা, বিএনপি নেতা মুজিবুর রহমান মুজিব, হারুনুর রশিদ হারুন, সোহেল আহমেদ রিপন, মাহি চৌধুরী, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমদ, সহ সভাপতি মোশাহিদ আলম মুরাদ, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক কাউন্সিলর সফিকুর রহমান সিতু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম কাওছার, বিএনপি নেতা শাহীদ তালুকদার, লুৎফুর রহমান, আবুল মনসুর, হিফজুর রহমান, আশিক মিয়া, মতিউর রহমান, সালেক উদ্দিন, কুতুব উদ্দিন, বয়াত উল্লাহ, জামাল মিয়া, মোশাহিদ আলী, ফয়জুল হক চৌধুরী, সাদিকুর রহমান, আরজু মিয়া, শাহ এবাদুর রহমান, আব্দুল মোকিত, সৈয়দ জুবায়ের আলী, মতিউর রহমান জামাল, আব্দুল বাছিত রাসেল, আবুবকর তালুকদার, আবু সুফিয়ান, আক্কেল আলী, ছমিরুল হক, এনাম মিয়া, আব্দুল মোকিত, আব্দুর রব, সাইদুর রহমান, সাদিকুর রহমান শিশু, আলেক মিয়া, নজরুল ইসলাম, এডভোকেট জালাল আহমেদ, শাহ আমজাদ আলী, মইনুল ইসলাম বাচ্চু, সফিউল আলম বজলু, সাহেদ আহমেদ, মকসুদ চৌধুরী, আজিজুল আহমেদ মেরাজ, আহমেদ খান, সোহেল আহমেদ, আব্দুল মন্নান, গোলাম নবী, আব্দাল মিয়া, মজিবুল হক, যুবদল নেতা আলমগীর মিয়া, কপিল মিয়া, সাইফুর রহমান বাবু, রাকিব আহমেদ, জহিরুল ইসলাম সোহেল, জাকারিয়া আহমেদ, জেষন আহমেদ, লিটন মিয়া, সেচ্ছাসেবক দল নেতা জুসেফ বখত চৌধুরী, নোমান আহমেদ, মোঃ সামছুজ্জামান, ছায়েদ আহমেদ প্রমুখ।

আজকের সর্বশেষ সব খবর